BREAKING NEWS

১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

আফগানিস্তানে ভেস্তে যাওয়ার মুখে শান্তিপ্রক্রিয়া, তালিবালের বিরুদ্ধে হুঙ্কার ঘানির

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: May 15, 2020 1:20 pm|    Updated: May 15, 2020 1:20 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আশা জগিয়েছিল দোহা। মার্কিন-তালিবান চুক্তিতে সাময়িকভাবে হলেও শান্তির আস্বাদ পেতে চলেছিল আফগানিস্তান। সেইমতো মাস দুয়েক আগে দেড় হাজার তালিবান জঙ্গির মুক্তিপত্রে স্বাক্ষরও করেন সে দেশের প্রেসিডেন্ট আশরফ ঘানি। তবে সমস্ত চেষ্টায় জল ঢেলে ফের হিংসার পথ বেছে নিয়েছে তালিবান। পালটা রণহুঙ্কার দিয়েছেন ঘানিও। সব মিলিয়ে আফগান শান্তি প্রক্রিয়া কার্যত স্তব্ধ।

[আরও পড়ুন: করোনা মোকাবিলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে ভারত, প্রশংশায় পঞ্চমুখ বিল গেটস]

গত মঙ্গলবার কাবুলের একটি প্রসূতি হাসপাতালে ভয়াবহ হামলা চালিয়ে বেশ কয়েকটি নিষ্পাপ শিশু-সহ ২৪ জনেক হত্যা করে জঙ্গিরা। সেদিনই আফগানিস্তান-পাকিস্তান সীমান্ত সংলগ্ন নানগরহার পরিদেশে এক পুলিশ আধিকারিকের শবযাত্রায় আত্মঘাতী হামলা চালায় জঙ্গিরা। ওই হামলায় অন্তত ৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালে এহেন বর্বরোচিত হামলায রীতিমতো ফুঁসছে আফগানিস্তান। এর ফলে তালিবানের সঙ্গে শান্তি সমঝোতা ভেস্তে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এদিকে, বৃহস্পতিবারও দেশের পূর্বাঞ্চলে স্থিত গারডেজ শহরে আফগান সেনার একটি ঘাঁটিতে হামলা চালিয়ে পাঁচজনেক হত্যা করে জঙ্গিরা। এহেন পরিস্থিতিতে তালিবানের বিরুদ্ধে ফের অভিযান চালানোর আদেশ দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ঘানি। পালটা তালিবানের দাবি, তারা কাবুলের হাসপাতালে হামলা চালায়নি। সরকার মিথ্যা অপবাদ দিয়ে ফের সৈন্য অভিযান শুরু করেছে।

উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারি মাসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কাতারের রাজধানী দোহায় তালিবানের শান্তি চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে। চুক্তির শর্ত মেনেই আফগানিস্তানের হেলমন্দ ও হেরাত প্রদেশের সেনাঘাঁটি থেকে মার্কিন ফৌজ বিদায় নিচ্ছে। আমেরিকার সঙ্গে তালিবানদের শান্তি চুক্তি হওয়ার পরেও তাই বিক্ষিপ্ত ভাবে কিছু হিংসার ঘটনা ঘটেছে। ক্রমাগত এই চাপের মুখে তালিবানদের প্রতি নরম মনোভাব দেখাতে বাধ্য হয়েছে আফগান সরকার। এহেন পরিস্থিতিতে ফের জঙ্গি হামলায গোটা শান্তিপ্রক্রিয়া থমকে গিয়েছে বলেই মনে করছেন প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা। 

[আরও পড়ুন: উন্নয়নশীল দেশগুলির মধ্যে বৃহত্তম আর্থিক প্যাকেজ! মোদির প্রশংসায় পঞ্চমুখ রাষ্ট্রসংঘ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement