৪ ফাল্গুন  ১৪২৬  সোমবার ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

BREAKING NEWS

Menu Logo দিল্লি ২০২০ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

৪ ফাল্গুন  ১৪২৬  সোমবার ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দাবানল বিধ্বস্ত অস্ট্রেলিয়ায় অবশেষে দেখা মিলল স্বস্তির বৃষ্টি। আর তা দেখে বেজায় খুশি বাসিন্দারা। তবে সবচেয়ে বেশি খুশি হয়েছে দেড় বছরের এক খুদে। বৃষ্টি দেখে এক দৌড়ে বাড়ি থেকে বাইরে বেরিয়ে আসে একরত্তি। বৃষ্টিতে গা ভিজিয়ে নাচতে শুরু করেছে সে। সোশ্যাল মিডিয়ায় খুদের কীর্তির ভিডিও শেয়ার করেন তাঁর মা। বর্তমানে নেটিজেনদের টাইমলাইনের সিংহভাগ দখল করে নিয়েছে বৃষ্টিভেজা শিশুর আনন্দের মুহূর্ত। যদিও আবহাওয়াবিদদের আশঙ্কা দাবানলের পর এই বৃষ্টি হতে পারে ভূমিধস এবং জলদূষণের অন্যতম কারণ।

গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকেই জ্বলছে অস্ট্রেলিয়া। দাবানলে পুড়ে ছাই বিস্তীর্ণ বনাঞ্চল। অসহায়ের মতো প্রাণ হারিয়েছে বহু বন্যপ্রাণী। নষ্ট হয়ে গিয়েছে একরের পর একরের জমি। দমকল কর্মীদের অক্লান্ত পরিশ্রমেও আগুন নিয়ন্ত্রণে সময় লেগে গিয়েছে অনেক। দাবানল বিধ্বস্ত অস্ট্রেলিয়া যেন এখন মৃত্যুপুরী। থমথমে বিস্তীর্ণ এলাকা।

Australia-fire

তারই মাঝে বৃহস্পতিবার আচমকাই ঝেঁপে বৃষ্টি আসে অস্ট্রেলিয়ায়। নিউ সাউথ ওয়েলসে নিজেদের ফার্ম হাউসের ভিতর বসে বাইরের দিকে তাকিয়ে ছিল আঠারো মাসের খুদে সুনি ম্যাকেঞ্জি। ঝেঁপে বৃষ্টি আসতে দেখে নিজেকে আর সামলে রাখতে পারেনি সে। ফার্ম হাউস থেকে সোজা দৌড়ে বাইরে বেরিয়ে আসে সে। বৃষ্টিতে ভেজার আনন্দে নাচতে শুরু করে সুনি। তিনি জানান, “বৃষ্টি আসার পর ফার্ম হাউস থেকে টব বের করে বাইরে রাখি। তখনই দেখি সুনি বেরিয়ে এল। তারপর বৃষ্টিতে ভিজতে ভিজতে নাচতে শুরু করে সে। সাউথ ওয়েলসে এমন ঝেঁপে বৃষ্টি গত ২-৩ বছরে দেখিনি। খুব ভাল লাগছে।”

[আরও পড়ুন: দেশের প্রথম মহিলা পাইলট হিসেবে নজির গড়লেন জর্ডনের রাজকুমারী]

ওই খুদের মা টিফানি ম্যাকেঞ্জি তাঁর সন্তানের নাচের ভিডিও স্মার্টফোনবন্দি করেন। ভিডিওটি শেয়ার করেন আইএফএস আধিকারিক সুশান্ত নন্দা। তিনি লিখেছেন, “দাবানলে বিধ্বস্ত অস্ট্রেলিয়ায় একটু স্বস্তি দিচ্ছে এই ভারী বৃষ্টি। আর জীবনে প্রথমবার বৃষ্টি থেকে আনন্দে নেচে উঠেছে ১৮ মাসের ছোট্ট সুনি। সত্যি এতদিন পর বৃষ্টি আসার অনুভূতি অস্ট্রেলিয়াবাসীর কাছে স্বর্গীয়।” দাবানলের গ্রাসে কেউ হারিয়েছেন বাসস্থান আবার কেউ বা চোখের সামনে প্রাণ হারাতে দেখেছেন কাউকে। তাই এখনও দাবানল বিধ্বস্তদের চোখেমুখে আতঙ্কের ছাপ স্পষ্ট। কিন্তু তার মাঝে ভারী বৃষ্টি এবং খুদের নাচ কিছুটা হলেও স্বস্তি দিচ্ছে স্থানীয়দের।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং