২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মুম্বই হামলা-শ্রীলঙ্কায় বিস্ফোরণ, জোড়া ফলা থেকে বেঁচে মৃত্যুঞ্জয়ী অভিনব

Published by: Sayani Sen |    Posted: April 29, 2019 9:29 pm|    Updated: April 29, 2019 9:36 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রথমবার ২০০৮এর মুম্বই হামলা৷ ১০ বছর পর দ্বিতীয়বার শ্রীলঙ্কার ধারাবাহিক বিস্ফোরণ৷ দু’বার বড়সড় সন্ত্রাসবাদী হামলার মুখোমুখি হয়েছেন৷ তবে চোটাঘাত লাগেনি এতটুকুও৷ মৃত্যু যেন ঠিক কান ঘেঁষে পাশ কাটিয়ে চলে গিয়েছে ভারতীয় বংশোদ্ভূত দুবাইয়ে বসবাসকারী অভিনব চারির৷ অনেকেই বলছেন একেই বোধহয় বলে, ‘রাখে হরি তো মারে কে?’

[ আরও পড়ুন: জঙ্গি শনাক্তকরণে সুবিধার জন্য বোরখা নিষিদ্ধ শ্রীলঙ্কায়, সিদ্ধান্ত ঘিরে সমালোচনা]

ইস্টার সানডের শ্রীলঙ্কা৷চার্চে চলছে প্রার্থনা৷ তাতেই অংশ নিয়েছিলেন অভিনব চারি এবং তাঁর স্ত্রী নভরূপ কে চারি৷ কিন্তু আচমকাই স্তব্ধ চার্চে শুরু হয়ে যায় হুড়োহুড়ি৷ ফাদার বলেন, সবাইকে চার্চ থেকে বেরিয়ে যেতে৷ নির্দেশ মানেন দুবাইয়ে বসবাসকারী ভারতীয় বংশোদ্ভূত দম্পতি৷ ইস্টার সানডেতে বেড়াতে গিয়ে সিনামন গ্র্যান্ড হোটেলেই থাকছিলেন তাঁরা৷ চার্চ থেকে বেরিয়ে দম্পতি ঠিক করেন হোটেলে খাওয়াদাওয়া সারবেন৷ কিন্তু রাস্তায় কড়া নিরাপত্তার বেড়াজাল৷ গাড়ি নিয়ে রাস্তা দিয়ে যেতে পারছিলেন না দম্পতি৷ তাই স্থির করেন হোটেলেই ফিরে যাবেন৷ কিন্তু সেখানে গিয়েও দেখেন হোটেল থেকে বেরিয়ে এসেছেন অনেকেই৷ লনে ভিড় ভরতি৷ বুঝতে পারছিলেন না ঠিক কী ঘটেছে৷ পরে লোকমুখে তাঁরা শোনেন ধারাবাহিক বিস্ফোরণের কথা৷ পরপর ছ’টি বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা প্রায় তিনশো পেরিয়েছে৷ কিন্তু রাস্তায় নিরাপত্তার কড়াকড়িতে কোনওক্রমে প্রাণে বেঁচে যান অভিনব এবং নবরূপ৷

অভিনব বলেন, ‘‘ধারাবাহিক বিস্ফোরণে প্রাণহানির কথা শুনে স্তম্ভিত হয়ে গিয়েছিলাম৷ আতঙ্কে হাত-পা কাজ করছিল না৷ কিন্তু এভাবে মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে ফিরেছি জানতে পেরে কী করব বুঝতে পারছিলাম না৷’’ তবে এই প্রথমবার নয়, অভিনবের জীবনে এর আগেও এমন অভিজ্ঞতা রয়েছে৷ ২৬/১১-র মুম্বই হামলার সময়েও ঠিক ঘটনাস্থলেই উপস্থিত ছিলেন তিনি৷ তবে সেই সময়ে মৃত্যু যেন ঠিক কান ঘেঁষে চলে গিয়েছিল৷ মুম্বই হামলার পর দিন পাঁচেক আতঙ্ক তাঁকে তাড়া করে বেরিয়েছিল বলেই জানান অভিনব৷

[ আরও পড়ুন: বিস্ফোরণের আগে শ্রীলঙ্কার হোটেলে ঢোকে ফিদায়েঁ জঙ্গি! প্রকাশ্যে চাঞ্চল্যকর ভিডিও]

অভিনবের স্ত্রী নবরূপের চোখে-মুখে এখনও আতঙ্কের ছাপ স্পষ্ট৷ বুঝতে পারছেন না ঠিক কীভাবে এই অনুভূতিকে ভাষায় বর্ণনা করবেন তিনি৷ অভিনবের স্ত্রীর কথায়, ‘‘ধারাবাহিক বিস্ফোরণের পর ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ হয়ে যায়৷ তাই কী হয়েছে বুঝতে বেশ কিছুটা সময় লেগে গিয়েছিল৷ যে বিস্ফোরণে এতগুলি মানুষ মারা গিয়েছেন, সেই পরিস্থিতিতে অক্ষত রয়েছি ভেবেই ভাল লাগছে৷’’ একবার একা এবং দ্বিতীয়বার সস্ত্রীক মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছেন অভিনব৷ জীবনে দু’বার এমন অভিজ্ঞতার সাক্ষী হয়েছেন৷ তবে ঘটনার আকস্মিকতায় ভগবানকেও ধন্যবাদ জানাতে ভুলে গিয়েছেন অভিনব৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement