Advertisement
Advertisement
Israel

নরসংহার আপাতত থামল রাফায়! জেদ ছেড়ে ‘যুদ্ধবিরতি’ ঘোষণা নেতানিয়াহুর

গুলি, বোমা ও আর্তনাদের শব্দ থামল নরকে পরিণত হওয়া রাফায়।

Israel and Hamas strategic pause during war in Rafah city
Published by: Amit Kumar Das
  • Posted:June 16, 2024 2:45 pm
  • Updated:June 16, 2024 5:11 pm

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মাস-দিনের হিসেব নেই। চারিদিকে গুলি, বোমা ও আর্তনাদের শব্দ। ইজরায়েলের লাগাতার হামলায় কার্যত নরকে পরিণত হয়েছে দক্ষিণ গাজার শহর রাফা। ভয়ংকর তাণ্ডবলীলা চালানোর পর গোটা বিশ্বের চাপের মুখে পড়ে আপাতত নরসংহারে ইতি টানার সিদ্ধান্ত নিলেন ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু। রবিবার আনুষ্ঠানিকভাবে যুদ্ধ বিরতি ঘোষণা করেছে ইজরায়েলি সেনা আইডিএফ ও হামাস। জানা যাচ্ছে, যুদ্ধবিদ্ধস্ত রাফায় সর্বোচ্চ মানবিক সাহায্য পৌঁছে দিতেই এই পদক্ষেপ।

ইজরায়েল (Israel) সেনার তরফে জানানো হয়েছে, রাফাতে রবিবার সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যে ৭টা পর্যন্ত এই যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর তরফে পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত এই যুদ্ধবিরতি জারি থাকবে। অন্যদিকে হামাসের (Hamas) তরফেও জানানো হয়েছে, এই যুদ্ধবিরতি তারা পালন করবে। ওদিক থেকে কোনও রকম আক্রমণ না হলে এদিক থেকেও কোনও হামলা হবে না। জানা যাচ্ছে, রাষ্ট্রসংঘ ও আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের উদ্যোগে এই যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল নেতানিয়াহুর কাছে। সেই প্রস্তাবে সম্মত হন তিনি। যদিও সূত্রের খবর, মানবিক সাহায্য সরবরাহের জন্য ১১ ঘণ্টার এই যুদ্ধবিরতি শেষ হওয়ার পর ফের স্বমহিমায় ফিরবে ইজরায়েল।

Advertisement

[আরও পড়ুন: বিধানসভা ভোটের চার মাস আগেই মারাঠাভূমে ‘জোটবার্তা’ উদ্ধবদের]

৯ মাস পেরিয়ে গেলেও গাজায় জারি রয়েছে হামাস-ইজয়ায়েল যুদ্ধ। চলতি বছরের গোড়া থেকেই রাফা অভিযান শুরু করেন ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু। সেখানে হামাস ঘাঁটির পাশাপাশি লাগাতার হামলা চালানো হচ্ছে শরণার্থী শিবিরগুলিতে। যার জেরে সহায়সম্বলহীন সাধারণ নাগরিকের মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। যদিও হামাসের দাবি, শরণার্থী শিবিরগুলিতে সাধারণ নাগরিকের বেশে আশ্রয় নিয়েছে হামাস জঙ্গিরা তাই এই হামলা। এদিকে ভয়ংকর গণহত্যার নিন্দায় সরব হয়ে উঠেছে গোটা বিশ্ব। নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আবেদন জমা পড়েছে আন্তর্জাতিক আদালতে।

Advertisement

[আরও পড়ুন: ‘বিরতি’ ঘোষণা করে হাসপাতালে ভর্তি অভিষেক, কারণ কী?]

এদিকে রিপোর্ট বলছে গত ৯ মাস ধরে চলা এই হামলায় কমপক্ষে ৪০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। গত কয়েক দিনে রাফার ২ শরণার্থী শিবিরে হামলার ঘটনায় অসংখ্য মানুষের মৃত্যু হয়েছে, যার বেশিরভাগই মহিলা ও শিশু। যদিও ইজরায়েল দাবি করেছে ওই হামলায় বেশ কয়েকজন হামাস কমান্ডারেরও মৃত্যু হয়েছে। টালমাটাল এই পরিস্থিতির মাঝে ১১ ঘন্টার এই যুদ্ধবিরতি কিছুটা হলেও স্বস্তি রাফার নাগরিকদের জন্য।

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ