৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কাশ্মীর নিয়ে গোটা বিশ্বকে বার্তা দিতে ‘জলসা’ বা মহামিছিলের ডাক দিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। বুধবার ইমরানের টুইট, ‘আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর আজাদ কাশ্মীরের (পাক অধিকৃত কাশ্মীর) রাজধানী মুজফফরাবাদে মহামিছিল হবে। কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘন, ভারতীয় সেনার অত্যাচার, মুসলিমদের উপর গণহত্যা নিয়ে আন্তর্জাতিক বিশ্বকে বার্তা দিতে এবং কাশ্মীরের মানুষের ‘পাশে দাঁড়াতে’ এই মহামিছিলের ডাক দেওয়া হচ্ছে।’

[আরও পড়ুন: এক লিটার দুধের দাম ১৪০ টাকা! বেজায় বিপাকে পাকিস্তানের জনতা]

কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহারে কাশ্মীরবাসীর মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে নয়াদিল্লি, আন্তর্জাতিক মঞ্চে বার বার এটাই তুলে ধরার চেষ্টা করেছে পাকিস্তান। ইমরান খান এর আগে পাক পার্লামেন্টে ভাষণ দিতে গিয়ে বার বার বলেছেন, কাশ্মীর হল পাকিস্তানের ঘাড়ের মধ্যে থাকা মূল রক্ত সংবহনকারী ধমনীর মতো। কাশ্মীর ছাড়া পাকিস্তান অর্থহীন। কাশ্মীর ছাড়া পাকিস্তান অস্তিত্বহীন। তাই কাশ্মীরের জন্য পাকিস্তান শেষ দেখে ছাড়বে। সব কিছু বাজি রেখে লড়বে। ভারতীয় কূটনীতিকরা এই কর্মসূচি নিয়ে অশান্তির মেঘ দেখছেন। কারণ মুজফ্ফরাবাদে এই বিশাল র‌্যালিতে পাকিস্তানের সেলিব্রিটি ক্রিকেটার, অভিনেতা, বিরোধী দলগুলির নেতা-নেত্রীদের যোগ দিতে অনুরোধ জানিয়েছেন ইমরান। এই সমাবেশ সফল হলে তার জেরে উত্তপ্ত হতে পারে এপারের কাশ্মীরও। মঙ্গলবারই জম্মু ও কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগের আন্তর্জাতিক তদন্তের দাবিতে রাষ্ট্রসংঘে সরব হয়েছিল পাকিস্তানও। তার জবাবে বিদেশসচিব (পূর্ব) বিজয় সিং ঠাকুর বলেন, গোটা দুনিয়া জানে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদের আঁতুড়ঘর পাকিস্তান। তাদের মুখে মানবাধিকার নিয়ে জ্ঞান দেওয়া শোভা পায় না।

উল্লেখ্য, এমাসের শেষের দিকে অর্থাৎ ২৭ সেপ্টেম্বর রাষ্ট্রসংঘের সাধারণ সভায় ভাষণ দেবেন মোদি। দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর এই প্রথম রাষ্ট্রসংঘে ভাষণ দেবেন তিনি। দর্শকাসনে থাকবেন বিশ্বের তাবড় তাবড় দেশের রাষ্ট্রপ্রধানেরা। মোদির পরই এই সভায় ভাষণ দেবেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানও। রাষ্ট্রসংঘের তরফে, প্রথম যে বক্তাদের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে তাতে নাম রয়েছে মোদি এবং ইমরানের। আগে মোদি এবং পরে ইমরান বক্তব্য রাখবেন বলে মনে করা হচ্ছে। যদিও, এই ক্রমান্বয়টি এখনও সরকারিভাবে জানানো হয়নি। তবে গত মাসের গোড়ায় জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা খর্ব করার পর এই প্রথম রাষ্ট্রসংঘের মঞ্চে এই দুই নেতা। স্বাভাবিকভাবেই এ নিয়ে রাজনৈতিক মহলে তুমুল আগ্রহ তৈরি হয়েছে।

[আরও পড়ুন: মত মিলছে না, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা বোল্টনকে বরখাস্ত করলেন ট্রাম্প]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং