BREAKING NEWS

১২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৬ মে ২০২০ 

Advertisement

২৪ ঘণ্টায় মৃত প্রায় ২ হাজার, করোনার কামড়ে রক্তাক্ত মার্কিন মুলুক

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: April 8, 2020 9:38 am|    Updated: April 8, 2020 9:39 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অদৃশ্য শত্রুর দাপটে ত্রাহি ত্রাহি রব উঠেছে মার্কিন মুলুকে। অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ও ‘ব্রহ্মাস্ত্রের’ সম্ভার নিয়েও করোনা ভাইরাসের সামনে হাঁটু গেড়ে বসে পড়েছে ‘আঙ্কল স্যাম’। পরিস্থিতি যে কোন জায়গায় পৌঁছেছে, তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আমেরিকায় মৃত্যু হয়েছে প্রায় ২ হাজার মানুষের। 

[আরও পড়ুন: দায়িত্বশীল মিস ইংল্যান্ড, করোনা পরিস্থিতিতে চিকিৎসার দায়িত্বে ফিরলেন বঙ্গকন্যা]

জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের দেওয়া পরিসংখ্যান মতে মঙ্গলবার রাত ৮.৩০ পর্যন্ত করোনার আক্রমণে আমেরিকায় মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৯৩৯ জনের। ফলে সে দেশে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৭২২। বিশ্লেষকদের একাংশ মনে করছেন, পরিসংখ্যান ইঙ্গিত করছে যে, মৃত্যুর সংখ্যায় করোনায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশ ইটালি ও স্পেনকেও টপকে যেতে পারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। উল্লেখ্য, করোনায় আক্রান্ত হয়ে এপর্যন্ত ইটালিতে ১৭ হাজার ১২৭ ও স্পেনে ১৩ হাজার ৭৯৮ জন মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। গবেষণা ও বিজ্ঞানীদের আপ্রাণ চেষ্টা সত্বেও এই রোগের সঠিক দাওয়াই এখনও খুঁজে বের করা সম্ভব হয়নি।

এদিকে, করোনা মোকাবিলায় প্রশাসনের সমর্থনে মুখ খুলে সমস্ত দায় হু-এর (World Health Organization) উপর চাপিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে দেরির অভিযোগ করেন তিনি। প্রসঙ্গত, গোড়ার দিকে আন্তর্জাতিক সফরে নিষেধাজ্ঞার বিরোধিতা করেছিল হু। সেই পদক্ষেপ নিয়ে ট্রাম্প বলেন, “আন্তর্জাতিক সফরে নিষেধাজ্ঞার পদক্ষেপ ভুল বলেছিল হু। ওরা পরিস্থিতির গুরুত্ব বুঝতেই পারেনি। আরও কয়েক মাস আগে থেকেই এই পদক্ষেপ নেওয়া উচিত ছিল ওদের।”

তবে অন্যদের ঘাড়ে দোষ চাপালেও করোনা মোকাবিলায় ট্রাম্প প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। এই মহামারীর গোড়ার দিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বুক চিতিয়ে দাবি করেছিলেন ‘সাধারণ জ্বর’ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। আমেরিকায় সব ঠিক আছে। ফলে সময় থাকতে লকডাউন বা কোয়ারেন্টাইন করার মতো কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। ফলে এবার খেসারত দিতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে।      

[আরও পড়ুন: WHO চিনের তাবেদার! আর্থিক সাহায্য বন্ধের হুমকি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের]                                       

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement