BREAKING NEWS

২৩ শ্রাবণ  ১৪২৭  রবিবার ৯ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

করোনার অব্যর্থ দাওয়াই আবিষ্কারের দাবি নাইজেরিয়ার বিজ্ঞানীদের

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: June 22, 2020 2:21 pm|    Updated: June 22, 2020 10:10 pm

An Images

প্রতীকী ছবি

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিশ্বে ক্রমেই বেড়ে চলেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এই সময়ে আশার বাণী শোনালেন নাইজেরিয়ার বিজ্ঞানীরা (Nigerian scientists)। এই মারণ ভাইরাসকে প্রতিরোধের ভ্যাকসিন (vaccine) নাকি আবিষ্কার করে ফেলেছেন তাঁরা। এই খবরেই তোলপাড় বিশ্বজুড়ে।

প্রতিদিনই বিশ্বে করোনা সংক্রমণের রেকর্ড তৈরি হচ্ছে। তবে এই রেকর্ডের শেষ কোথায়? সেই প্রশ্নের উত্তর এখনও অধরাই। অপেক্ষা ছিল শুধুমাত্র করোনা ভাইরাসের প্রতিষেধকের। শুক্রবার নাইজেরিয়ান ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরা ঘোষণা করেন, সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রায় ৪ লক্ষ ৬৫ হাজারের বেশি মানুষ মারা গিয়েছেন। সেই পরিস্থিতিতে COVID-19-এর ভ্যাকসিন আবিষ্কার করেছেন তাঁরা। তবে এই ভ্যাকসিন আপাতত আফ্রিকায় আক্রান্তদের জন্য ব্যবহার করা হবে। এরপরে বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলির কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ওই বিশেষজ্ঞরা। ভ্যাকসিন আবিষ্কারক দলের প্রধান গবেষক ও মেডিক্যাল ভাইরোলজি স্পেশালিস্ট ড. ওলাদিপো কোলাওলে (Dr Oladipo Kolawole) একটি সাংবাদিক বৈঠকে জানিয়েছেন, “এখনও ভ্যাকসিনটির নামকরণ করা হয়নি। নামহীন এই ভ্যাকসিনটিকে শুধুমাত্র আফ্রিকার মানুষদের জন্য তৈরি করা হয়েছে। তবে পরে পরে এই টিকা বা ভ্যাকসিনটি সারা বিশ্বের ছড়িয়ে পড়বে।”

[আরও পড়ুন:ভাঙল অতীতের সব রেকর্ড, একদিনেই বিশ্বে করোনা আক্রান্ত ১ লক্ষ ৮৩ হাজার]

তিনি বৈঠকে আরও জানান, “দলের গবেষকরা আফ্রিকার বিভিন্ন এলাকা থেকে করনা জিনোম সিকোয়েন্স সংগ্রহ করেন। সেটার ভিত্তিতেই তৈরি হয়েছে এই টিকা। তাই সর্বপ্রথম আফ্রিকার সংক্রমিতদের উপরেই তা প্রয়োগ করা হবে। এই টিকার সঙ্গে বহু মানুষের আবেগ জড়িয়ে রয়েছে। বেশ কয়েকবার এই ভ্যাকসিনটি যাচাই করে তারপর তা প্রকাশ্যে আনা হয়েছে। আফ্রিকার আক্রান্তরা এই ভ্যাকসিনের সুফল পেলে তা বিশ্বের করোনা আক্রান্ত দেশগুলির কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে।”

[আরও পড়ুন:দেশে ফের উদ্বেগজনক হারে বাড়ল করোনা আক্রান্তের সংখ্যা, পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও]

নামহীন এই ভ্যাকসিনটিকে প্রস্তুত করে বিশ্বের বাকি করোনা দেশগুলির কাছে পৌছে দিতে আরও ১৮মাস সময় লাগবে বলে জানা যায়। চিকিত্‍সক কোলাওলের কথায়, “নানা পরীক্ষা, পড়াশোনা, মেডিক্যাল বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে লাগাতার পরামর্শ করে ও অনুমতির পর এই ভ্যাকসিন সকলের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে।”মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল, রাশিয়া ও ভারতে ক্রমশই আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে। অন্যদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) বিশ্বে দ্বিতীয়বার করোনা সংক্রমণের ‘বিস্ফোরণ’ হতে পারে বলে আশঙ্কা করছে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement