৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কোরীয় উপত্যকায় শান্তির সম্ভাবনা জলাঞ্জলি দিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনায় ইতি টানলেন কিম জং উন৷ উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রনেতা সাফ জানালেন, পড়শি দেশের ‘ভুল সিদ্ধান্তের’ জন্যই আর আলোচনার কোনও সম্ভাবনা নেই৷

[আরও পড়ুন: পাক-অধিকৃত কাশ্মীর থেকে ভারতে হামলার ছক, প্রকাশ্যে জেহাদি ভিডিও]

কিম জানিয়েছেন, মার্কিন ফৌজের সঙ্গে যুদ্ধের মহড়া শুরু করে পরিস্থিতি অশান্ত করেছে দক্ষিণ কোরিয়া৷ এই আগ্রাসন মেনে নেওয়া হবে না৷ দক্ষিণের ভুল সিদ্ধান্তের জন্যই আর কোনও আলোচনা হবে না৷ এদিকে, বৃহস্পতিবার জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জাই ইন বলেন, ‘কোরীয় উপদ্বীপের পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ প্রক্রিয়া কঠিন সন্ধিক্ষণে আটকে। কারণ, উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার আলোচনা মাঝপথে থেমে গিয়েছে। আমরা শান্তির অপেক্ষায়।’ মুনের এই মন্তব্য ভালভাবে নেননি উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম। এমনকী পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের বিষয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের  সঙ্গে কথা হলেও গত ক’দিনে একাধিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করেছে উত্তর কোরিয়া।

গতকাল, অর্থাৎ শুক্রবারও পূর্ব উপকূল থেকে দু’টি মিসাইলের পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণ করে তারা। এক মাসেরও কম সময় প্রায় ছয়টি মিসাইল উৎক্ষেপণ করল কিমের দেশ৷ উল্লেখ্য, গত জুন মাসে উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উনের সঙ্গে দেখা করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পরিস্থিতি সামান্য করতে যৌথ বিবৃতি দেন দুই রাষ্ট্রপ্রধানই। তারপরই মনে করা হয় যে দুই কোরিয়ার মধ্যে কিছুটা হলে উত্তেজনা কমবে। পাশাপাশি আপাতত মিসাইল নিয়ে আস্ফালন থেকে বিরত থাকবেন একনায়ক কিম। তবে সাত দিনের মধ্যেই চারটি মিসাইল ছুঁড়ে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করে দিলেন কিম। প্রথম দু’টি মিসাইল উৎক্ষেপণের পর সিওলকে এক প্রকার হুমকি দিয়ে কিম বলেছিলেন যে মার্কিন সেনার সঙ্গে সামরিক মহড়ার নামে ‘আগ্রাসন’ ও ‘উসকানিমূলক’ কার্যকলাপ বন্ধ না করলে ফল ভোগ করতে হবে দক্ষিণ কোরিয়াকে। সব মিলিয়ে নিকট ভবিষ্যতে দুই কোরিয়ার মধ্যে উত্তেজনা কমার আশা এই মুহূর্তে নেই বলেও মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।   

[আরও পড়ুন: দু’সপ্তাহে চতুর্থবার, ফের উত্তাপ ছড়িয়ে উড়ল কিমের জোড়া মিসাইল] 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং