৬ মাঘ  ১৪২৬  সোমবার ২০ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo ফিরে দেখা ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

৬ মাঘ  ১৪২৬  সোমবার ২০ জানুয়ারি ২০২০ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডি়জিটাল ডেস্ক: নোবেল পুরস্কার দেওয়ার ক্ষেত্রে নিরপেক্ষতা বজায় রাখা হয় না। যদি তা হয়, তাহলে তিনি অনেকগুলি বিষয়ের জন্য একটা নোবেল পেতেই পারেন। সোমবার নিউইয়র্কে পাকিস্তানের সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় এই দাবিই করলেন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। হিউস্টনে নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে একমঞ্চে বক্তব্য রাখার কিছুক্ষণ বাদেই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। তার আগে ইমরানকে সঙ্গে নিয়েই তিনি মুখোমুখি হয়েছিলেন পাকিস্তানের সাংবাদিকদের। সেসময় পাকিস্তানের এক সাংবাদিক তাঁকে জিজ্ঞাসা করেন, তিনি নোবেল পুরস্কার পাওয়ার উপযুক্ত কিনা। তখনই এই মন্তব্য করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

[আরও পড়ুন: পাকিস্তানে হিন্দু ছাত্রী হত্যা, ‘অজানা আতঙ্কে’ তদন্তে না বিচারকের]

তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি নোবেল কর্তৃপক্ষ যদি নিরপেক্ষভাবে সঠিক বিচার করে। তাহলে অনেককিছু বিষয়ের জন্য আমি নোবেল পুরস্কার পেতে পারি। কিন্তু, ওরা সেটা করে না।’ এরপরই বারাক ওবামা মার্কিন প্রেসিডেন্ট হওয়ার পরেই যে নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন তার প্রবল সমালোচনা করেন তিনি। কটাক্ষ করে বলেন, ‘উনি নিজেও জানেন না যে কেন এই পুরস্কার পেলেন। আর এটাই সেই একমাত্র বিষয় যেটাতে ওনার সঙ্গে আমি একমত।’

মার্কিন সেনেটরদের অনেকে তাঁকে কাশ্মীর নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে তৈরি হওয়া উত্তেজনা প্রশমনের জন্য উদ্যোগ নিতে অনুরোধ করছেন। গতকাল সাংবাদিকদের সঙ্গে আলোচনার সময় ফের এই দাবি করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এবং তিনিও যে বিষয়টিতে মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালন করার জন্য উদগ্রীব হয়ে আছেন তা জানান। তবে, দু’দেশের প্রধানমন্ত্রী তাঁকে এই ভূমিকা পালন করতে বললেই তিনি তাতে রাজি হবেন বলে জানিয়েছেন।

[আরও পড়ুন:‘উষ্ণায়ন রোধে কাজে হচ্ছে না’, রাষ্ট্রসংঘে প্রথম বিশ্বের দেশগুলিকে বিঁধলেন মোদি]

এবছরের প্রথমদিকে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনোজা আবে তাঁকে নোবেল প্রাইজের জন্য মনোনীত করেছেন বলে দাবি করেন ট্রাম্প। মার্কিন প্রেসিডেন্ট এই দাবি করলেও বিষয়টি সত্যি কিনা তা সম্পর্কে কোনও মন্তব্য করেননি জাপানের প্রধানমন্ত্রী।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং