৮ ফাল্গুন  ১৪২৬  শুক্রবার ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শনিবার সকালেই ইরানের সরকারি টিভি চ্যানেলের তরফে ইউক্রেনের বিমান দুর্ঘটনার পিছনে নিজেদের হাত থাকার কথা স্বীকার করে নেওয়া হয়। ইরানের সেনাবাহিনীর তরফে একটি বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়, ভুলবশত এই দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা ঘটেছে। দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিকদের বুঝতে ভুল হওয়ার কারণেই ইউক্রেনের ওই বিমানে আঘাত হেনেছে ইরানের মিসাইল। উপযুক্ত তদন্তের পর দোষীদের শাস্তি দেওয়া হবে। ইরানের এই স্বীকারোক্তির পরেই গর্জে ওঠে ইউক্রেন ও কানাডার সরকার। সোশ্যাল মিডিয়াতে একের পর এক পোস্ট করে এই নারকীয় ঘটনার জন্য ইরানের শাস্তি দাবি করেন ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতি ভোলোডাইমার জেলেনস্কি(Volodymyr Zelensky)।

ইরানের সরকারি টিভি চ্যানেলের বিবৃতি প্রকাশ পাওয়ার পরেই ফেসবুকে তিনি লেখেন, ‘আমরা আশা করব এই ঘটনার জন্য যারা দায়ী তাদের আদালতে দোষী সাব্যস্ত করে চরম শাস্তি দেওয়া হবে। বিচারবিভাগীয় তদন্ত করে এই ঘটনার সত্যতা সবার সামনে তুলে ধরা হবে। পাশাপাশি এই ঘটনার দায় স্বীকার করে সরকারিভাবে ক্ষমা চাইতে হবে তাদের। এই ঘটনার তদন্ত যাতে নিরপেক্ষ ও দ্রুত হয় সেটা দেখাও তাদের দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। আমরা ইউক্রেন থেকে এর তদন্তের জন্য ৪৫ জন বিশেষজ্ঞকেই দুর্ঘটনাস্থলে পাঠাতে চাই। তাঁদের যেন সবরকমের সাহায্য করা হয়। আর এই ঘটনায় ইউক্রেনের যে নাগরিকদের প্রাণ গিয়েছে তার জন্যও উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ চাই।’

[আরও পড়ুন: ‘কাশ্মীর ইস্যুতে সমর্থন করলেই দেশে ফেরার সুযোগ দিতেন মোদি’, বিস্ফোরক জাকির নায়েক ]

এই ঘটনার জন্য ইরানের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। সরকারি বিবৃতি দিয়ে মৃতদের পরিবার ও তাঁদের প্রিয়জনদের কথা ভেবে ইরানকে এই ঘটনার জন্য ক্ষমা চাইতে বলেন। তাঁর কথায়, ‘এটা জাতীয় বিপর্যয়। কানাডার সমস্ত নাগরিক এই ঘটনায় প্রচণ্ড আঘাত পেয়েছেন। শোকে মূহ্যমান হয়ে পড়েছেন। মৃত ৬৩ জন নাগরিকের পরিবারকে এর জন্য ক্ষতিপূরণ দিতে হবে ইরানকে। প্রকাশ্যে ক্ষমা স্বীকার করে বিবৃতি দিতে হবে।’

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং