BREAKING NEWS

১০ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৬ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

হোয়াইট হাউস দখলের দৌড়ে এগিয়ে বিডেন, কড়া টক্কর দিচ্ছেন ট্রাম্পও

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: November 4, 2020 8:10 am|    Updated: November 4, 2020 8:58 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এ যেন টানটান কোনও ক্রিকেট ম্যাচ। শেষ বল পর্যন্ত উত্তেজনা। আমেরিকায় এখন রাত ৯.৩০ নভেম্বর ৩। ভারতীয় সময়মতে নভেম্বর ৪, বুধবার সকাল ৮ টা। প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচন শেষ হয়ে চলছে ভোটগণনা। জানা গিয়েছে, এপর্যন্ত ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী জো বিডেনের দখলে এসেছে ১১৯টি আসন। রিপাবলিকান পার্টি ডোনাল্ড ট্রাম্পের ঝুলিতে এসেছে ৯২টি আসন। ৫৩৮ আসনের ‘ইলেক্টোরাল কলেজ’-এ ম্যাজিক ফিগার ২৭০। কোন প্রার্থী আগে তা ছুঁয়ে ফেলবেন সেটা আর কিছুক্ষণের মধ্যেই পরিষ্কার হয়ে যাবে।

[আরও পড়ুন: পর্নহাব-সহ ১৯০টি পর্ন ওয়েবসাইট বন্ধের নির্দেশিকা সরকারের, তীব্র প্রতিবাদ সোশ্যাল মিডিয়ায়]

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, ইন্ডিয়ানা, ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া, নর্থ ডাকোটা, সাউথ ডাকোটা, কেন্টাকি, টেনেসি, ওকলাহোমা, মিসিসিপি, লুইসিয়ানা, আলাবামা, সাউথ ক্যারোলিনা, আরকানসাস, নেব্রাস্কা গিয়েছে ট্রাম্পের দখলে। এদিকে, টেক্সাস, নিউ মেক্সিকো, কলারাডো, কানসাস, মিসৌরি, উইসকনসিন, নিউ ইয়র্ক, পেনসিলভানিয়া, নর্থ ক্যারোলিনা, ভার্জিনিয়া ও ওহাইওর দখল রয়েছে ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী বিডেনের হতে। তবে ২৯ আসনের ফ্লোরিডার ফলের দিকে তাকিয়ে গোটা আমেরিকা। ওই রাজ্যে দখল করতে পারলে জয়ের অনেক কাছে পৌঁছে যাবেন প্রার্থী। তবে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে শেষপর্যন্ত কে জয়ী হবেন তা নিয়ে রয়েছে চরম উত্তেজনা। এখানে বলে রাখা ভাল, মার্কিন নিয়মে বিভিন্ন সংবাদ সংস্থা ও সংবাদমাধ্যমগুলি ভোটগণনার পর কোন প্রার্থী পাল্লা ভারি তা ঘোষণা করে। পরাজিত প্রার্থী সাধারণত তা মেনে মেন। কিন্তু আনুষ্ঠানিক ফল ঘোষণা হতে আরও কিছু সময় লাগে।

এদিকে, ট্রাম্প পরাজিত হলে হিংসার আশঙ্কায় গত কাল থেকে বিভিন্ন দোকান ও রেস্তরাঁর কাচের জানলা-দরজা ঢেকে দেওয়া হয়েছে কাঠের শক্ত বোর্ড দিয়ে। যাতে হামলকারীরা কাচ ভেঙে ভিতরে ঢুকে লুটপাট চালাতে না পারে। ওয়াশিংটন ডিসি, নিউ ইয়র্ক, নিউ জার্সি, এমনকি ক্যালিফোর্নিয়া, লস অ্যাঞ্জেলেসে বিখ্যাত রোডিয়ো ড্রাইভ, সর্বত্রই ছবিটা এক। এই প্রত্যেকটিই কিন্তু ডেমোক্র্যাটদের শক্ত ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত। ভোটের ফল আশানরূপ না-হলে ট্রাম্পপন্থীরা ছেড়ে কথা বলবেন না আশঙ্কা থেকেই এই ব্যবস্থা বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। উল্লেখ্য, আমেরিকার পঞ্চাশটি প্রদেশের মধ্যে ১২-১৫টি প্রদেশের ভোটই খেলা ঘুরিয়ে দিতে পারে বলে মনে করেন সমীক্ষকেরা। এগুলি সচরাচর কোনও দলেরই ঘাঁটি নয়।

[আরও পড়ুন: বর্ণবিদ্বেষের শিকার? ভারতীয় মুসলিম যুবককে কুপিয়ে খুন আমেরিকায়]

 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement