BREAKING NEWS

২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২০ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

মার্কিন মুলুকে মন্দার মার, এক তৃতীয়াংশ কমবে H1-B ভিসার সংখ্যা

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: October 7, 2020 2:28 pm|    Updated: October 7, 2020 2:28 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা মহামারীর জেরে বিপন্ন গোটা দুনিয়া। মারণ ভাইরাসের ছোবলে মহামন্দার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বিশ্ব অর্থনীতি। বিশেষ করে আমেরিকার মতো দেশগুলিতে কর্মসংস্থান ও উৎপাদনে বিস্তর প্রভাব ফেলেছে কোভিড। তাই এবার মার্কিন জনতার ‘চাকরি বাঁচাতে’ H1-B ভিসার সংখ্যা এক তৃতীয়াংশ কমিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন।

[আরও পড়ুন: করোনা নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন ট্রাম্প! পোস্ট সরিয়ে দিল ফেসবুক এবং টুইটার]

মঙ্গলবার, মার্কিন ডিপার্টমেন্ট অফ হোমল্যান্ড সিকিউরিটি (DHS) ও শ্রমদপ্তরের শীর্ষ অধিকারিকরা জানিয়েছেন H1-B ভিসা সংক্রান্ত নিয়া নিয়ম শীঘ্রই ঘোষণা করা হবে। সেখানে বলা থাকবে কারা এবং কী কী শর্তে H1-B ভিসা দেওয়া হবে। এবং ন্যূনতম কত টাকা বেতন হলে এই ভিসার জন্য আবেদন জানানো যাবে সেটাও স্পষ্ট করা হবে। অ্যাক্টিং ডেপুটি সেক্রেটারি কেন কুসসিনেল্লি জানিয়েছেন, DHS-এর নয়া নিয়ম অনুযায়ী এক তৃতীয়াংশ আবেদনকারী H1-B ভিসা পাবেন না। ডেপুটি সেক্রেটারি অফ লেবার প্যাট্রিক পিজজেল্লা বলেন, “আগামী দিনে বিদেশী কর্মীদের বেশি মাইনে ও ভাতা দিতে হবে কোম্পানিগুলিকে। করোনা পরিস্থিতিতে কর্মসংস্থান সংক্রান্ত পরিস্থিতির কথ মাথায় রেখে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মহামারী আবহে লক্ষ লক্ষ আমেরিকান চাকরি খুঁজছে। কম মইনের বিদেশী কর্মীরা যাতে তাঁদের সুযোগ হাতিয়ে নিতে না পারে সেই বিষয়ে নজর দিতে হবে।”

H1-B ভিসা প্রকল্পটি শুরু হয়েছিল প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট এইচ ডবলিউ বুশের আমলে। আমেরিকায় তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্র বিপুল আকারে বাড়ায় সংস্থাগুলিতে স্থানীয় কর্মী ছাড়াও বিদেশী দক্ষ কর্মীদের চাহিদা বাড়তে থাকে। ফলে চীন ও ভারত থেকে লক্ষ লক্ষ তথ্যপ্রযুক্তি কর্মী এই ভিসা নিয়ে পাড়ি দেয় আমেরিকায়। তবে মহামারীর আবহে অর্থনীতি সংকোচিত হওয়ায় এবার ভিসা সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা জারি করতে চলেছে ওয়াশিংটন। এর ফলে স্থানীয় প্রার্থীদের চাকরি পেতে কিছুটা সুবোধ হবে বলেই মনে করা হচ্ছে। 

[আরও পড়ুন: আজারবাইজান-আর্মেনিয়ার যুদ্ধে ঘি ঢালছে তুরস্ক, জল্পনা উসকে অভিযোগ আসাদের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement