BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনা আতঙ্ক: ইউরোপের ৩০ দেশে যাতায়াতের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি আমেরিকার

Published by: Paramita Paul |    Posted: March 12, 2020 4:04 pm|    Updated: March 12, 2020 4:11 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনাকে ‘বিশ্বব্যাপী মহামারি‘ বলে উল্লেখ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO)। ইতিমধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে অন্তত চার হাজার জনের। ভয়াবহ পরিস্থিতি ইউরোপের একাধিক দেশে। এদিকে সমস্ত প্রস্তুতি সত্ত্বেও করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে পারেনি আমেরিকাও। পরিস্থিতি সামাল দিতে ইউরোপের ৩০টি দেশের পর্যটকদের আমেরিকায় প্রবেশের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করলেন মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে সেই তালিকা থেকে বাদ রয়েছে ব্রিটেন। অন্যদিকে একই কারণে দুদিনের ভারত সফর বাতিল করেছেন মার্কিন প্রতিরক্ষা সচিব।

আমেরিকায় করোনায় ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে কয়েকশো। পরিস্থিতি মোকাবিলায় বন্ধ স্কুল, কলেজ-সহ সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। প্রভাব পড়েছে শেয়ার বাজারেও। পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে ট্রাভেল অ্যাডভাইজরি জারি করেছে আমেরিকা। খুব প্রয়োজন ছাড়া অন্য কোনও দেশে যাতায়াত বন্ধ রাখতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে এবার আমেরিকায় করোনার চিকিৎসার জন্য মেডিক্লেম মিলবে বলেও জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

[আরও পড়ুন : লুপ্তপ্রায় প্রজাতি, কেনিয়ায় চোরাশিকারিদের হাতে প্রাণ গেল দু’টি সাদা জিরাফের!]

এ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, “এটা কোনও অর্থনৈতিক জরুরী অবস্থা নয়। আমেরিকা যে কোনও পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে তৈরি রয়েছে। আমেরিকা যতটা প্রস্তুত রয়েছে আর অন্য কোনও দেশ এতটা প্রস্তুত নেই। ফলে নাগরিকদের ভয়ের কিছু নেই।” একইসঙ্গে তিনি দেশের নাগরিকদের শান্ত থাকার আরজি জানিয়েছেন।

[আরও পড়ুন : ‘আমরা কোথায় যাব?’, প্রশ্ন করোনা সন্দেহে মিলানে আটক ৩০০ ভারতীয়র]

চিনের যে ইউহান থেকে যে ভাইরাস প্রথম ছড়িয়েছিল তা আজ গোটা বিশ্বে দাপট দেখাচ্ছে। কিন্তু যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে এই মারণ ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে লড়াই করেছে চিন প্রশাসন। যার ফলে ইউহানে পরিস্থিতি ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে। আক্রান্তের সংখ্যাও আস্তে আস্তে কমছে। তবে ইটালি ও ইরানে মারণ ভাইরাসের সংক্রমণে মৃত্যুমিছিল বেড়েই চলেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, চিনের পর এই দুই দেশই করোনার জেরে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। শীঘ্রই বাকি দেশগুলিও এই ভয়াবহতা দেখতে পারে বলে আশঙ্কা করেছে WHO।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement