BREAKING NEWS

১৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  বুধবার ২ ডিসেম্বর ২০২০ 

Advertisement

দোহা বিমানবন্দরে বিদেশি মহিলাদের বিবস্ত্র করে তল্লাশি, তীব্র নিন্দার মুখে কাতার

Published by: Paramita Paul |    Posted: October 28, 2020 1:43 pm|    Updated: October 28, 2020 4:11 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তীব্র নিন্দার মুখে পড়েছে কাতার (Qatar)। অস্ট্রেলিয়াগামী ১৮ জন মহিলাকে বিমান থেকে নামিয়ে দোহা বিমানবন্দরে (Doha Airport) নগ্ন করে তল্লাশির অভিযোগ উঠেছে।  শেষপর্যন্ত চাপের মুখে ক্ষমা চাইতে বাধ্য হল কাতার প্রশাসন। ২০২২ সালের ফুটবল বিশ্বকাপ আয়োজনের আগে এই ঘটনা নিসন্দেহে কাতারের ভাবমূর্তি নষ্ট করবে। কিন্তু কেন এমন ঘটনা ঘটল?

দোহা বিমানবন্দরের আবর্জনাস্তূপে একটি দুধের শিশু উদ্ধার হয়। প্লাস্টিকে মুড়ে শিশুটিকে ফেলে রেখে যাওয়া হয়েছিল। কাতারে এ ধরনের অপরাধ সাধারণত বিরল। সদ্যোজাতর মাকে খুঁজে বের করার উদ্দেশ্যে বিদেশি মহিলাদের বিমান থেকে জোর করে নামিয়ে নগ্ন করে তল্লাশি করা হয়। এমনকী, মহিলাদের গোপানাঙ্গেও তল্লাশি চালানো হয়। তাঁরা সদ্য মা হয়েছেন কি না তা দেখতেই এই কাজ করা হয়েছে বলে খবর।

[আরও পড়ুন: মার্কিন ভোটারদের তথ্য ইরান-রাশিয়ার হ্যাকারদের হাতে, প্রকাশ্যে চাঞ্চল্যকর তথ্য]

জানা গিয়েছে, বিমানবন্দরের টারম্যাকে একটি অ্যাম্বুল্যান্স রাখা ছিল। সেখানেই নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল মহিলাদের। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, সিডনিগামী ১০টি বিমান থেকে মোট ১৮ জনকে মহিলাকে নামানো হয়। যাঁদের মধ্যে ১৩ জন অস্ট্রেলিয়ার বাসিন্দার। এরপরই কাতারকে কড়া বার্তা দেয় অস্ট্রেলিয়া। যার জেরে শেষপর্যন্ত বুধবার ক্ষমা চাইতে বাধ্য হল কাতার।

এদিন বিবৃতি দিয়ে কাতারের তরফে জানানো হয়েছে, “এই জঘন্য অপরাধের সঙ্গে যুক্ত অপরাধীকে ধরতেই সঙ্গে সঙ্গে তল্লাশির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। এর ফলে কোনও যাত্রীর ব্যক্তিগত স্বাধীনতা বিঘ্নিত হলে কাতার প্রশাসন তার জন্য দুঃখিত। ভবিষ্যতে কাতারে আসা যাত্রীদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার দিকে নজর রাখা হবে।
তবে এই ঘটনায় কাতারের বাণিজ্যিক ও ভাবমূর্তিগত ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে খবর।

[আরও পড়ুন: ‘লাদাখ দ্বিপাক্ষিক ইস্যু, তৃতীয় কারও হস্তক্ষেপ বরদাস্ত নয়’, আমেরিকাকে বার্তা চিনের]

২০২২ সালে এ দেশেই ফুটবল বিশ্বকাপের আসর বসছে। তার আগে এই ঘটনা আন্তর্জাতিক মহলে বিরুপ প্রভাব ফেলবে বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। সদ্যোজাত কন্যাসন্তানটি দোহার হাসপাতালে ভরতি। আপাতত সে সুস্থ আছে বলেই খবর।

উল্লেখ্য, কাতারে বিবাহিত দম্পতি ছাড়া যৌন সংসর্গ করা অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হয়। অবিবাহিত কোনও মহিলা ধর্ষণের জেরে অন্ত্বঃসত্তা হয়ে পড়লেও আইনত অপরাধ। তাঁকে গ্রেপ্তার পর্যন্ত করা হতে পারে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement