১৩ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  সোমবার ৩০ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মার্কিন ভোটারদের তথ্য ইরান-রাশিয়ার হ্যাকারদের হাতে, প্রকাশ্যে চাঞ্চল্যকর তথ্য

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: October 28, 2020 1:24 pm|    Updated: October 28, 2020 1:24 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অভ্যন্তরীণ কারচুপি থেকে বিদেশি হস্তক্ষেপ। বিতর্কে মোড়া আমেরিকার প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচন। এহেন পরিস্থিতিতে প্রকাশ্যে এসেছে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। মার্কিন ন্যাশনাল ইন্টেলিজেন্স-এর ডিরেক্টর জন র‌্যাটক্লিফ জানিয়েছেন, একাংশ মার্কিন ভোটারের তথ্য রয়েছে ইরান (Iran) ও রাশিয়ার (Russia) হাতে। নির্বাচনে ভোটারদের প্রভাবিত করার চেষ্টা চালাচ্ছে একাধিক বিদেশি সংস্থা।

[আরও পড়ন: মেহবুবা মুফতি ও ফারুখ আবদুল্লার ভারতে থাকার অধিকার নেই, তোপ কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর]

মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তার সঙ্গে জড়িত অধিকারিকরা জানিয়েছেন, ডেমোক্র্যাটিক ভোটারদের হুমকি মেল পাঠানোর নেপথ্যে রয়েছে ইরান। নথিভুক্ত ভোটারদের বিভ্রান্ত করতে এই দুই দেশের হ‍্যাকাররা ক্রমাগত ভুয়ো তথ্য ছড়াচ্ছে। যে কোনও মূল্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রের উপর আঘাত হানতে মরিয়া হয়েই এই ধরনের কর্মকাণ্ড চালানো হচ্ছে। ইরান, রাশিয়ার নাক গলানোর কথা মেনে নিয়েছেন এফবিআই ডিরেক্টর ক্রিস্টোফার রে। এদিকে, জন র‌্যাটক্লিফের বক্তব্য, “ইমেলগুলি ট্রাম্প সমর্থক উগ্র-দক্ষিণপন্থী দল গুলি পাঠিয়েছে। এর উদ্দেশ্য আমেরিকায় অশান্তি সৃষ্টি করা। ইরান ও রাশিয়ার হাতে বেশ কিছু ভোটারদের তথ্য রয়েছে।” তিনি আরও জানান, আমেরিকার বাইরে থেকে লোকজন জাল ব্যালট দিয়ে ভোট দিতে পারে-এমন ভুয়ো ভিডিও ছড়ানো হচ্ছে। নথিভুক্ত ডেমোক্র্যাটদের কাছে ইমেলগুলি পাঠানো হচ্ছে প্রাউড বয়েজ-এর নামে। যাতে মনে হয়, ট্রাম্পের পক্ষে থাকা এই চরম ডানপন্থী গোষ্ঠীই এসব ইমেল পাঠিয়েছে। এতে এক ঢিলে দুই পাখি মারা যাবে। ভোটারদের মধ্যে অস্থিরতা তৈরির পাশাপাশি বিপাকে পড়বেন বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও।

এদিকে, এই অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছে ইরান ও রাশিয়া। ইরানের বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র সইদ খাতিবজাদে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, “মার্কিন অধিকারিকদের বারবার মিথ্যা ও ভিত্তিহীন দাবি খারিজ করেছে ইরান। এই বিষয়ে সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূতের কাছে আমরা বার্তা দিয়েছি।” উল্লেখ্য, কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার পর থেকে ইরানে মার্কিন দূতাবাস বন্ধ করে দিয়েছে আমেরিকা। বর্তমানে সুইস রাষ্ট্রদূতের মাধ্যমে তেহরানের সঙ্গে যোগাযোগ করে ওয়াশিংটন। এছাড়া, বিদেশি সাইবার হামলা রুখতে সমস্ত পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল জন ডেমেয়ার্স। ভোটে ইরানি হস্তক্ষেপের প্রমাণ মিললেও রাশিয়া এখনও চুপ। যা আরও দুশ্চিন্তা বাড়িয়েছে প্রশাসনের। উচ্চ পদস্থ এক নিরাপত্তা আধিকারিকের কথায়, চূড়ান্ত ভোটের দিন বা তার পরেই বিভিন্ন প্রদেশের লোকাল কম্পিউটার নেটওয়ার্কে সাইবার হানা চালাতে পারে মস্কো। এফবিআই ও হোমল্যান্ড সিকিউরিটি আধিকারিকরা এই হামলা রুখতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বলেও জানান তিনি।

[আরও পড়ন: ‘লাদাখ দ্বিপাক্ষিক ইস্যু, তৃতীয় কারও হস্তক্ষেপ বরদাস্ত নয়’, আমেরিকাকে বার্তা চিনের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement