২৯ ভাদ্র  ১৪২৬  সোমবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  আগেই মালয়েশিয়ার ৯টি প্রদেশ তাঁকে নিষিদ্ধ করেছিল।এবার গোটা মালয়েশিয়াতেই নিষিদ্ধ বিতর্কিত ইসলামিক ধর্মগুরুর ভাষণ।মালয়েশিয়া সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, ধর্মের নামে মালয়েশিয়ায় ঘৃণা ছড়ানোর অভিযোগে জেহাদি জাকিরের যাবতীয় কার্যকলাপে নজর রাখা হচ্ছে। এবং গোটা দেশেই তাঁর ভাষণ, জনসভা এবং টেলিভিশন শো সম্প্রচার বন্ধ করা হয়েছে। আগে দু’দফায় মালয়েশিয়ার মোট ৯ টি প্রদেশ জাকিরের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল। এবার সেই নির্দেশিকা গোটা দেশেই জারি হয়ে গেল।

[আরও পড়ুন: ‘ভারত বিরোধী কাজে মদত দিচ্ছে পাকিস্তান’, ফোনে ট্রাম্পকে জানালেন মোদি]

সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে যুক্ত থাকা এবং বিচ্ছিন্নতাবাদে মদত দেওয়ার অভিযোগে ভারতে আগেই নিষিদ্ধ হয়েছিলেন বিতর্কিত ইসলামিক ধর্মগুরু। ভারত, শ্রীলঙ্কা-সহ কয়েকটি রাজ্যে তাঁর টেলিভিশন চ্যানেল পিস টিভিও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তাতেও শোধরায়নি জাকির। মালয়েশিয়াতে গিয়েও একই রকম বিদ্ধেষ ছড়ানোর চেষ্টা করছে সে। ইতিমধ্যেই মুসলিমপ্রধান দেশ মালয়েশিয়ায় বসবাসকারী হিন্দু এবং চিনাদের নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে সেদেশের পুলিশ। জাকির বলেছিলেন, মালয়েশিয়ায় বসবাসকারী হিন্দুরা ভারতে বসবাসকারী মুসলিমদের থেকে ১০০ গুণ বেশি সুবিধা পায়। মালয়েশিয়ায় বসবাসকারী চিনাদের নিয়েও একই রকম মন্তব্য করে সে।

[আরও পড়ুন: সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মান পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী মোদি]

এর ফলে সে দেশের শান্তি বিঘ্নিত হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়। মালয়েশিয়ার পুলিশ সোমবার দিনভর জাকিরকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। সেখানে ওই বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য জাকির ক্ষমাও চায়। সে জানায়, তাঁর বক্তব্যের ভুল ব্যাখ্যা হচ্ছে। কিন্তু, তাতেও ডাল গলেনি। মালয়েশিয়া সরকার তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে। আপাতত শুধু বক্তব্য বন্ধ করা হয়েছে। কিন্তু পরবর্তীকালে আরও বড় পদক্ষেপ নেওয়া হতে পারে।

মালয়েশিয়া সরকারের এই পদক্ষেপের ফলে জাকিরকে দেশে ফেরানোর বিষয়ে আশা দেখছে ভারত। কারণ, এর আগে যতবারই জেহাদিকে দেশে ফেরানোর চেষ্টা করছে ভারত, ততবারই তাঁকে রক্ষাকবচের মতো বাঁচিয়ে দিয়েছে মালয়েশিয়া। এবার সে দেশের সরকারও বিরাগভাজন হল এই বিতর্কিত ইসলামিক ধর্মগুরু। ফলে শেষ রক্ষাকবচটিও হারাতে পারে এই জেহাদি।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং