২৩ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১০ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

২৩ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১০ ডিসেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

শুভ্ররূপ বন্দ্যোপাধ্যায়: খোলা চোখে যা গভীরভাবে দেখা যায় না, সেই অদেখাকে চাক্ষুষ করতেই ক্যামেরার লেন্সে চোখ রেখেছিলেন৷ প্রকৃতি থেকে মানুষ – সবকিছু বন্দি হয়েছে তাঁর ক্যামেরায়৷ স্রেফ নেশার টানেই নিজের সবচেয়ে প্রিয় সম্পদটি নিয়ে পাড়ি দিয়েছেন মাইলের পর মাইল৷ সময় কাটিয়েছেন দিনের পর দিন, বছরের পর বছর৷ কিন্তু এই অধ্যাবসায় যে তাঁকে এত বড় একটা স্বীকৃতি এনে দেবে, তা কখনও ভেবেছিলেন বাংলাদেশি চিত্রগ্রাহক আসাদ? মনে হয় না৷ এবার ন্যাশনাল জিওগ্রাফির মতো আন্তর্জাতিক পত্রিকার প্রচ্ছদে উঠে এল হৃদয়ে তোলপাড় ফেলা আসাদের সেই ছবি – রোহিঙ্গা শিশুকে কোলে আঁকড়ে সমুদ্রের তীরে দাঁড়িয়ে মা৷ প্রথম বাঙালি হিসেবে এই কৃতিত্বে দাগ কাটলেন কে এম আসাদ৷

[ আরও পড়ুন:ভারত-বাংলাদেশের বহুমুখী সম্পর্ক আরও শক্তিশালী করতে পরিকল্পনা দু’দেশের]

এ ছবি যতটা সমাদৃত হয়েছে বিশ্বজুড়ে, ছবির প্রেক্ষাপটের গল্পও কিন্তু বেশ আকর্ষণীয়৷ সময়টা ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর৷ বিশ্বজুড়ে রোহিঙ্গা সমস্যা তখন মধ্যগগনে৷ মায়ানমার থেকে ফি দিনই নদী পেরিয়ে বাংলাদেশ সীমান্তে ঢুকছেন লক্ষ লক্ষ শরণার্থী৷ অসহায় মহিলারা সন্তানদের আঁকড়ে ধরে প্রাণের তাগিদে দেশ ছাড়ছেন৷ নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে নৌকায় জোর করে চড়ে বসা, উত্তাল সমুদ্রে দুর্ঘটনা, প্রাণহানি – এগুলো নিত্যদিনের ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছিল৷ বাংলাদেশের বন্দর শহর কক্সবাজারের টেকনাফ উপকূলে শরণার্থীর স্রোত৷ প্রতিবেশী দেশের এমন এক সংকটকাল গভীর থেকে বোঝার জন্য সেই ছবি ক্যামেরাবন্দি করতে চেয়েছিলেন  কে এম আসাদ৷ দাঁড়িয়ে ছিলেন নাফ নদীর পাড়ে, শাহপরী দ্বীপের কাছে৷
শরণার্থী প্রবেশের সময়ে চোখ রেখেছিলেন লেন্সে৷ একটা মুহূর্ত চমকে দেয় তাঁকে৷ ভিতর থেকে আমূল নাড়িয়ে দেয় তাঁর আলোকচিত্রী সত্ত্বা৷ দেখেন, এক মা তাঁর ছোট্ট ছেলেকে বুকে চেপে প্রাণভয়ে বাংলাদেশের প্রবেশের চেষ্টা করছে৷ পৃথিবীর সবচেয়ে নিরাপদ ঠাঁই – মায়ের কোলে থেকেও সেই দুধের শিশুর চোখেমুখে কী ভয়, কী আতঙ্ক! মুহূর্তটি তুলে রাখেন আসাদ৷ এই ছবিই কালক্রমে ছড়িয়ে পড়ে৷ নজরে আসে ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক পত্রিকার সম্পাদকমণ্ডলীর এক সদস্যের৷ তিনিই ছবিটিকে প্রচ্ছদ করার কথা ভাবেন৷ যোগাযোগ করা হয় এম কে আসাদের সঙ্গে৷

[ আরও পড়ুন:ঢাকায় ক্রমশ বাড়ছে ডেঙ্গি আক্রান্তের সংখ্যা, মৃত এক সিভিল সার্জেন]

তবে ছবিটি কভার ফটো হিসেবে প্রকাশ করার ক্ষেত্রে নীতিগত কিছু সমস্যা দেখা দেয়৷ নিয়ম অনুযায়ী, কোনও ব্যক্তির কভার ফটো ছাপার আগে তাঁদের অনুমতি নিতে হয়৷ সেই নিয়ম মেনে যে মা-শিশুর ছবি তোলা হয়েছিল, তাদের অনুমতি নেওয়ার কথা বলা হয়৷ তাতে আসাদ পালটা প্রশ্ন রাখেন, এত এত শরণার্থীর থেকে কি আলাদা করে মা-শিশুকে চিহ্নিত করা সম্ভব? এটি কোনও ব্যক্তিকেন্দ্রিক ছবি নয়, বরং মানবসংকটের একটা জ্বলন্ত দলিল হিসেবে ছবিটিকে দেখা হলেই, যথার্থ বিচার করা হয়৷ এই যুক্তির সঙ্গে ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের সম্পাদকমণ্ডলী সহমত হন এবং আসাদের ছবিটি কভার ফটো হিসেবে ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বে৷ প্রথম বাঙালি হিসেবে কে এম আসাদ আলোকচিত্রের খ্যাতির বৃত্তে এভাবে ঢুকে পড়লেন৷ নেশার সঙ্গে, মানবিকতার সঙ্গে৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং