BREAKING NEWS

৩২ আষাঢ়  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১৬ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

বাংলাদেশে মৃত ইটালি ফেরত যুবক, আক্রান্ত বেড়ে ২৭

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: March 23, 2020 2:57 pm|    Updated: March 23, 2020 4:14 pm

An Images

সুকুমার সরকার, ঢাকা: করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কের মধ্যেই বাংলাদেশে মৃত্যু হল আরও একজনের। কিশোরগঞ্জের ভৈরব এলাকার বাসিন্দা ৩০ বছরের ওই যুবক ইটালি থেকে ফিরেছেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয় করোনা প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব বুলবুল আহমেদ। মৃতের শরীরে লক্ষ্ণণ ছিল। তবে রক্ত পরীক্ষার রিপোর্ট হাতে না আসা পর্যন্ত তিনি করোনা আক্রান্ত ছিলেন তা সরকারিভাবে বলা যাচ্ছে না। রবিবার রাত ১০টা নাগাদ তাঁর মৃত্যু হয়। এর ফলে এখনও পর্যন্ত মোট তিনজনের মৃত্যু হল বাংলাদেশে। আর মোট আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ২৭ জন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ওই যুবক ইটালি থেকে বাংলাদেশে ফেরার পরেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাঁকে প্রথমে আবেদিন জেনারেল হাসপাতালে ও পরে ডক্টরস চেম্বারে চিকিৎসা করানো হয়। রবিবার সেখানেই মৃত্যু হয় তাঁর। এই ঘটনার পরেই ওই দুটি বেসরকারি হাসপাতাল ও আশপাশের ১০টি বাড়িতে চলাচল সীমিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা লুবানা ফারজানা। ওই যুবকের নমুনা সংগ্রহ করেছে হাসিনা সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (IEDCR)।

[আরও পড়ুন: বানচাল নাশকতার ছক, ভারতে অনুপ্রবেশের আগেই ধৃত নব্য JMB’র শীর্ষনেত্রী ]

 

এদিকে ঢাকার মিরপুরের টোলারবাগের এক বাসিন্দাও রবিবার সন্ধেয় মারা গিয়েছেন। রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (IEDCR) তাঁর রক্তেরও নমুনা সংগ্রহ করেছে। মৃতের পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, রবিবার বিকেলে ঢাকার কুর্মিটোলা হাসপাতাল থেকে জানানো হয় তিনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। এর আগে টোলারবাগের যে ব্যক্তি গত শনিবার রাতে মারা গিয়েছেন তাঁর সঙ্গে রবিবারে মারা যাওয়া ব্যক্তির ঘনিষ্ঠতা ছিল। মৃতের পাশের বাড়িতেই থাকতেন তিনি।

তাঁরা আরও জানিয়েছেন, ওই ব্যক্তির দুদিন ধরে কাশি হচ্ছিল। খাওয়ার রুচি চলে গিয়েছিল। রবিবার বিকেল থেকে তাঁর শরীর আবার খারাপ হতে থাকে। একসময়ে শ্বাসকষ্টে তিনি অজ্ঞান হয়ে পড়েন। অ্যাম্বুলান্স ডাকার পর রোগীর উপসর্গ শুনে চালক তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে অস্বীকার করেন। পরে তাঁরা আরেকটি অ্যাম্বুল্যান্স ডেকে কুর্মিটোলায় যান। সেখানে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। এদিকে ওই রোগীর চিকিৎসা যিনি করছিলেন সেই ডাক্তার রবিবার রাতে মারাত্মক শ্বাসকষ্ট নিয়ে কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে ভরতি হয়েছেন। ডেল্টা হাসপাতালের একজন চিকিৎসক নাম না প্রকাশ করার শর্তে জানান, টোলারবাগ থেকে আসা যে রোগী শনিবার হাসপাতালে মারা যান। তাঁকে জরুরি বিভাগে চিকিৎসা করেছিলেন ওই চিকিৎসক। আর শনিবারই প্রথম তিনি শ্বাসকষ্টের কথা জানান। তাঁর রক্তের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: করোনা নিয়ে বচসার জের, ব্যক্তিকে পিটিয়ে খুনের ঘটনায় ধৃত ৫]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement