BREAKING NEWS

২০ শ্রাবণ  ১৪২৭  বুধবার ৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

এনআরসি বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের জন্য হুমকি, ভারতকে কটাক্ষ বিএনপির

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: December 14, 2019 4:18 pm|    Updated: December 14, 2019 4:18 pm

An Images

ছবি প্রতীকী

সুকুমার সরকার, ঢাকা: ভারতের জাতীয় নাগরিকপঞ্জি বা এনআরসি বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের জন্য হুমকি বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ‘ভারতের এনআরসি, যে বিষয়টা আমরা প্রথম থেকেই বলছি, আমরা অত্যন্ত উদ্বিগ্ন। এনআরসি আমাদের স্বার্বভৌমত্বের উপর হুমকি। অতীতেও আমরা উল্লেখ করেছি, আজকে যে অবস্থা তৈরি হয়েছে- এটা শুধু বাংলাদেশে নয়, সমগ্র উপমহাদেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে, সংঘাত সৃষ্টি করবে। রাজনীতির যে মূল বিষয়গুলো ছিল উদারপন্থী গণতান্ত্রিক রাজনীতি, অসাম্প্রদায়িক রাজনীতি সেই বিষয়গুলো ধ্বংস করে দিয়ে একটি সাম্প্রদায়িক রাজনীতিকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য এ ধরনের প্রয়াস চালানো হচ্ছে।’

শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে শনিবার সকালে রাজধানী ঢাকার মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে দলীয় নেতাদের নিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে বিএনপি মহাসচিব এসব কথা বলেন। মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বুদ্ধিজীবী যারা স্বাধীনতার জন্য জীবন উৎসর্গ করছেন তাদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছি। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের কথা, যিনি স্বাধীনতা যুদ্ধে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে নির্যাতিত হয়েছেন, নিগৃহীত হয়েছেন, বন্দি হয়েছেন, তাকে (খালেদা জিয়া) আজকে কারাগারে থাকতে হচ্ছে।’

[আরও পড়ুন: CAB নিয়ে ক্ষুব্ধ বাংলাদেশ! মন্ত্রীদের সফর বাতিলের পর এবার তলব ভারতীয় রাষ্ট্রদূতকে]

এদিকে, শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস এবং বিজয় দিবসকে সামনে রেখে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং বিদেশমন্ত্রী রাষ্ট্রীয় ব্যস্ততার কারণে ভারত সফরে যাননি বলে জানিয়েছেন শাসকদল আওয়ামি লিগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়েদুল কাদের। সড়ক ও সেতুমন্ত্রী কাদের বলেন, ‘বিদেশ ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ভারত সফরের বাতিল বয়কটের কোনও বিষয় নয়। এটা আমি যতটুকু জানি, বিজয় দিবস ও শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস একদম আমাদের দুয়ারে সমাগত। রাষ্ট্রীয় ব্যস্ততার কারণে তারা ভারত সফরে নাও যেতে পারেন। তবে পরবর্তীতে যাবেন।’ তিনি বলেন, ‘তাই বলে সফর চিরতরে বাতিল হয়নি। ভারতের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক আছে, গঠনমূলক বন্ধুত্ব রয়েছে। এটা যাতে ক্ষুণ্ন না হয় সে ব্যাপারে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে আমাদের কোনও বিষয়ে সমস্যা হলে দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে সমাধান সম্ভব।

এনআরসি নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘ভারত একটি স্বাধীন-সার্বভৌম দেশ। তাদের পার্লামেন্টে যদি কোনও আইন পাশ হয় সেটি তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়। আমাদের সেখানে মন্তব্য করা সমীচিন নয়। তবে যে বিষয়গুলো আমাদের এফেক্ট করে বা প্রতিক্রিয়াটা আমাদের কাছে আসে বা আমরা এফেক্টেড হই, অব্যশই আমাদের বিদেশ মন্ত্রক আছে, সেখান থেকে ইতিমধ্যে বক্তব্য রাখা হয়েছে। বিদেশ থেকে যে বক্তব্য রাখা হয়েছে এর বাইরে আমার কোনও ভিন্ন বক্তব্য নেই।’

[আরও পড়ুন: বিদেশমন্ত্রীর পর এবার ভারত সফর বাতিল বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement