৭ শ্রাবণ  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুকুমার সরকার, ঢাকা: ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপ যাওয়ার সময় নৌকা ডুবে ৩৭ জন বাংলাদেশির মৃত্যুর পর এবার তিউনিশিয়া উপকূল থেকে উদ্ধার ৬৪ বাংলাদেশিকে পর্যায়ক্রমে দেশে ফেরত আনা চলছে। বুধবার তৃতীয় ধাপে ২৪ জনকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। এর আগে উদ্ধার হওয়া ৬৪ বাংলাদেশির মধ্যে প্রথম ধাপে গত ২১ জুন দেশে ফিরেছেন ১৭ জন ও ২৫ জুন দ্বিতীয় ধাপে ফিরেছেন ১৫ জন। সব মিলিয়ে দেশে ফিরছেন ৫৬ বাংলাদেশি। বাকি ৮ জন দেশে ফেরত আসতে অস্বীকার করেছেন। তাদেরও ফেরত পাঠানোর জন্য তিউনিশিয়া কর্তৃপক্ষ ও আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) সঙ্গে যোগাযোগ করছেন লিবিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাস।

[ আরও পড়ুন: বাংলাদেশে আওয়ামি লিগ নেত্রীকে কুপিয়ে খুন, ছড়াল চাঞ্চল্য ]

এদিকে লিবিয়া থেকে ইতালি যাওয়ার পথে তিউনিশিয়ার উপকূলে ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে ৩৭ বাংলাদেশির মৃত্যুর ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা জানাতে বলেছে হাই কোর্ট। গত ১৬ জুন ওই ঘটনায় যারা নিহত হয়েছেন তাঁদের প্রত্যেকের পরিবারের জন্য এক কোটি টাকা করে ক্ষতিপূরণ এবং ওই ঘটনা তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা চেয়ে আবেদন করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী এমদাদুল হক সুমন। লিবিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষ থেকে আটকে পড়া সব বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠানো হবে বলে নিশ্চয়তা দেওয়ার পর তিউনিশিয়া কর্তৃপক্ষ উদ্ধারদের গত ১৮ জুন জারজিস বন্দরে নামার অনুমতি দেয়। কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থায় সবাইকে তিউনিশিয়াতে রেড ক্রিসেন্ট ও আইওএম যৌথ পরিচালিত শেল্টার হোমে রাখার ব্যবস্থা করা হয়। আইওএম’র সহায়তায় তাদের দেশে ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়।

[ আরও পড়ুন: বিএনপির সদর দপ্তরে ফের হামলা বিক্ষুব্ধ ছাত্রনেতাদের, জখম ১ ]

ভূমধ্যসাগর থেকে উদ্ধার হওয়া ৬৪ জন বাংলাদেশির মধ্যে মাদারিপুরের ২৬ জন, ব্রাহ্মণবেড়িয়ার ১৫ জন, সিলেটের আটজন, শরিয়তপুরের তিনজন, মৌলভিবাজারের তিনজন, নোয়াখালির দুইজন, চাঁদপুরের একজন, সুনামগঞ্জের একজন, গাজীপুরের একজন, ঢাকার একজন, নরসিংদীর একজন, ফরিদপুরের একজন ও টাঙ্গাইলের একজন রয়েছেন। এছাড়া গত এক মাসে চার ধাপে বিভিন্ন সময়ে তিউনিশিয়া থেকে দেশে ফিরেছেন ৩৩ বাংলাদেশি। এর মধ্যে ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবির ঘটনায় প্রাণে বেঁচে যাওয়া কর্মীরাও রয়েছেন। আর গত ১১ জুন তিউনিশিয়া থেকে ফেরত আসা ছয় কর্মী ছিলেন যারা তিউনিশিয়া থেকে ব্রাজিল হয়ে আমেরিকা যাচ্ছিলেন। এরা সবাই কুমিল্লা জেলার।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং