BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

করোনায় আক্রান্ত হয়ে দুর্গাপুরে মৃত সত্তরোর্ধ্ব বৃদ্ধ, শেষকৃত্যের দায়িত্বে পুলিশ

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: April 10, 2020 2:51 pm|    Updated: April 10, 2020 2:51 pm

An Images

অঙ্কন: সুযোগ বন্দ্যোপাধ্যায়

সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, দুর্গাপুর: দুর্গাপুরের সনকা হাসপাতালে মৃত করোনা সন্দেহে ভরতি এক ব্যক্তির। সত্তোরোর্ধ্ব এই বৃদ্ধের মৃত্যুর কারণ নিয়ে প্রথমে মুখে কুলুপ আঁটে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। জ্বর নিয়ে এই ব্যক্তি  মিশন হাসপাতালে ভরতি হলেও বৃদ্ধের শারীরিক অসুস্থতার কারণ জানা যায়নি। পরে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির মত্যুর প্রকৃত কারণ উল্লেখ করে সনকা হাসপাতাল। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রিপোর্টে বৃদ্ধের মৃত্যুর কারণ হিসেবে করোনায় সংক্রমণের কথাই জানায়।

দুর্গাপুরের মিশন হাসপাতালে চারদিন আগে শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে ভরতি হন সত্তরোর্ধ্ব ইকবাল আহমেদ খান। আসানসোলের বাসিন্দা এই বৃদ্ধ। তাঁর হার্টের সমস্যা রয়েছে এটা ধরে নিয়েই চিকিৎসা শুরু করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তবে তাদের চিকিৎসায় বৃদ্ধ সাড়া না দেওয়ায় পরে তারা বৃদ্ধকে মিশন হাসপাতাল থেকে দুর্গাপুরের করোনা আক্রান্তদের হাসপাতালে স্থানান্তরিত করার সিদ্ধান্ত নেয়। বৃদ্ধকে শ্রীরামকৃষ্ণ ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্স অ্যান্ড সনকা হাসপাতালে বৃদ্ধকে নিয়ে গেলে বৃহস্পতিবার রাতেই মারা যান তিনি। তবে বৃদ্ধ ঠিক কী কারণে মারা যান তা নিয়ে প্রশ্ন করা হলে প্রথমে কোনও সদুত্তর মেলেনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে। মৃত্যুর আগে সনকা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বৃদ্ধের করোনা পরীক্ষা করিয়েছে কিনা তা জানতে চাওয়া হলে সেই বিষয়েও মুখে কুলুপ আঁটে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বৃদ্ধের মৃত্যুর কারণ হিসেবে রিপোর্টে করোনায় সংক্রমণের কথা উল্লেখ করে।

[আরও পড়ুন: খরচ কমাতে বিমানে যাত্রীদের খাদ্য সরবরাহ বন্ধ করছে ইন্ডিগো]

করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হলে শেষকৃত্য করতে গিয়ে আগেও সমস্যায় পড়ছেন মৃতের পরিবার। অন্ধবিশ্বাস ও করোনা সংক্রমণের আতঙ্ক মানুষকে সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে অনেক দূরে ঢেলে দিয়েছে।  তাই পুনরায় যাতে সেই সমস্যা রুখতে স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফ থেকে শেষকৃত্যের দায়িত্ব পুলিশের উপর তুলে দেয়। মৃতের পরিবারের সম্মতি নিয়ে সেই শেষকৃত্য সম্পন্ন করবে স্থানীয় প্রশাসন।

[আরও পড়ুন: উত্তরপ্রদেশে করোনার পরীক্ষা ও চিকিৎসা নিয়ে পরামর্শ, যোগীকে চিঠি প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement