৭ মাঘ  ১৪২৮  শুক্রবার ২১ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

১০০ দিনের কাজে সেরার শিরোপা বাবুরমহল গ্রাম পঞ্চায়েতের, শুভেচ্ছাবার্তা মুখ্যমন্ত্রীর

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: December 14, 2019 7:29 pm|    Updated: December 14, 2019 7:30 pm

Baburmahal GP, Kulpi celebrates as it awarded 'the best Gram Panchayet' on 100 dyas work

সুরজিৎ দেব, ডায়মন্ড হারবার: গ্রামাঞ্চলে মানুষজনের আয়ের অন্যতম রাস্তা – কেন্দ্রের একশ দিনের প্রকল্প। আর সেই প্রকল্প রাজ্য সরকারও বিভিন্ন স্তরে যথাযথ সমন্বয়ের মাধ্যমে প্রকল্প সুপরিকল্পিতভাবে কার্যকরী করে তুলেছে। তার স্বীকৃতি হিসেবে কেন্দ্রের তরফে মিলেছে স্বীকৃতি। একশ দিনের কাজে দেশের মধ্যে সেরা গ্রাম পঞ্চায়েতের তরমা তকমা পেল দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলপি ব্লকের বাবুরমহল। শনিবার এই খবর সেখানে পৌঁছনোর সঙ্গে সঙ্গে পঞ্চায়েতের প্রধান-সহ সদস্য, কর্মীরা মেতে ওঠেন আনন্দে। তাতে শামিল হন বিডিও নিজেও। মুখ্যমন্ত্রী তাঁদের এই সাফল্যের জন্য শুভেচ্ছাবার্তা পাঠিয়েছেন।

baburmahal-GP-work

২০১৮-১৯ আর্থিক বছরে MGNREGS বা একশ দিনের কাজ প্রকল্পের রূপায়ণে সারা দেশের মোট দু’লক্ষ বাষট্টি হাজার ছশো একত্রিশটি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলপি ব্লকের বাবুরমহল গ্রাম পঞ্চায়েত কেন্দ্রীয় সরকারের বিচারে শ্রেষ্ঠ গ্রাম পঞ্চায়েতের শিরোপা পেয়েছে। প্রকল্পের মাধ্যমে জীবিকার উন্নয়নে রাজ্যের সব ক’টি গ্রাম পঞ্চায়েতকে টেক্কা দিয়ে প্রথম স্থান অধিকার করেছে।

[ আরও পড়ুন: নদী থেকে দেদার বালি পাচার, হাতেনাতে ১৫০টি লরি পাকড়াও জেলাশাসকের ]

বাবুরমহল গ্রাম পঞ্চায়েতের মোট ২১৮৪ টি পরিবার গড়ে একশ দিনই কাজ পেয়েছে, যা বিরল রেকর্ড। গ্রাম পঞ্চায়েতটি মোট ২১৮৪০০ শ্রম দিবস তৈরি করেছে। যার মধ্যে শতকরা ৪৬ ভাগ উপভোক্তাই মহিলা। আরও উল্লেখযোগ্য বিষয়, ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষে কুলপি ব্লকের মোট চোদ্দটি গ্রাম পঞ্চায়েত এই প্রকল্পে গড়ে ৯৯ দিন কাজ দিতে পেরেছে। যা আগে কোথাও কখনও হয়নি বলে দাবি কুলপি ব্লক উন্নয়ন আধিকারিক সঞ্জীব সেনের। স্বভাবতই ভারত সরকারের দেওয়া দেশের মধ্যে এই সেরার শিরোপা পেয়ে দারুণ খুশি তিনি।

baburmahal-GP-work1

বাবুরমহল গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান সুমিত্রা মণ্ডল জানান, সেচের জন্য খাল কাটা, পুকুর খনন, বনসৃজন, গ্রামীণ রাস্তা তৈরি, উদ্যান পালন – এই ধরণের কাজগুলিকেই প্রকল্পের কাজ হিসেবে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ”শ্রমদিবস সৃষ্টির মাধ্যমে গ্রামীণ পরিকাঠামোর উন্নয়ন ও জীবিকার ভিত মজবুত করার লক্ষ্যে এই প্রকল্পে আরও কাজ দিয়ে গ্রামের মানুষের উন্নয়ন তরান্বিত করতে চাই।” কেন্দ্রীয় সরকারের  ‘সেরার শিরোপা’ পেয়ে এদিন নিজের খুশি চেপে রাখতে পারেননি পঞ্চায়েতের প্রধান। দপ্তরের সদস্য এবং সমস্ত কর্মীদের সঙ্গে আনন্দের জোয়ারে গা ভাসিয়েছেন তিনি।

[ আরও পড়ুন: CAA’র প্রতিবাদে বিক্ষোভ: জ্বলছে লালগোলা, কৃষ্ণপুর স্টেশনেও ট্রেনে আগুন]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে