BREAKING NEWS

৬ মাঘ  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ২০ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

দৃষ্টিহীন পরীক্ষার্থীকে পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করলেন বিডিও

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: February 27, 2019 4:32 pm|    Updated: February 27, 2019 4:32 pm

BDO arranged a car for a student

চন্দ্রশেখর চট্টোপাধ্যায়, আসানসোল: বিডিও-এর সহায়তায় পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছলেন দৃষ্টিহীন এক উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থী। জানা গিয়েছে, বাড়ি থেকে প্রায় ৭ কিলোমিটার দূরের একটি স্কুলে পরীক্ষাকেন্দ্র পড়েছে জামুরিয়ার সুনীল বাউড়ির। তবে অন্ধ ওই পরীক্ষার্থীর পক্ষে এতদূরের স্কুলে যাওয়া কার্যত অসম্ভব। বাধ্য হয়ে সাহায্য চেয়ে বিডিও-এর দ্বারস্থ হন তার পরিবার। বিডিও জানিয়েছেন, পরীক্ষা চলাকালীন একটি গাড়ি সুনীলের জন্য বরাদ্দ থাকবে এবং সে তাতেই যাতায়াত করতে পারবে।

[কওসরকে ছিনতাইয়ের ছক বানচাল, এসটিএফের জালে ২ জামাত জঙ্গি]

আসানসোলের জামুরিয়ার বাহাদুরপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ধসল গ্রামের বাসিন্দা সুনীল বাউরি। স্থানীয় বাহাদুরপুর হাইস্কুলের ওই পড়ুয়া এবছরের উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থী। বরাবরই মেধাবি ছাত্র ওই কিশোর। তবে তার পড়াশোনার মাঝে রয়েছে প্রচুর প্রতিবন্ধকতা। জন্ম থেকেই অন্ধ সে। ছোট থেকেই আর্থিক অস্বচ্ছলতার মধ্যে দিয়েই বেড়ে ওঠা তার। একটু বড় হতেই বন্ধু বান্ধবের সাইকেলে স্কুলে যেত সুনীল। পড়াশোনার ক্ষেত্রেও তাদের থেকে সাহায্য মিলত। তবে এবার উচ্চমাধ্যমিকে তার পরীক্ষাকেন্দ্র পড়েছে নণ্ডীগ্রামে। যা বাড়ি থেকে প্রায় ৭ কিলোমিটার দূরে। সাইকেলে করে কারও পক্ষে তাঁকে নিয়ে যাওয়া কার্যত অসম্ভব। আর্থিক স্বচ্ছলতা না থাকায় অন্যকোনও উপায়ে সুনীলকে পরীক্ষাকেন্দ্রে পাঠানো পরিবারের পক্ষে সম্ভব নয়। ফলে বাধ্য হয়ে সুনীলকে নিয়ে জামুড়িয়ার বিডিও অনুপম চক্রবর্তীর দ্বারস্থ হন তার দাদা। জানা গিয়েছে, এরপরই পরীক্ষার্থীর পাশে দাঁড়ান তিনি। জানা গিয়েছে সুনীলের জন্য একটি গাড়ির ব্যবস্থা করে দিয়েছেন বিডিও। যেকদিন পরীক্ষা চলবে প্রতিদিনই গাড়ির পরিষেবা পাবেন সুনীল। এই সহায়তা পেয়ে খুশি ওই পরীক্ষার্থী ও তার পরিবার।

[যুদ্ধের আবহে পানাগড়ে প্রস্তুত ‘সুপার হারকিউলিস’, মহড়ায় কমান্ডোরা]

স্থানীয় সূত্রের খবর, এই প্রথম নয়। এর আগেও একাধিকবার আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া এলাকার বহু পড়ুয়ার পাশে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। গত বছর পোলিও আক্রান্ত এক মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর জন্য গাড়ির ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন বিডিও অনুপম চক্রবর্তী। উচ্চমাধ্যমিক এবং কলেজ স্তরে ভর্তিতে বহু  ছাত্রছাত্রীর বইপত্র কিনে দেওয়ার বন্দোবস্তও করেছিলেন তিনি। এছাড়াও একাধিক পডুয়াকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ভাবে সাহায্য করেছিলেন তিনি। পিছিয়ে পড়া মেধাবি পডুয়াদের পাশে দাঁড়াতে পেরে খুশি ওই অনুপম চক্রবর্তী। বিডিও-এর এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন স্থানীয়রা। 

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে