৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

পলাশ পাত্র, তেহট্ট:  ফুটবল প্রতিযোগিতায় জিতে বেপাড়ায় আনন্দ করতে গিয়ে ঘটল বিপত্তি। স্থানীয় বাসিন্দাদের বেধড়ক মারে গুরুতর আহত ১০ জন। আহতদের মধ্যে দু’জনের শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে। ঘটনাটি নদিয়ার পলাশিপাড়া থানার শ্রীনাথপুরে। ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

[ আরও পড়ুন: গাড়ির সিটে সোনা পাচারের ছক বানচাল, ৪ কোটি টাকার সোনার বিস্কুট-সহ গ্রেপ্তার ৩]

ঘটনার সূত্রপাত রবিবার। সেদিন স্থানীয় একটি ফুটবল প্রতিযোগিতার ফাইনাল ম্যাচ খেলতে নেমেছিল পলাশীপাড়ায় শ্রীনাথপুরেরই একটি ক্লাব। শেষপর্যন্ত প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়নও হয় তারাই। রাতে যখন ট্রফি নিয়ে বাঁশি-পটকা ফাটিয়ে আনন্দ করতে করতে ফিরছিলেন বিজয়ী দলের ফুটবলাররা, তখনই গন্ডগোল শুরু হয়। অভিযোগ, শ্রীনাথপুরের মণ্ডলপাড়া দিয়ে যাওয়ার সময় ক্লাবের জনা দশেক খেলোয়াড়ের উপর রীতিমতো চ্যালাকাঠ নিয়ে চড়াও হন স্থানীয় বাসিন্দারা। একসময়ে ইঁট, লাঠি হাতের কাছে যা পাওয়া গিয়েছে, তা দিয়েই চলে বেধড়ক মার। এমনকী, চ্যাম্পিয়ন দলের খেলোয়াড়দের হাত থেকে ট্রফিটিও কেড়ে নেওয়া হয় বলে অভিযোগ। আহত দশজনকে ভরতি করা হয়েছে হাসপাতালে। দু’জনের শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাদজনক। এদিকে যে ক্লাবের খেলোয়াড়দের মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ, সেই ক্লাবের সম্পাদক থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

কিন্তু, ক্লাবের ফুটবল টিমের সদস্যদের কেন মারধর করলেন স্থানীয় বাসিন্দারা? ক্লাবের সম্পাদক রিন্টু শেখের দাবি, যে এলাকায় হামলার ঘটনাটি ঘটেছে, সেই এলাকার কোনও খেলোয়াড় দলে সুযোগ পাননি। তারউপর আবার টিম চ্যাম্পিয়নও হয়েছে। সেই আক্রোশেই খেলোয়াড়দের মারধর করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: রাজ্যে ফের পচা মাংসের জাল! হুগলিতে বিপুল পরিমাণ সামগ্রী উদ্ধারে বাড়ল সংশয়]

 

 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং