BREAKING NEWS

২১ আষাঢ়  ১৪২৭  সোমবার ৬ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

কাকার বিশ্বাসের সুযোগে টাকা চুরি, পলাশিপাড়ার বিধায়কের বাড়ির ঘটনায় গ্রেপ্তার ভাইপো

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: June 29, 2020 9:26 pm|    Updated: June 29, 2020 9:26 pm

An Images

রমণী বিশ্বাস, তেহট্ট: সর্ষের মধ্যেই ভূত! বিধায়কের বাড়িতে চুরির ঘটনার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে কিনারা করে ভাইপোকে গ্রেপ্তার করল পুলিশ। উদ্ধার হয়েছে চুরি যাওয়া ৯ লক্ষ টাকা। সোমবার সকালে অভিযুক্ত সায়ক সাহাকে তেহট্ট আদালতে পেশ করে পুলিশ। বিচারক তাকে ৭ দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন।

শুক্রবার রাতে পলাশীপাড়ার বিধায়ক তাপস সাহার বিধানসভা কার্যালয়ের আলমারি খুলে বেশ কিছু টাকা ও কাগজপত্র হাতিয়ে নেয় চোর। তেহট্টের কড়ুইগাছিতে বিধায়কের বাড়ি। সেই বাড়ি সংলগ্ন তাঁর পার্টি অফিস। চুরির অভিযোগ পেয়ে তদন্তে নেমে পুলিশ চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছিল। শেষমেষ ৯ লক্ষ টাকা-সহ গ্রেপ্তার করা হলো বিধায়ক তাপস সাহার ভাইপো সায়ককে।

[আরও পড়ুন: নেশার টাকায় টান, অপহরণের নাটক করে মুক্তিপণ আদায়ের চেষ্টায় গ্রেপ্তার শিক্ষক]

পুলিশ সূত্রে গিয়েছে, শনিবার দু’জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। ওইদিন রাতে বিধায়কের ভাইপো-সহ আরো একজনকে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে পুলিশ। অবশ্য পরে ভাইপো সায়ক সাহাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। কিন্তু বিধায়কের বাড়ির সিসিটিভি ফুটেজ দেখে তদন্ত আরও জোরদার করে পুলিশ। তেহট্ট থানার পুলিশ সূত্রে জানানো হয়, প্রথম থেকেই সন্দেহ ছিল, বাড়ির ভিতরের কেউ এই কাজ করতে পারে। কারণ, বিধানসভা কার্যালয়ের চাবি কোথায় আছে, তা শুধুমাত্র বাড়ির লোক জানেন। সেই কারণে সিসিটিভি ফুটেজ বারবার খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

চুরি হওয়ার সময় যে দুষ্কৃতীর ছবি সিসিটিভিতে ধরা পড়ে, তার চালচলন দেখে তাপস সাহার ভাইপো সায়ককে সন্দেহ করে পুলিশ। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করার সময় জানা যায়, বেশ কিছুদিন আগে ফুটবল খেলতে গিয়ে তার পায়ে চোট লাগে। যার জন্য চলাফেরার পরিবর্তন ঘটে, সেই চালচলনের ভঙ্গি ধরা পড়েছে সিসিটিভির ফুটেজ। এরপর রবিবার গভীর রাতে আবারও বিধায়কের ভাইপোকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। পুলিশি জেরার মুখে পড়ে রাতেই সমস্ত অভিযোগ স্বীকার করে বিধায়কের ভাইপো বলে জানানো হয় পুলিশ সূত্রে।

[আরও পড়ুন: হেঁটে নদী পেরনোর সময়ে দুর্ঘটনা, শিলাবতীর চোরা স্রোতে তলিয়ে মৃত্যু ২ বৃদ্ধার]

সায়ক বিধায়কের বাড়ি থেকে টাকা চুরি করে সেই টাকা মাটির নিচে লুকিয়ে রাখে। রবিবার গভীর রাতে পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে টাকা লুকিয়ে রাখার জায়গা দেখায় সেই ভাইপো। কড়ুইগাছিতে বিধায়কের বাড়ির থেকে কিছুটা দূরে একটি পরিত্যক্ত হাসপাতালে সংলগ্ন পাটের জমি থেকে পুলিশ টাকা উদ্ধার করে। বিধায়কের পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, বিধায়ক তাপস সাহা ভাইপোকে খুব ভালোবাসতেন। কিছুদিন আগে দলীয় কার্যালয়ের আলমারি থেকে অভিযুক্ত ভাইপোকে তিন লক্ষ টাকা দিয়েছিলেন বিধায়ক। পুলিশের অনুমান সেদিন টাকা বের করার সময় আলমারিতে বেশ কিছু টাকা দেখে লোভ সামলাতে নাা পেরে এমন চুরির সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সে।

ছবি: সঞ্জিত ঘোষ।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement