২২ চৈত্র  ১৪২৬  রবিবার ৫ এপ্রিল ২০২০ 

Advertisement

চালকের গাফিলতিতে মৃত্যু ছেলের, পুলিশের দ্বারস্থ পোলবা কাণ্ডে নিহত ঋষভের বাবা

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: February 29, 2020 5:19 pm|    Updated: February 29, 2020 5:25 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে দুর্ঘটনার ১৫ দিনের মাথায় পুলিশের দ্বারস্থ হলেন পোলবা কাণ্ডে মৃত ঋষভের বাবা তথা তৃণমূল কাউন্সিলর সন্তোষ সিং। কর্তব্যে গাফিলতির অভিযোগ তুলে পুলকার চালক শামিমের বিরুদ্ধে FIR করেন তিনি। অভিযুক্তের কঠোরতম শাস্তির দাবি জানিয়েছেন মৃত খুদের বাবা-সহ গোটা পরিবার ও পরিজনরা।

১৪ ফেব্রুয়ারি হুলির পোলবায় মর্মান্তিক দুর্ঘটনার কবলে পড়েছিল একটি পুলকার। গুরুতর জখম হয়েছিল ৩ শিশু। জখমদের মধ্যে দু’জনের অবস্থার ক্রমশ অবনতি হতে থাকায় কলকাতার হাসপাতালে পাঠানো হয় তাদের। SSKM-এ শুরু হয় চিকিৎসা। কিন্তু চিকিৎসরা আপ্রাণ চেষ্টা করলেও চলতি মাসের ২২ তারিখ জীবনযুদ্ধে হার মানে খুদে ঋষভ। ভোররাতে তার মৃত্যুর পর বেলায় দেহ নিয়ে যাওয়া হয় শ্রীরামপুরের বাড়িতে। কোলের সন্তানের দেহ দেখেই জ্ঞান হারিয়েছিলেন ঋষভের বাবা-মা। ঋষভের বাবা সন্তোষ সিং কাউন্সিলর হওয়ায় খুদের শেষযাত্রায় রাজনৈতিক নেতৃত্বেরও ভিড় ছিল যথেষ্ট। তবে ব্যস্ততার মাঝে সেদিন ঋষভের পরিজনদের সঙ্গে দেখা করা সম্ভব হয়নি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

[আরও পড়ুন:যুবককে আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগ, কাঠগড়ায় পূর্ব বর্ধমানের জেলা সভাধিপতি ]

সেই কারণে গত সোমবার ছোট্ট ঋষভের বাবার সঙ্গে কথা বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সন্তোষ কুমার সিংকে ফোন করে সকলের খোঁজখবর নেন তিনি। বলেন, “বাবা আমি তো দেখা করতে পারিনি। তুই বাবা কিছু মনে করিস না।” সন্তোষকুমার সিং জানান, “দিদি আমার এবং আমার পরিবারের খোঁজ নিয়েছেন। আমার বড় ছেলেরও খোঁজ নেন।” সেই সময়ই তিনি জানান যে, ছেলেমেয়েদের স্কুলে নিয়ে যাওয়ার সময় শ্রীরামপুরে মাঝরাস্তায় যে গাড়ি পরিবর্তন করা হত তা জানিয়ে অভিযোগ দায়েরর পরামর্শ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। এরপরই এই বিষয়ে সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে কথা বলেন সন্তোষবাবু।

[আরও পড়ুন: মায়ের সঙ্গে সাদ্দামের ঘনিষ্ঠতা মানতে পারেননি রিয়া, হলদিয়া কাণ্ডে নয়া তথ্য পেল পুলি]

Advertisement

Advertisement

Advertisement