২৩  শ্রাবণ  ১৪২৯  বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি দিয়ে নৈহাটি পুরসভায় তাণ্ডব মুখঢাকা দুষ্কৃতীদের

Published by: Sayani Sen |    Posted: May 29, 2019 8:27 pm|    Updated: May 29, 2019 8:27 pm

Some goons allegedly ransacked Naihati municipality building

আকাশনীল ভট্টাচার্য, বারাকপুর: ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি দিতে দিতে কাপড়ে মুখ ঢাকা অবস্থায় দুষ্কৃতীদের তাণ্ডবে ধুন্ধুমার নৈহাটি পুরসভায়৷ চেয়ারম্যানের ঘরে তালা লাগিয়ে দিল তারা৷ ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া হয় নেমপ্লেট৷ গন্ডগোলের পর পুরসভার সিসি ক্যামেরা এবং ওই ক্যামেরার হার্ড ডিস্ক খুলে নেওয়া হয়৷ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বিশাল পুলিশবাহিনী৷ মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ পিকেট৷ এই ঘটনার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার পুরসভার মূল দরজার সামনে অবস্থান বিক্ষোভের সিদ্ধান্ত তৃণমূলের৷ থাকবেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

[ আরও পড়ুন: সৌজন্যের নজির, তৃণমূলের দখল হওয়া পার্টি অফিস ফিরিয়ে দিল বিজেপি]

২৩ মে লোকসভা নির্বাচনের ফলপ্রকাশ হয়৷ তারপর থেকে দফায় দফায় উত্তপ্ত বারাকপুরের বিভিন্ন এলাকা৷ এবার সেই তালিকায় নাম জুড়ল নৈহাটির৷ অভিযোগ, বুধবার দুপুরের দিকে ৩০-৩৫ জন ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি দিতে দিতে পুরসভার ভিতর ঢুকে পড়ে। মারধর করে পুরসভা থেকে বার করে দেওয়া হয় চেয়ারম্যান অশোক চট্টোপাধ্যায়কে। দুষ্কৃতীরা চেয়ারম্যানের ঘরে তালা দিয়ে দেয়। ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া হয় নেমপ্লেট৷ সিসি ক্যামেরা ও তার হার্ড ডিস্কও খুলে নিয়ে যায় ওই দুষ্কৃতীরা৷ পুরপ্রধান অশোক চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘গায়ের জোরে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা আমার ঘরে তালা ঝুলিয়েছে। বর্তমান বোর্ডের বিরুদ্ধে সঠিক পদ্ধতিতে অনাস্থা এনে আস্থা ভোটের মাধ্যমে ওরা পুরবোর্ড গঠন করুক।’’ অশোকবাবুর আরও অভিযোগ, নির্বাচনের ফল ঘোষণার পরের দিন থেকে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা নৈহাটিজুড়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে। ওদের ভয়ে আমাদের অনেক কাউন্সিলরই ঘর থেকে বেরোতে পারছেন না। তাণ্ডবের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার নৈহাটি পুরসভার সামনে বিক্ষোভ দেখাবে তৃণমূল৷ তাতে হাজির থাকবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

[ আরও পড়ুন: তৃণমূলকে ধাক্কা দিতে এবার দার্জিলিং পুরসভায় অনাস্থা প্রস্তাব পেশ গুরুংপন্থীদের]

যদিও বিজেপি এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে৷ কাউন্সিলর গণেশ দাস বলেন, ‘‘কপালে টিকা লাগিয়ে ওরা বিজেপির নামে বদনাম করার চেষ্টা করলে বরদাস্ত করা যাবে না। যারা পুরসভায় হানা দিয়েছিল ওরা দুষ্কৃতী। এক্সিকিউটিভ অফিসারকে থানায় অভিযোগ দায়ের করতে বলেছি। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে প্রশাসনকে বলা হয়েছে।’’ গণেশবাবুর আরও দাবি, দুজন কাউন্সিলর ছাড়া সকলেই বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। ফলে এখানে তৃণমূলের বোর্ড হাতছাড়া হচ্ছেই। তাই আগামী দিনে নিয়ম মেনেই পুরবোর্ড দখল করা হবে৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে