২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

লাভ জিহাদের ফাঁদ পেতেই মহিলা সদস্য সংগ্রহ করে জঙ্গিরা? ৫ তরুণীর ‘অন্তর্ধানে’ ঘনীভূত রহস্য

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: September 22, 2020 9:44 am|    Updated: September 22, 2020 9:46 am

An Images

অর্ণব আইচ: মহিলা সদস্য সংখ্যা বাড়াতে ‘লাভ জিহাদ’-এর ফাঁদ পাতে জঙ্গিরা। অনলাইনে পাতা এই ফাঁদে ইতিমধ্যেই পা দিয়েছেন বেশ কয়েকজন তরুণী। এমনই খবর রয়েছে গোয়েন্দাদের কাছে। আল কায়দা সদস্যরাও এই একই পদ্ধতিতে নিয়োগ শুরু করেছিল কি না, তা জানার চেষ্টা করছেন গোয়েন্দারা।

হুগলির ধনেখালির বাসিন্দা এক তরুণী বাংলাদেশে গ্রেপ্তার হয়েছে, যে জঙ্গিদের ‘লাভ জিহাদের’ শিকার। সম্প্রতি দক্ষিণবঙ্গের তিন জেলার আরও পাঁচ তরুণীর ‘অন্তর্ধান’ ঘিরে রহস্য সৃষ্টি হয়েছে। গোয়েন্দাদের কাছে আসা খবর অনুযায়ী, ‘লাভ জিহাদের’ ফাঁদে পড়ে বাড়ি ছেড়েছে তারা। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দাদের কাছে খবর, তাদের মধ্যে একজন পুরুলিয়া, দু’জন মুর্শিদাবাদ ও দু’জন দক্ষিণ ২৪ পরগনার বাসিন্দা। ওই তরুণী ছাত্রীদের প্রত্যেকেই নেট ও মোবাইল নিয়ে ব্যস্ত থাকত। হঠাৎই এই সাধারণ পরিবারের মেয়েরা বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়ে যায়। এলাকা সূত্রে খবর পাওয়ার পর তাদের মোবাইলের কললিস্ট ও নেট ঘেঁটে গোয়েন্দাদের ধারণা, লাভ জিহাদেরই শিকার হয়েছে তারা। যদিও আরও তথ্য জোগাড় করে এই বিষয়ে গোয়েন্দারা নিশ্চিত হতে চাইছেন। জানা গিয়েছে, বাড়ির সঙ্গে যোগাযোগ রাখে না তারা। ওই ছাত্রীরা কোথায় বা কাদের সঙ্গে রয়েছে, গোয়েন্দারা তা জানার চেষ্টা করছেন।

গোয়েন্দা সূত্রে জানা গিয়েছে, মহিলা সদস্য নিয়োগ করতে ‘লাভ জিহাদ’-এর উপরে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে জঙ্গিরা। নেট ও সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্রমাগত ‘লাভ জিহাদের’ ফাঁদ পাতছে তারা। অনলাইনে চলছে বন্ধুত্ব। এর পর প্রেমের ফাঁদ পাতা হচ্ছে। একই সঙ্গে চলছে নিজেদের ভাবধারার প্রচার। দেখা গিয়েছে, মূলত স্কুল ও কলেজের ছাত্রীদের এভাবে ফাঁদে ফেলা হচ্ছে। যদিও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই জাল কেটে বেরিয়ে আসছেন তরুণী ও কিশোরীরা। কয়েকটি ক্ষেত্রে যারা জাল কেটে বের হতে পারছে না, তাদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হতে চাইছে জঙ্গি সদস্যরা। তরুণীর কিশোরীদের মগজধোলাইও করা হচ্ছে। শেষ পর্যন্ত বাড়ি ছাড়ছে ‘লাভ জিহাদের’ ফাঁদে পড়া ছাত্রীরা। কয়েক বছর আগে এই রাজ্যে জামাত উল মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি) জঙ্গিদের মধ্যে মহিলা সদস্য বানানোর প্রবণতা লক্ষ করেছিলেন গোয়েন্দারা। দেখা গিয়েছিল, প্রায় প্রত্যেক জঙ্গি নেতাই নিজেদের পরিচিত মহলে বিয়ে করছে। সেই জঙ্গিদের স্ত্রীরাও জিহাদি কার্যকলাপে লিপ্ত হচ্ছে।

[আরও পড়ুন: প্রেমিকার ঘনিষ্ঠ ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়ানোর হুমকি তৃণমূল নেতার! অপমানে আত্মহত্যার চেষ্টা তরুণীর]

আল কায়দার ক্ষেত্রে গোয়েন্দারা দেখেছেন, জঙ্গিরা নিয়োগ করছে কম্পিউটার ও ইন্টারনেটে দক্ষ এমন তরুণদের। সেই কারণে মুর্শিদাবাদের কম্পিউটার সায়েন্সের কলেজ ছাত্রকেও নিয়োগ করেছে আল কায়দা। এই তরুণদের দিয়ে লাভ জিহাদের ফাঁদ পাতানো হচ্ছিল কি না, এবার গোয়েন্দারা তা জানার চেষ্টা করছেন। তার জন্য তাদের মোবাইল ও ল্যাপটপ পরীক্ষা করা হচ্ছে। এই বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানতে মুর্শিদাবাদ ও কেরল থেকে গ্রেপ্তার হওয়া আল কায়েদার সদস্যদের জেরা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন গোয়েন্দারা।

[আরও পড়ুন: মুর্শিদাবাদে CAA-NRC বিরোধী আন্দোলনেও যোগ দিয়েছিল জঙ্গিরা, জেরায় মিলল নয়া তথ্য]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement