১২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৬  সোমবার ২৭ মে ২০১৯ 

Menu Logo নির্বাচন ‘১৯ দেশের রায় LIVE রাজ্যের ফলাফল LIVE বিধানসভা নির্বাচনের রায় মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

দীপঙ্কর মণ্ডল, বোলপুর: লোকসভা নির্বাচনের পর দিল্লির মসনদে কে বসবে? কে হাসবে শেষ হাসি? এটাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন৷ কিন্তু স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিমায় এই কঠিন প্রশ্নেরই সহজ উত্তর দিলেন  বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল৷ বৃহস্পতিবার, বোলপুরে নিজের বাড়িতে সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটালের ফেসবুক লাইভে তাঁর চ্যালেঞ্জ, পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি একটিও আসন পাবে না৷  এমনকী গোটা দেশে যদি ১২০টির বেশি আসন পায় গেরুয়া শিবির, তাহলে তিনি রাজনীতি ছেড়ে দেবেন বলেও চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন ঘাসফুল শিবিরের সেনাপতি৷

[ আরও পড়ুন: অর্জুনের গড় ভাটপাড়ায় তৃণমূলের বাজি মদন মিত্র, ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর]

কথাই একমাত্র ইউএসপি অনুব্রত মণ্ডলের৷ তাঁর দাওয়াই রাজনীতির ময়দানে বেশ পরিচিত৷ বাক্যবাণ দিয়েই বরাবর বিরোধীদের ঘায়েল করেছেন তিনি৷ পাচন, ধূপকাঠি দিয়ে ভোট, নকুলদানা দাওয়াই – এসবের বাইরে বীরভূমের জেলা তৃণমূল সভাপতিকে ভাবাই যায় না৷ লোকসভা নির্বাচনের উত্তপ্ত আবহে বিজেপিকে রীতিমতো চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন অনুব্রত মণ্ডল৷ একান্ত সাক্ষাৎকারে তাঁর দাবি, ‘‘১২০টি আসন পেরোবে না বিজেপির৷ পেরোলে আমি রাজনীতি ছেড়ে দেব৷ উত্তরপ্রদেশে ১০টি আসন পাবে কিনা সন্দেহ আছে৷ বীরভূম, বর্ধমান, নদিয়ায় কিছুই করতে পারবে না৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপর আস্থা রয়েছে সকলের৷ বিজেপি পশ্চিমবঙ্গে একটা আসনও পাবে না, চ্যালেঞ্জ করছি৷ কয়েকজন টাকার লোভে বলছে, চারপাশে বিজেপি হাওয়া বইছে৷ তবে আমি কিছুতেই তা বলছি না৷’’

[ আরও পড়ুন: ‘মায়ের নাম তো আমারই করার কথা’, সমালোচনার জবাব দিলেন মুনমুন সেন]

বোলপুরের নিচুপট্টিতে বাড়ি অনুব্রত মণ্ডলের৷ আজ তাঁর মায়ের শ্রাদ্ধানুষ্ঠান৷ তাই সাদা রঙের কাপড়ে ঘেরা বাড়িটি৷ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ধূপধুনোর গন্ধে ভরপুর চতুর্দিক৷ দোর্দণ্ডপ্রতাপ তৃণমূল নেতার কাছে পারিবারিক জীবন যদিও কখনই বেশি প্রাধান্য পায়নি৷ তাই তো এদিন মায়ের পারলৌকিক ক্রিয়া সেরে সিউড়িতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জনসভায় যোগ দিতে চলে যান অনুব্রত৷ মা জীবিত থাকাকালীন তাঁর পা ছুঁয়ে প্রণাম করে বেরনোই ছিল তাঁর অভ্যাস৷ মা মারা গিয়েছেন, তাই এখন ভরসা ছবি৷ বেরনোর সময় ছবিতে প্রণাম করেন বীরভূমের জেলা তৃণমূল সভাপতি৷

আপাতত সংসারে স্ত্রী আর মেয়ে ছাড়া কেউই নেই তাঁর৷ স্ত্রী ক্যানসারে ভুগছেন৷ টাটা ক্যানসার হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন তিনি৷ জেলায় যতই দলের দায়িত্ব সামলান না কেন, বাড়ির কোনও দায়িত্বই সামলান অনুব্রত৷ লোকসভা নির্বাচনের ব্যস্ত সময়ে সংসারের হাল ধরেছেন একমাত্র মেয়ে৷ সংসার, অন্য চাকরি নাকি রাজনীতিতে বেশি আগ্রহ রয়েছে দুঁদে রাজনীতিকের মেয়ের? একান্ত সাক্ষাৎকারে সে প্রশ্নেরও জবাব দিয়েছেন তিনি৷ অনুব্রত জানান, এখনই সে বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি৷ নিজে ভোটে না লড়লেও, মেয়ে চাইলে বাবা হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে ভোটে লড়ার সুযোগ করে দেওয়ার অনুরোধ করবেন বলে জানিয়েছেন দাপুটে তৃণমূল নেতা৷ 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং