৩১ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ব্যুরো: ভরসন্ধেয় তৃণমূলের পার্টি অফিসে দুষ্কৃতীদের হামলা। মুর্শিদাবাদে ফের খুন শাসকদলের নেতা। ঘটনায় সোমবার নওদার বালি গ্রাম পঞ্চায়েতে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়। এদিন দলীয় কার্যালয়ে ঢুকে গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় নিমাই মণ্ডল নামে তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতির। সেইসময়ে দলীয় কার্যালয়ে বসেছিলেন নিমাইবাবু। দুষ্কৃতীরা পার্টি অফিসে ঢুকে পরপর গুলি চালায় অঞ্চল সভাপতিকে লক্ষ্য করে। ঘটনাস্থলেই লুটিয়ে পড়েন তৃণমূল নেতা। ঘটনায় বিজেপির দিকে অভিযোগের আঙুল তুলেছে শাসকদল। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকেই কাঠগড়ায় তুলেছে বিজেপি।

[আরও পড়ুন: গাড়িতে নীলবাতি, বিতর্কে দক্ষিণ দিনাজপুরের তৃণমূল নেতা]

এদিকে, একই সময়ে উত্তর ২৪ পরগনার মধ্যমগ্রামে তৃণমূল অফিসে চলল গুলি-বোমা। জখম হলেন দুই তৃণমূল নেতা। রাত ন’টা নাগাদ মধ্যমগ্রামের কদমতলা বাজার এলাকায় তৃণমূল পার্টি অফিসে হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। দুষ্কৃতীদের ছোঁড়া গুলিতে বিদ্ধ হন তৃণমূল নেতা বিনোদ সিং। গুরুতর জখম হন আরও একজন। বোমার স্প্লিন্টারে আহত হন তিনি। ঘটনায় রাখাল নন্দী নামে স্থানীয় দুষ্কৃতীর দিকে অভিযোগের তির।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, মধ্যমগ্রাম পুরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কদমতলা বাজারে তৃণমূল কার্যালয়ে তখন আরও অনেকের সঙ্গে বসেছিলেন যুব নেতা বিনোদ সিং। মূলত তাঁকে লক্ষ্য করেই গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। ছোঁড়া হয় বোমাও। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় বিনোদ সিংকে ভরতি করা হয় এসএসকেএম হাসপাতালে। বোমার স্প্লিন্টার ছিটকে গুরুতর আহত হয়েছেন দীপক বোস নামে আরেক তৃণমূল নেতা। দুষ্কৃতীরা তিনটি মোটরবাইকে করে কদমতলা বাজারে আসে বলে জানা গিয়েছে। তারা তৃণমূল কার্যালয় লক্ষ্য করে ৭-৮টি বোমা ছোঁড়ে। তারপর পার্টি অফিসে ঢুকে এলোপাথাড়ি গুলি চালায়। ঘটনায় বিজেপির হাত দেখছে তৃণমূল।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং