BREAKING NEWS

৫ মাঘ  ১৪২৮  বুধবার ১৯ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

একুশের সমাবেশে যাওয়ার পথে তৃণমূল কর্মীদের উপর হামলা, কাঠগড়ায় বিজেপি

Published by: Tanujit Das |    Posted: July 21, 2019 10:15 am|    Updated: July 21, 2019 10:15 am

TMC supporters Buses allegedly attacked at Indus in Bankura

দেবব্রত দাস, খাতরা: একুশে জুলাইয়ের জনসভায় যাওয়ার পথে তৃণমূল কর্মীদের বাসে দুষ্কৃতী তাণ্ডব৷ ভাঙা হল ৫টি বাস৷ শনিবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে বাঁকুড়ার ইন্দাস থানার অন্তর্গত বাগিচাবাঁধ ও চেকপোস্টের মাঝের রাস্তায়৷ এই ঘটনায় বিজেপি ও সিপিএমের বিরুদ্ধে হামলা চালানোর অভিযোগে সরব হয়েছে তৃণমূল৷ যদিও সমস্ত অভিযোগ খারিজ করেছে গেরুয়া শিবির৷

[ আরও পড়ুন: একুশের সমাবেশে কাঁটা বৃষ্টি? আশঙ্কার পূর্বাভাস শোনাল হাওয়া অফিস]

জানা গিয়েছে, ধর্মতলার শহিদ সমাবেশে যাওয়ার জন্য বাঁকুড়ার বিভিন্ন এলাকা থেকে শাসকদলের কর্মীদের নিয়ে কলকাতার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিল বাসগুলি৷ শনিবার রাত একটা নাগাদ বাঁকুড়া-বর্ধমান ভায়া রসুলপুর রাস্তায় বাগিচাবাঁধ ও চেকপোস্টের মাঝে, বাসগুলিকে লক্ষ্য করে ইট ছোঁড়া হয় বলে অভিযোগ৷ বড় বড় থান ইটের আঘাতে ভেঙে যায় বাসের কাচ৷ ক্ষতিগ্রস্ত হয় ৫টি বাস৷ ঘটনায় আঘাত পান এক তৃণমূল কর্মী৷ তৃণমূলের অভিযোগ বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা একাজ করেছে৷ শাসকদলের তরফে বিষ্ণুপুর জেলার সভাপতি তথা রাজ্যের মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা জানান, ‘‘সিপিএমের হার্মাদরা এখন শিবির বদলে বিজেপিতে নাম লিখিয়েছে৷ দীর্ঘদিন ধরেই ওরা জেলার রাজনৈতিক শান্তি নষ্টের চেষ্টা করেছে৷ এদিনও ওরাই হামলা চালিয়েছে৷ পাত্রসায়র ও ইন্দাসেও ওরা বাস আটকানোর চেষ্টা করেছে৷’’ যদিও সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিজেপি৷ শাসকদলের দাবি উড়িয়ে বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলার সভাপতি স্বপন ঘোষ বলেন, ‘‘রাতের অন্ধকারে কারা হামলা করেছে, কেউ জানে না৷ ঘটনার সঙ্গে আমাদের কেউ জড়িত নয়৷ এটা শাসকদলের গোষ্ঠীকোন্দলের ফল৷ আমাদের বদনাম করা জন্য তৃণমূলের একাংশ এ কাজ করছে৷’’

স্থানীয় সূত্রে খবর, বাস ভাঙচুরের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে ইন্দাস থানার পুলিশ৷ তবে ঘটনাটি আদৌ তাঁদের এলাকায়. ঘটেছে কিনা সেই নিয়ে ধন্দে ছিলেন পুলিশকর্মীরা৷ ঘটনায় এখন কেউ গ্রেপ্তার হয়নি৷ প্রসঙ্গত, একুশের সমাবেশের আগেই কাটমানি ইস্যুকে উসকে দেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ৷ প্রয়োজনে তৃণমূল কর্মীদের বাস আটকে কাটমানির টাকা ফেরত চাওয়ার হুমকি দেন তিনি৷ বিজেপি নেতা বলেন, ‘‘তৃণমূল নেতারা কলকাতা যাওয়ার জন্য রাস্তায় বেরোবেন। তাদের বাস আটকে আগে কাটমানি ফেরত চাইতে হবে। আমাদের কর্মীরা সঙ্গে থাকবেন। নেতারা টাকা ফেরত না দিলে ব্যাটাদের গ্রাম ছাড়া করতে হবে। কলকাতায় সার্কাস হবে। এবার কি এদিক থেকে কেউ যাবেন? গেট, ঝান্ডা কিছুই তো নেই! মনে হচ্ছে তৃণমূলের শোকসভা হবে।’’ বিজেপি নেতার হুমকির পরেই তাঁর বিরুদ্ধে হিংসাত্মক প্ররোচনার অভিযোগ তুলে হেয়ার স্ট্রিট থানার দ্বারস্থ হন রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য৷ দিলীপের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেন তিনি৷

[ আরও পড়ুন: তৃণমূল কর্মীদের বাস আটকানোর হুমকি, দিলীপের বিরুদ্ধে এফআইআর চন্দ্রিমার ]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে