৪ শ্রাবণ  ১৪২৬  শনিবার ২০ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

চন্দ্রশেখর চট্টোপাধ্যায়, আসানসোল: সদ্য সমাপ্ত লোকসভা ভোটে আসানসোলে আবারও হারের মুখ দেখেছে রাজ্যের শাসকদল৷ এই কেন্দ্রের অন্তর্গত বেজডিহি গ্রামেও হেরেছে তৃণমূল৷ আর তার প্রতিশোধ নিতেই গ্রামে জল পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে গুরুতর অভিযোগ তুললেন গ্রামবাসীরা৷ শুক্রবার কুলটির বেজডিহি গ্রামে বিক্ষোভ দেখালেন তাঁরা৷ জলের পাত্র, হাঁড়ি,কলসি নিয়ে গ্রামের রাস্তায় নেমে এসে পথ অবরোধ করেন। তাঁদের অভিযোগ, প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে স্থানীয় তৃণমূল কাউন্সিলর পানীয় জল সরবরাহ বন্ধ করেছেন। যদিও সমস্ত অভিযোগ যথারীতি অস্বীকার করেছেন কাউন্সিলর।

[আরও পড়ুন: তল্লাশির নামে দোকান লুটের অভিযোগ, ব্যবসায়ী-পুলিশ খণ্ডযুদ্ধে রণক্ষেত্র জগদ্দল]

আসানসোল পুরনিগমের ৭৪ নম্বর ওয়ার্ড বেজডিহি গ্রামের বাসিন্দারা বলছেন, গ্রামে জনস্বাস্থ্য বিভাগের জলের লাইন থাকলেও দু’বছর ধরে তা থেকে জল পাওয়া যায় না। বিকল্প হিসাবে প্রতিদিন পুরনিগম থেকে এক বা দু ট্যাঙ্ক করে পানীয় জল পৌঁছাতে তাঁদের কাছে। কিন্তু অভিযোগ, গত ২৩ মে, লোকসভা ভোটের ফলাফলের পর থেকে সেই জল আসা পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। এই ঘটনার পেছনে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র দেখছেন গ্রামবাসীরা। গ্রামের একাংশের দাবি, জল নিয়ে ৭৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর উত্তম বাউরির কাছে বলতে গেলে তিনি নাকি সরাসরি বলছেন, ‘তোরা ভোট দিসনি, তাই জলও পাবি না।’ একই অভিযোগের সুর গ্রামের বাসিন্দা তথা বিজেপি সমর্থিত ট্রেড ইউনিয়নের সদস্য ভরত মাজির৷ তাঁর কথায়, বেজডি গ্রামের দু’টি বুথ মিলিয়ে এবার ১২০০ ভোটে এগিয়ে ছিলেন বিজেপির বাবুল সুপ্রিয়। এই হিসেব মেনে নিতে পারেননি স্থানীয় তৃণমূল কাউন্সিলর৷ তাই প্রতিশোধ নিচ্ছেন৷

[আরও পড়ুন: বোমাবাজি-গুলিতে উত্তপ্ত ডোমকল, খুন ৩ তৃণমূল কর্মী]

কাউন্সিলর উত্তম বাউরির দাবি, ভোট পাননি বলে জল দেবেন না, এমন কথা তিনি কাউকে বলেননি। মিথ্যে প্রচার চালানো হচ্ছে। তাঁকে প্রশ্ন করা হয়, তবে টানা ২৩ দিন ধরে জলের ট্যাঙ্ক আসেনি কেন? জবাবে কাউন্সিলর বলেন, ‘আমার ওয়ার্ডের ২৫ টি পাড়ায় পানীয় জলের সমস্যা রয়েছে। এই অবস্থায় মাত্র দু’টি ট্যাঙ্ক পাওয়া যাচ্ছে। ঘুরিয়ে ফিরিয়ে সেই ট্যাঙ্ক দু’টিই বিভিন্ন পাড়ায় ঘুরছে। বেজডিতেও তা পৌঁছেছে। আসানসোল পুরনিগমের জলবিভাগের মেয়র পারিষদের কথায়, ‘আমি ঘটনার কথা জানতাম না। জলের ট্যাঙ্কের সংখ্যা বাড়ানো হবে।’ পাশাপাশি, জনস্বাস্থ্য বিভাগেও চিঠি পাঠানো হবে৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং