৬ মাঘ  ১৪২৬  সোমবার ২০ জানুয়ারি ২০২০ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

৬ মাঘ  ১৪২৬  সোমবার ২০ জানুয়ারি ২০২০ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: “যিনি ধর্ষণ করতে চাইছেন তাকে বাধা না দিয়ে কন্ডোম তুলে দিন তার হাতে” এমন ‘বিস্ফোরক’ পরামর্শ মহিলাদের দিচ্ছেন পরিচালক ড্যানিয়েল শ্রাবণ। দিন কয়েক ধরেই গোটা দেশ হায়দরাবাদ ধর্ষণ কাণ্ড নিয়ে তোলপাড়। আর এমন স্পর্শকাতর সময়ে দক্ষিণী পরিচালকের এহেন মন্তব্যে উত্তাল সোশ্যাল মিডিয়া।

এখানেই থেমে থাকেননি ড্যানিয়েল। ধর্ষণের সময় ধর্ষককে মহিলাদের সহযোগিতা করার মতো পরামর্শও দিয়েছেন। কোনও বাধা না দিয়েই ধর্ষকের যৌনক্ষুধা মেটাতে বলেছেন। শ্রাবণের মতে, এতে নাকি ধর্ষিতারা শারীরিকভাবে নিরাপদ থাকবেন। ধর্ষণের পর খুন করে ফেলা হবে না ধর্ষিতাদের। আইন এত কঠোর বলেই নাকি, ভয়ে ধর্ষকরা খুনের মতো ঘৃণ্য কাজ করে। দক্ষিণী এই পরিচালকের সাফ কথা, খুনের চেয়ে ভাল ধর্ষণ। খুন একটা অপরাধ। ধর্ষণ একটা ভুল, যা শুধরে নেওয়া যায়। কিন্তু খুন একটা গুরুতর অপরাধ। এমনটাই মন্তব্য ড্যানিয়েল শ্রাবণের। একটি পোস্টে মহিলাদের উদ্দেশে তিনি লিখেছেন, “১০০ ডায়ালের বদলে নিজেদের কাছে কন্ডোম রাখুন।”

যদিও ড্যানিয়েলের ‘এরকম’ পরামর্শের পর উত্তাল হয়েছে নেটদুনিয়া। ছিছিকার পড়ে গিয়েছে চলচ্চিত্র পরিচালককে নিয়ে। হায়দরাবাদ গণধর্ষণ কাণ্ডে ধর্ষিতাকে পুড়িয়ে মারার ঘটনায় সোশ্যাল মিডিয়ায় একাধিক পোস্ট করেছেন শ্রাবণ। সেগুলির মধ্যেই একটিতে ধর্ষণের প্রতি পরিচালকের এই মন্তব্য প্রকাশ্যে এসেছে। একটি পোস্টে পরিচালক শ্রাবণ লিখেছেন, ‘‘ধর্ষণ এমন কিছু গুরুতর ব্যাপার নয়। কিন্তু খুন অমার্জনীয় অপরাধ। ধর্ষিতা খুন হচ্ছেন আইন কঠোর হওয়ায়। তা না হলে ধর্ষণের পর মহিলাদের ছেড়েই দিত ধর্ষকরা।’’ 

[আরও পড়ুন: নারীদের রক্ষাকর্তা রণবীর, প্রকাশ্যে ‘জয়েশভাই জোরদার’-এর ফার্স্টলুক ]

ধর্ষিতাদের বাঁচার এমন ‘হিংসাবিহীন ধর্ষণ’-এর উপায় বাতলানো দেখে, নেটিজেনদের অনেকেই হতবাক হয়েছেন। একজন সভ্য নাগরিক হিসেবে কীভাবে কেউ এরকম মন্তব্য করতে পারে, প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। এখানেই শেষ নয়! দেশে ধর্ষণের মতো নারকীয় ঘটনার জন্য ড্যানিয়েল শ্রাবণ দায়ী করেছেন ভারতীয় সমাজব্যবস্থা এবং দেশের মহিলা সংগঠনগুলিকে। তিনি তাঁর পোস্টে নিজস্ব ভাষায় গোটা গোটা হরফে লিখেছেন, ‘‘ধর্ষণের ঘটনা উত্তরোত্তর বেড়ে যাওয়ার জন্য দায়ী সমাজব্যবস্থা ও দেশের মহিলা সংগঠনগুলি।’’ 

[আরও পড়ুন: জমজমাট জুনের রিসেপশন, নেচে আসর মাতালেন যিশু-শুভশ্রী-পরম ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং