৩০ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফের রহস্যের উন্মোচনে সাগরদ্বীপে হাজির সায়ন্তন ঘোষালের ‘যকের ধন’ টিম। মাস খানেক আগেই ‘সাগরদ্বীপে যকের ধন’-এর অভিনব থ্রিডি পোস্টার এবং টিজারের ঝলকে সিনেমহলে উত্তেজনার পারদ চড়েছে। রোমাঞ্চের নেশায় বিমল ও কুমার, দুই বন্ধু পৌঁছে গিয়েছেন সাগর পাড়ে। বিপদসংকুল এই যাত্রাপথে তাঁদের সঙ্গী ডাক্তার রুবি চট্টোপাধ্যায়। এই ত্রয়ীর রোমাঞ্চকর অ্যাডভেঞ্চারের ঝলক আরও বিশদে প্রকাশ্যে এল বুধবার। মুক্তি পেল ‘সাগরদ্বীপে যকের ধন’ ছবির ট্রেলার।

ছবিতে বিমলের চরিত্রে রয়েছেন পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় এবং ডাক্তার রুবি চট্টোপাধ্যায়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন কোয়েল মল্লিক। ‘সাগরদ্বীপে যকের ধন’-এর দৌলতে ‘হেমলক সোসাইটি’ এবং ‘হাইওয়ে’-র পর ফের বড় পর্দায় কোয়েল মল্লিক এবং পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় জুটি বাঁধলেন। সৌজন্যে পরিচালক সায়ন্তন ঘোষাল। পরমব্রত এবং কোয়েল ছাড়াও, ‘সাগরদ্বীপে যকের ধন’ ছবিতে রয়েছে গৌরব চক্রবর্তী। যাকে দেখা যাবে কুমারের চরিত্রে। রুবি এবং বিমল দু’জনের লক্ষ্য একমেবাদ্বিতীয়ম- ‘রেড মার্কারি’। রুবির একমাত্র লক্ষ্য সেই রেড মার্কারি জোগাড় করে এক বাচ্চা মেয়েকে বাঁচানো। অন্যদিকে, বিশ্বে তরল খনিজ সম্পদের আকাল আসতে চলেছে বলে বিমল ওরফে পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় রেড মার্কারির সন্ধানে পৌঁছে গিয়েছেন সাগর পাড়ের ভান্ডারে। সেই যাত্রাতেই এক মাফিয়া দলের খপ্পরে পড়তে হয় রুবি-বিমল এবং কুমারকে।

[আরও পড়ুন: অনীকের কটাক্ষের জের! চলচ্চিত্র উৎসব প্রাঙ্গণ থেকে উধাও মুখ্যমন্ত্রীর ছবি ]

ছবির গল্পের পরতে পরতে রয়েছে রহস্য এবং রোমাঞ্চ। আভাস মিলল ট্রেলারেই। ধাঁধায় ধাঁধায় রয়েছে সমাধানের পথ। সেই ধাঁধাকে স্মরণ করেই রহস্যভেদে এগিয়েছে বিমল, কুমার এবং রুবি। চলার পথে ঘাত-প্রতিঘাত, দূরদেশে বিপদের হাতছানি। তবুও লক্ষ্যে অবিচল। রহস্য সন্ধানে অভিযাত্রীরা ডুব দিয়েছে সমুদ্রের নীচে। দুঃসাহসিক এই রহস্যোদঘাটনে কী করে সফল হবে ‘সাগরদ্বীপে যকের ধন’-এর বিমল-রুবি ও কুমার? তারা কী পারবে ‘রেড মার্কারি’ রহস্যোদঘাটনে করতে? বাকি গল্প জানার জন্য অপেক্ষা করতে হবে ৬ ডিসেম্বর অবধি। কারণ, সেদিনই মুক্তি পাচ্ছে ‘সাগরদ্বীপে যকের ধন’।

ছবিতে খলনায়কের চরিত্রে দেখা যাবে রজতাভ দত্তকে। শুটিং হয়েছে সিকিম, থাইল্যান্ড এবং কলকাতায়। থাইল্যান্ডের এমন কিছু জায়গায় শুটিং হয়েছে যেখানে এর আগে কোনও বাংলা ছবির শুটিং হয়নি। অতএব, বাঙালি দর্শকরা যে একটা উপরি পাওনা পেতেই পারেন এক্ষেত্রে, তার ইঙ্গিত মিলল ট্রেলারেই।

[আরও পড়ুন: পরিকাঠামো উন্নয়নে সীমান্ত সফরে সংসদীয় কমিটির সদস্যরা, দলে সাংসদ দেবও ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং