BREAKING NEWS

১৬ মাঘ  ১৪২৯  মঙ্গলবার ৩১ জানুয়ারি ২০২৩ 

READ IN APP

Advertisement

প্রয়াত ‘সিটি অফ জয়’-এর লেখক ডমিনিক ল্যাপিয়ের, বয়স হয়েছিল ৯১ বছর

Published by: Kishore Ghosh |    Posted: December 5, 2022 2:55 pm|    Updated: December 5, 2022 3:57 pm

Famous French Author Dominique Lapierre Dies at 91 | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কলকাতা শহর নিয়ে লেখা তাঁর উপন্যাস ‘সিটি অফ জয়’ (City of Joy) যেমন বহু পাঠকের প্রিয়, তেমনই পছন্দ হয়নি অনেকের। পরে যে লেখা অবলম্বনে বিখ্যাত চলচ্চিত্র তৈরি হয়েছিল। সেই ডমিনিক ল্যাপিয়ের (Dominique Lapierre) প্রয়াত হলেন সোমবার। বার্ধক্যজনিত কারণে ৯১ বছর বয়সে মৃত্যু হয়েছে তাঁর, জানিয়েছেন বিশ্বখ্যাত লেখকের স্ত্রী। উল্লেখ্য, ল্যাপিয়ের কেবল সিটি অফ জয়ের লেখকই নন, তিনি ছিলেন ভারত অনুরাগীও। সিটি অফ জয় থেকে যে রয়্যালটি পেয়েছিলেন, তা ভারতের মানবিক প্রকল্পের জন্য দান করেছিলেন। ২০০৮ সালে ডমিনিক ল্যাপিয়েরকে পদ্মভূষণে সম্মানিত করে ভারত সরকার।

১৯৩১ সালের ৩০ জুলাইয়ে চ্যাটেলিলনে জন্ম হয় ডমিনিকের। দ্রত লেখক হিসেবে ফরাসি সাহিত্য মহলে নিজের জায়গা করে নেন। ল্যাপিয়ের এবং আমেরিকান লেখক ল্যারি কলিন্সের (Larry Collins) লেখা ছয়টি বইয়ের প্রায় ৫০ মিলিয়ন কপি বিক্রি হয়েছিল। এর মধ্যে সবচেয়ে বিখ্যাত ‘ইজ প্যারিস বার্নিং?’ (“Is Paris Burning?) যেটি প্রকাশিত হয় ১৯৬৫ সালে। বিখ্যাত এই বইটিকে নিয়েও পরবর্তীকালে সিনেমা তৈরি হয়। ‘সিটি অফ জয়’ প্রকাশিত হয়েছিল কুড়ি বছর পরে ১৯৮৫ সালে। কলকাতা শহরের এক রিক্সাচালকের কষ্টের জীবনের কথা তুলে ধরা হয়েছিল এই বইটিতে।

[আরও পড়ুন: কংগ্রেস ছেড়ে শরদ পাওয়ারের দলে শশী থারুর? এনসিপি নেতার মন্তব্যে বাড়ল জল্পনা]

‘সিটি অফ জয়’ উপন্যাসটিকে ভিত্তি করে ১৯৯২ সালে সিনেমা তৈরি হয়েছিল। সেই ছবিতে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন ওম পুরি (Om Puri), সাবানা আজমি (Shabana Azmi), প্যাট্রিক সোয়েজ (Patrick Swayze) প্রমুখ। পরিচালনা করেন রোল্যান্ড জোফ (Roland Joffe)। লাপিয়ের তাঁর ‘সিটি অফ জয়’ থেকে পাওয়া রয়াল্টির টাকা ভারতে মানবিক প্রকল্পগুলিতে অর্থ সাহায্যের জন্য দান করেছিলেন।

[আরও পড়ুন: একসঙ্গে যমজ বোনকে বিয়ে! আইন ভেঙে গ্রেপ্তার মহারাষ্ট্রের যুবক]

২০০৫ সালে তাঁর পাশে দাঁড়ানোর জন্য বইয়ের পাঠক ও সিনমার দর্শকদের ধন্যবাদ জানান ডমিনিক। তিনি জানান, এর ফলে ২৪ বছরে কুষ্ঠরোগে আক্রান্ত ৯,০০০ শিশুর যত্ন নেওয়া সম্ভব হয়েছে। এছাড়াও এক মিলিয়ন যক্ষ্মা রোগীর রোগ নিরাময় করা সম্ভব হয়েছে। ২০০৮ সালে ল্যাপিয়েরকে পদ্মভূষণে সম্মানিত করে ভারত সরকার। উল্লেখ্য, ডমিনিক ল্যাপিয়েরের ‘সিটি অফ জয়’ বিখ্যাত যেমন, তেমনই বিতর্কিতও বটে। 

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে