সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শ্বাসনালীতে সংক্রমণ হওয়ায় হাসপাতালে ভরতি হলেন কবি শঙ্খ ঘোষ। মুকুন্দপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে তাঁকে। যদিও তাঁর অবস্থা আপাতত স্থিতিশীল বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

বেশ কিছুদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন কবি শঙ্খ ঘোষ। কোনও অনুষ্ঠানে তাঁকে দেখতে পাওয়া যেত না। শারীরিক অসুস্থতার কারণে একপ্রকার গৃহবন্দিই ছিলেন তিনি। বাইরে কোথাও বের হতে পারতেন না। ঘরের মধ্যেও চলাফেরা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল তাঁর। কিন্তু মঙ্গলবার সকালে তাঁর স্বাস্থ্যের কিছুটা উন্নতি হয়। দোতলার ঘর থেকে নিজেই হেঁটে নিচে নেমেছিলেন তিনি। তারপর দুপুরে ফের অসুস্থ হয়ে পড়েন।

[ আরও পড়ুন: সৌমিত্রকে নিয়ে পরমব্রতর ‘অভিযান’ শুরু ফেব্রুয়ারিতে, অভিনয়ে পাওলি-সোহিনীরা ]

বেলা সোয়া ১২টা নাগাদ মুকুন্দপুরের একটি হাসপাতালে তাঁকে ভরতি করা হয়। শ্বাসনালীতে সংক্রমণ ধরা পড়ে তাঁর। মেডিসিন বিশেষজ্ঞ সি কে মাইতির তত্ত্বাবধানে রয়েছেন কবি। তাঁর একাধিক শারীরিক পরীক্ষা শুরু হয়েছে। তাঁর মূত্রথলিতেও সংক্রমণ দেখা গিয়েছে। এক্স-রে, CRP, সোডিয়াম-পটাশিয়াম লেভেল টেস্ট, লিভার, ECG, USG ও রক্ত পরীক্ষা-সহ একাধিক পরীক্ষা হচ্ছে তাঁর। পরীক্ষার রিপোর্ট এলে পরবর্তী পদক্ষেপ কী নেওয়া হবে, সেই সিদ্ধান্ত নেবেন চিকিৎসকরা। কবির জন্য কোনও মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হবে কিনা, তাও তখনই জানানো হবে। তবে কবির অবস্থা আপাতত স্থিতিশীল হওয়ায় এখনই আশঙ্কার কোনও কারণ নেই বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

কিছুদিন আগে এনআরএসে জুনিয়র ডাক্তারদের উপর হামলার ঘটনায় মুখ খুলেছিলেন কবি শঙ্খ ঘোষ। বলেছিলেন, “যত দ্রুত সম্ভব অচলাবস্থা কাটিয়ে কাজে ফিরুন”। সেই কারণে নেটিজেনদের সমালোচনার মুখে পড়তে হয় তাঁকে। কেন তিনি চিকিৎসকদের সঙ্গে দেখা করেননি, তা নিয়েও কটাক্ষের শিকার হতে হয় তাঁকে। তখনই তিনি জানিয়েছিলেন যে, শরীরিক অবস্থা ভাল নেই তাঁর। সেই কারণেই তিনি জুনিয়র ডাক্তারদের সঙ্গে দেখা করতে যেতে পারেননি। তারপর থেকে খবরে আসেননি শঙ্খ ঘোষ। অসুস্থতার কারণেই একপ্রকার আড়ালে চলে গিয়েছিলেন তিনি।

[ আরও পড়ুন: ‘মোদি নিজেই জানেন না CAA, NRC কী!’, উলটো সুর গায়ক অভিজিতের গলায় ]