১৪ মাঘ  ১৪২৮  শুক্রবার ২৮ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

বাঁধা গত ছেড়ে আসছে হাস্যরসে পরিপূর্ণ নতুন ধারাবাহিক ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ’

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: June 6, 2019 9:23 pm|    Updated: June 7, 2019 2:37 pm

New Serial to be air soon on Colors Bangla Channel

সোমনাথ লাহা: মেগায় নব প্রজন্মের প্রেম (নিউএজ রোমান্স) নিয়ে হাজির শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ । শাশুড়ি-বৌমা কূটকচালি, পৌরাণিক গাথা, পিরিয়ড ড্রামার মতো চলতি পথের মেগা ধারাবাহিকের একঘেঁয়ে নয়। দর্শকরা এবার পেতে চলেছেন নতুনত্বের স্বাদ। প্রচলিত ধারাগুলি থেকে বেরিয়ে এবার সেই নতুন পথের হদিশই দিতে চলেছে কালারস বাংলা।

শুরু হতে চলেছে নিউএজ রোমান্সে ভরপুর ভিন্ন স্বাদের রোমান্টিক কমেডি তথা রম-কম মেগা ধারাবাহিক ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ।’ মজাদার এহেন মেগার পরিচালক মনোজিৎ মজুমদার। অ্যাক্রোপলিস এন্টারটেনমেন্টের ব্যানারে নির্মিত এই ধারাবাহিকটির প্রযোজক স্নিগ্ধা বসু। সম্পূর্ণরূপে সিচুয়েশনাল কমেডিতে ঠাসা এই মেগায় নেই কোনও নেতিবাচক বিষয় ভাবনা ও নেগেটিভ চরিত্র। প্রসঙ্গত, ২০০০-এ সিনে আঙিনায় মুক্তি পেয়েছিল হরনাথ চক্রবর্তী পরিচালিত প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় এবং ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত অভিনীত কমেডিতে ভরপুর সুপারহিট ছবি ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ’। তবে সেই ছবির সঙ্গে এই মেগার নামটি এক হলেও কাহিনি সম্পূর্ণ আলাদা বলে জানিয়েছেন নির্মাতারা।

[আরও পড়ুন: করিনাই নাকি ছোটপর্দার সবচেয়ে দামি অভিনেত্রী!]

মেগার কাহিনি আবর্তিত হয়েছে সম্পূর্ণ বিপরীত চিন্তাধারার দুটি পরিবার ঘোষ বাড়ি ও সরকার বাড়িকে কেন্দ্র করে। ঘোষবাড়ির সদস্যরা সকলেই পুরুষ। এই বাড়িতে মহিলা প্রবেশ নিষিদ্ধ। বাড়ির কর্তা সনাতন ঘোষ (রজত গঙ্গোপাধ্যায়) একগুঁয়ে ও জেদি। বিপত্নীক সনাতনবাবুর শ্রীমতী শাড়ি নিকেতন নামে কাপড়ের ব্যবসা রয়েছে। সনাতনবাবুর তিন ছেলে একেবারে তিন অবতার। বড় ছেলে মলয় (যুধাজিৎ) খুবই হিসেবী। হাত চাপা বললেও ভুল বলা হয় না। মলয়ের বিয়ে হলেও তার স্ত্রী নেই। মেজ ছেলে প্রলয় (কৌশিক) শরীরচর্চা, ব্যায়াম নিয়েই থাকে। ছোট ছেলে নিলয় (শুভ্রজিৎ) আবেগপ্রবণ, কোমল মনের। তবে নিজের ভিতরের প্রবৃত্তিগুলিকে আটকানোর জন্য সে বজরঙবলির ভক্ত। হনুমান চালিশা পড়ে। এই পরিবারের সবচেয়ে আদরের হল সনাতনবাবুর একমাত্র নাতি কিংশুক (মৈনাক)। মলয়ের একমাত্র ছেলে সে। বিদেশ থেকে পড়াশোনা করে আসা নাতির হাতেই ব্যবসার ভার দিতে চান সনাতনবাবু। সেই সঙ্গে চান নাতির বিয়ে দিতে। কিন্তু বাদ সাধে পরিবারের অন্য সদস্যরা।


অপরদিকে রয়েছে সরকার বাড়ি। এই বাড়িতে আবার পুরুষের প্রবেশাধিকার নেই। বাড়ির সদস্যরা সকলেই মহিলা। তারা মনে করেন পুরুষের চাইতে কোনও অংশে কম নন তাঁরা। এই বাড়ির প্রাণোচ্ছল, মিষ্টি মেয়ে মিষ্টু (ঐশ্বর্য)। সে তার ঠাকুমা গায়ত্রী (অনুরাধা), মা (সোহিনী), পিসি শান্তিপ্রিয়া (মল্লিকা) ও বোন দুষ্টু (অনিন্দিতা)-র সঙ্গে থাকে। তাদের ‘টক ঝাল মিষ্টি’ নামক হোম ডেলিভারির ব্যবসা। ঘটনাচক্রে এই দুই বাড়ির সদস্য কিংশুক ঘোষ ও মিষ্টু সরকার একে অপরের প্রেমে পড়ে। কিন্তু পরিবারের প্রচলিত ধারণা ভেঙে কিংশুক আর মিষ্টুর প্রেম কি আদৌ পূর্ণতা পায়? উত্তর মিলবে মেগার প্রতিটি পর্বজুড়ে।
মেগায় মিষ্টুর চরিত্রে রয়েছেন ছোটপর্দার অতিপরিচিত অভিনেত্রী ঐশ্বর্য সেন। ইতিপূর্বে কালারস বাংলার জনপ্রিয় মেগা ‘শুভদৃষ্টি’-তে দৃষ্টির চরিত্রে তাঁর অভিনয় বেশ প্রশংসিত হয়েছে দর্শকমহলে। মাঝে আড়াই-তিন মাসের বিরতি নিয়ে ফের মেগার অঙ্গনে ফিরলেন ঐশ্বর্য। অন্যদিকে কিংশুকের ভূমিকায় দেখা যাবে নবাগত মৈনাককে। বাটানগরের ছেলে মৈনাকের এটিই প্রথম মেগা। ওয়েস্টার্ন ডান্সে পারদর্শী মৈনাকের প্যাশন নাচ।

সম্প্রতি বেলগাছিয়া রাজবাড়িতে মেগার সেটে সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কালারস বাংলার বিজনেস হেড রাহুল চক্রবর্তী-সহ মেগার প্রযোজক, পরিচালক ও অভিনেতা অভিনেত্রী, কলাকুশলীরা। পরিচালক মনোজিতের কথায়, “এটা একটা টিনএজ লাভ স্টোরি। একদম নতুনত্বের ভরা এই কাহিনি আর পাঁচটা মেগা সিরিয়ালের থেকে আলাদা। আমরা চেষ্টা করেছি একটা সুস্থ পরিচ্ছন্ন গল্পকে দর্শকদের সামনে তুলে ধরার। আশা করছি দর্শকরা নতুন কিছু পাবেন এই মেগা থেকে।”

[আরও পড়ুন: মুখে অক্সিজেন মাস্ক নিয়ে এজলাসে, নেটদুনিয়ায় ট্রোলড ‘জবা’]

ঐশ্বর্যর মতে “এটা একদম অন্যরকমের গল্প। এর মধ্যে শাশুড়ি-বৌমার নেগেটিভিটি নেই। একটা ফিলগুড বিষয় রয়েছে। এই গল্পে মহিলাদের একটা জার্নি রয়েছে। তারাও ঘর ও বাহির দু’দিক সুন্দরভাবে সামাল দিচ্ছে সেটা দেখানো হয়েছে। আমার মনে হয় এই ধারাবাহিকটির কাহিনি দেখে দর্শকরা অনুপ্রাণিত হবেন। মিষ্টুর সঙ্গে নিজের অনেক মিল খুঁজে পেয়েছি। আমার মনে হয়েছে মিষ্টু যেগুলো পারে আমিও সেগুলো করতে পারি। গল্পে মেয়েদের যেভাবে দেখানো হয়েছে, এর বিষয় ভাবনা, ভাল গল্পের প্রতি আকর্ষণের টানেই এই মেগাতে কাজ করতে রাজি হয়েছি। মিষ্টুর চরিত্রের জন্য স্কুটি চালানোও শিখেছি।” মৈনাকের মন্তব্য “এটা আমার কাছে সম্পূর্ণ নতুন একটা জার্নি। ছোটবেলা থেকেই অভিনয় করার ইচ্ছে ছিল, সময় লাগলেও সে ইচ্ছাপূরণ হয়েছে। প্রথমদিকে একটু নার্ভাস থাকলেও ইউনিটের সকলে এত সাহায্য করেছে সে কাজটা করা সহজ হয়ে গিয়েছে।” ১০ জুন থেকে কালার্স বাংলায় প্রতি সোম থেকে শুক্র রাত সাড়ে ৯ টায় দেখা যাবে ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ’।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে