BREAKING NEWS

১৩ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  বুধবার ২৭ মে ২০২০ 

Advertisement

রূপকথার ধারাবাহিকে আবারও নতুন অবতারে চান্দ্রেয়ী ঘোষ, উচ্ছ্বসিত অভিনেত্রী

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: February 8, 2020 7:56 pm|    Updated: February 8, 2020 7:56 pm

An Images

সোমনাথ লাহা: সান বাংলা চ্যানেলের অন্যতম জনপ্রিয় রূপকথা আশ্রিত মেগা ধারাবাহিক ‘বেদের মেয়ে জ্যোৎস্না’। ৩৭০ পর্ব অতিক্রান্ত এই মেগায় এবার এক নতুন চরিত্রের প্রবেশ ঘটতে চলেছে। আর এই নতুন চরিত্রটি হল ‘কালনাগিনী’। ছোটপর্দার অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেত্রী চান্দ্রেয়ী ঘোষকে দেখা যাবে বিষধরী কালনাগিনীর চরিত্রে।  একই সঙ্গে ধারাবাহিকের কাহিনিতেও আসতে চলেছে এক নতুন মোড়। 

কামিনী সম্পূর্ণ মায়াবনে আগুন ধরিয়ে দেয়। আর মায়াবনের আগুন নেভানোর দায়িত্ব এসে  পড়ে রোহিণী ও অগ্নির উপর। একমাত্র চন্দ্র জলের সাহায্যেই মায়াবনের আগুন নেভানো যেতে পারে। সেই কারণেই চন্দ্রজল পাওয়ার জন্য পাতাল রাজ্যে এসে পৌঁছয় রোহিনী ও অগ্নি। কিন্তু তারা জানে না যে সেখানে তাদের জন্য কি অপেক্ষা করে রয়েছে। পাতালরাজ রোহিনী ও অগ্নিকে চন্দ্র জল দিতে রাজি হয় এই শর্তে যে তারা কালনাগিনীর কাছ থেকে তাকে মহামূল্যবান কিছু এনে দেবে। পাতালরাজের কথামতো তারা দু’জনে কালনাগিনীর কাছে পৌঁছয়। কালনাগিনীর আতিথেয়তায় মুগ্ধ হয় রোহিনী ও অগ্নি। কিন্তু আচমকাই রোহিনী অগ্নিকে অচেতন অবস্থায় দেখে বুঝতে পারে বিষক্রিয়ার কারণেই অগ্নি অচৈতন্য হয়ে পড়েছে। কৃষ্ণনাগের বংশধর হওয়ার সুবাদে রোহিনী অগ্নির দেহ থেকে বিষ নির্গত করে তাকে বাঁচিয়ে তোলে। কিন্তু তারপর কি হয় রোহনীর? অগ্নি আর রোহিনী কি পারবে তাদের এই চন্দ্রজল আনার অভিযানে সফল হতে। কালনাগিনীর সঙ্গে কি রোহিনীও তার পূর্বপুরুষদের কোনও যোগ সূত্র রয়েছে?

[আরও পড়ুন: শিল্পার স্বামী রাজ কুন্দ্রার বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ, বম্বে হাই কোর্টের দ্বারস্থ পুনম পাণ্ডে ]

উত্তর মিলবে ‘বেদের মেয়ে জ্যোৎস্না’ ধারাবাহিকটির আগামী পর্বগুলিজুড়ে। মেগায় রোহিনীর চরিত্রে রয়েছেন শ্রীমা ভট্টাচার্য। অগ্নির ভূমিকায় রয়েছেন অর্কজ্যোতি পাল। ধারাবাহিকে নিজের চরিত্রে প্রসঙ্গে চান্দ্রেয়ী জানান “আমাকে সবসময়ই সেই সব চরিত্রগুলোই অফার করা হয় যেগুলো খুব চ্যালেঞ্জিং এবং লার্জার দ্যান লাইফ। সান বাংলায় এটি আমার দ্বিতীয় কাজ আর আমি এদের সঙ্গে কাজ করে বেশ উপভোগ করছি। কালনাগিনী চরিত্রটার বৈশিষ্ট্য হল এটাই কেউ বুঝতেই পারবে না যে এটা পজেটিভ চরিত্র নাকি নেগেটিভ। এই চরিত্রটা কখনও খুব ভাল, কখনও নিষ্ঠুর আবার কখনও বিপদের মুখে হুমকিও দেয়। আর সেটা একই সময়ের মধ্যে। এই চরিত্রের লুকসটা আমার বেশ পছন্দ হয়েছে। টোনড ডাউন মেকআপের পাশাপাশি নতুন ধরনের গয়নাগাঁটি পড়বার সুযোগও পেয়েছি। আশা করছি আমার চরিত্রটি ‘বেদের মেয়ে জ্যোৎস্না’য় বাড়তি মাত্রা যোগ করবে এবং প্রতিবারের মতো এবারেও দর্শক আমায় পছন্দ করবে।”

[আরও পড়ুন: ‘খলনায়ক’ বুম্বা! রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট নিয়ে কৌশিক-প্রসেনজিতের আগামী ছবি]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement