BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বারবার জঙ্গিদের নিশানায় রাজনীতিবিদরা, কাশ্মীরে বিজেপি নেতাদের গণইস্তফার হিড়িক

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: August 9, 2020 10:38 pm|    Updated: August 9, 2020 11:05 pm

An Images

‌সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:‌ এক সপ্তাহের মধ্যে তিনবার!‌ জঙ্গিদের হামলার নিশানায় আরও এক বিজেপি (BJP) নেতা। আর রবিবার সকালের এই ঘটনার পরই জম্মু ও কাশ্মীরের বিজেপি নেতারা পরপর ইস্তফা দিতে শুরু করলেন। ইতিমধ্যে বদগামের চারজন বিজেপি নেতা পদত্যাগ করেছেন। এর মধ্যে রয়েছেন দলের সাধারণ সম্পাদক ও বদগাম এমএম মোর্চার সাধারণ সম্পাদক।

[আরও পড়ুন: সীমান্ত বিবাদের মধ্যেই নেপালকে ১০টি ভেন্টিলেটর উপহার দিল ভারত]

এর আগে এদিন সকালে অজ্ঞাতপরিচয় বন্দুকবাজদের হামলায় গুরুতর জখম হন কাশ্মীরের (Kashmir) বদগামের বিজেপি নেতা আবদুল হামিদ নাজার (৩৮)। মোহিন্দপোরায় নিজের বাড়ির কাছেই অজ্ঞাতপরিচয় বন্দুকবাজরা তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি করে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত এক সপ্তাহে বিজেপি নেতাদের উদ্দেশ্য করে এটি তৃতীয় হামলা। এই ঘটনাকে কাপুরুষোচিত বলে উল্লেখ করে জম্মু ও কাশ্মীর বিজেপির সভাপতি রবীন্দ্র রায়না বলেন, উপত্যকায় দলীয় কর্মীদের উপর বেড়ে চলা হামলার ঘটনা পাকিস্তানের হতাশা স্পষ্ট ব্যক্ত করছে, তবে দল এই ধরনের হামলার কাছে কিছুতেই নতিস্বীকার করবে না। তাঁর মতে, এভাবে বিজেপির জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি রুখতে পারবে না পাকিস্তান।
এর আগে বুধবার সকালে বিজেপি নেতা সাজাদ আহমেদের উপর হামলা চালায় সন্ত্রাসবাদীরা। কুলগামের ভেস্সুতে তাঁর বাড়ির বাইরে তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। গুরুতর জখম অবস্থায় তড়িঘড়ি তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়। তার আগে সন্ত্রাসবাদী হামলায় গুরুতর জখম হন বিজেপির অপর এক নেতা আরিফ আহমেদ। দক্ষিণ কাশ্মীরের কুলগামে বিজেপির ওই নেতার উপর হামলা হয়। এছাড়া গত মাসে বিজেপির প্রাক্তন জেলা সভাপতি ওয়াসিম বারি, তাঁর বাবা ও এক ভাইকে খুব কাছ থেকে গুলি করে হত্যা করে জঙ্গিরা।

[আরও পড়ুন: অনুব্রতকে ‘ক্রিমিনাল’ বলে কটাক্ষ রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়ের, পালটা দিলেন বীরভূমের তৃণমূল সভাপতি]

আর এই ঘটনাগুলোর পরই রবিবার একইসঙ্গে নিজেদের পদ থেকে ইস্তফা দিলেন চার বিজেপি নেতা। এই প্রসঙ্গে রাজনৈতিক মহলের মত, জঙ্গিদের হামলার হাত থেকে বাঁচতেই হয়তো ইস্তফা দিয়েছেন ওই চার নেতা। যদিও এ ব্যাপারে তাঁরা কেউই এখনও পর্যন্ত মুখ খোলেননি।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement