৪ মাঘ  ১৪২৮  মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

তুষারঝড়ে হিমাচল প্রদেশে আটক কমপক্ষে ৭৫ জন বাঙালি পর্যটক

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: April 7, 2017 9:57 am|    Updated: December 18, 2019 6:52 pm

75 Bengali tourists stuck as heavy blizzard lashes Himachal Pradesh

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: হিমাচলের চিটকুলে প্রবল তুষারধসে আটকে পড়লেন উত্তর ২৪ পরগনার বারাসতের ৭৫ জন বাঙালি পর্যটক৷ আটকে পড়া পর্যটকরা বারাসত-সহ হাবড়া, বীরা, গুমার বাসিন্দা৷ দলে রয়েছেন বেশ কয়েকজন মহিলা এবং একাধিক শিশুও। এছাড়া ওই দলটির মধ্যে একই পরিবারের ২৮ জন সদস্য রয়েছেন৷ বারাসতের একটি পর্যটন সংস্থার সঙ্গে গত ২৯ এপ্রিল তাঁরা রওনা দিয়েছিলেন৷ ৪ এপ্রিল কলপা থেকে চিটকুলে পৌঁছন তাঁরা৷ তুষারপাতে এতটাই খারাপ অবস্থা হিমাচল প্রদেশে যে, মিলছে না পানীয় জলও৷ জেলা প্রশাসনের নজরে আসার পর পর্যটকদের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়৷ প্রত্যেকের বাড়িতেও যান প্রশাসনের পুর প্রতিনিধিরা৷

[ধর্ম আর রাজনীতি এক নয়, ফের বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর]

সোমা সাহা নামে আটক পর্যটকদের পরিবারের এক সদস্য বলেন, ”৬ এপ্রিল যখন ফোনে কথা হয়েছিল৷ তখন তাঁর পরিবারের সদস্যরা হোটেলেই আটকা পড়েছিলেন৷ প্রবল তুষারপাত হচ্ছিল৷ সঙ্গে চলছিল প্রবল বর্ষণও৷” ধস নেমে রাস্তা বন্ধ৷ বিদ্যুতের খুঁটিও উপগিয়েছে৷ তিন ফুট গভীর বরফ জমে রয়েছে সড়কে৷ ফলে যোগাযোগ একেবারে বিচ্ছিন্ন৷ কিন্নরের পুলিশ সুপার রোহিত মালপানি জানিয়েছেন, শুক্রবার সকাল থেকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার সম্ভাবনা ছিল৷ আকাশ একটু পরিষ্কার হচ্ছিল৷ কিন্তু বেলা গড়াতেই আবহাওয়া ফের খারাপ হতে শুরু করে৷ মূল সড়কে ধস নেমে বন্ধ হয়ে যাওয়ার ফলে পর্যটকদের কাছে পৌঁছনো সম্ভব হয়নি৷ নিকটবর্তী থানা সাংলাতে খবর দেওয়া হয়েছে৷ তারা পর্যটকদের উদ্ধারের চেষ্টা চালাচ্ছে৷ তবে রাস্তা পরিষ্কার না হওয়া পর্যন্ত হোটেলে পৌঁছনো সম্ভব নয়৷ পর্যটকদের যাতে কোনও সমস্যা না হয় তার দিকে নজর রাখা হবে।

[জাতীয় পুরস্কারের মঞ্চে বাংলার মুখ ‘বিসর্জন’, খেতাব জয় অনুপম, ইমনের]

এদিকে, প্রায় দু’দিন যোগাযোগের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন আত্মীয়রা৷ বেলার দিকে সুকান্ত শিকদার নামে এক পর্যটকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়৷ তিনি বলেন, অত্যন্ত উদ্বিগ্ন তাঁরা৷ বরফের মধ্যেই আটকা পড়ে রয়েছেন৷ এমনকী তাঁদের মধ্যে ৮৫ বছর বয়সি এক ব্যক্তি অসুস্থও হয়ে পড়েছেন৷ শুকনো অল্প খাবার ছাড়া আর কিছুই নেই তাদের কাছে৷ নেই প্রয়োজনীয় ওষুধও৷ পঞ্চায়েত প্রধান দেখা করে গেলেও হিমাচল প্রশাসনের তরফে কোনও প্রতিনিধি তাঁদের কাছে আসেননি৷

[হুইল চেয়ার নেই, তাই হামাগুড়ি দিয়ে স্কুলে যায় এই ছাত্র]

অন্যদিকে, তুষারধসের জেরে কাশ্মীর-হিমাচলে ইতিমধ্যেই প্রাণ হারিয়েছেন ১১ জন৷ হিমাচলে মৃত্যু হয়েছে চারজন স্থানীয় বাসিন্দার। অপরদিকে, জম্মু-কাশ্মীরের বাতালিকে তুষারধসে আটকে পড়া বিহারের তিন জওয়ানকেই মৃত অবস্থায় শুক্রবার সকালে উদ্ধার করা হয়েছে৷ জানা গিয়েছে, লাদাখের বাতালিক সেক্টরের সেনা পোস্টে কর্মরত ছিলেন এই জওয়ানরা৷ বৃহস্পতিবার সেখানে প্রবল তুষারপাতের পাশাপাশি প্রবল তুষারধস শুরু হয়৷ সঙ্গে হড়কা বান৷ তুষারধসের কবলে পড়া পাঁচ জওয়ানের মধ্যে দু’জনকে উদ্ধার করা হয়েছিল৷ নিখোঁজ ছিলেন তিনজন৷ তাঁদেরই মৃতদেহ উদ্ধার হল এদিন৷ এছাড়া প্রবল তুষারধসে মৃত্যু হয়েছে এক নাবালিকা-সহ আরও চারজনের৷ জম্মু-কাশ্মীরের বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতির সঙ্গে ফোনে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ সাহায্যের আশ্বাসও দেন তিনি৷

[‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি এবং সহিষ্ণুতায় সবার থেকে এগিয়ে ভারত’]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে