৩ শ্রাবণ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: “অভিনন্দন মোদিজি, অসাধারণ সাংবাদিক বৈঠক! আশা করি পরেরবার মিস্টার শাহ আপনাকে কিছু প্রশ্নের হয়তো উত্তর দিতে দেবেন।” নরেন্দ্র মোদির সাংবাদিক বৈঠকের পর এভাবেই প্রধানমন্ত্রীকে বিঁধেছিলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। রাহুলের পথে হেঁটেই মোদিকে কটাক্ষ করলেন অখিলেশ যাদব থেকে ওমর আবদুল্লা প্রত্যেকেই।

২০১৪ সালের ২৬ মে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন মোদি। মাঝে অতিক্রান্ত ১৮১৭ টি দিন। দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে প্রথমবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন তিনি। কিন্তু কোনও প্রশ্নেরই উত্তর দিলেন না। মোদির পাশে বসে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ’ই সমস্ত প্রশ্নের জবাব দিলেন। যা এক অর্থে নজিরবিহীন। সাংবাদিক সম্মেলন শেষ হওয়ার পর থেকেই মোদির ‘কীর্তি’ নিয়ে নিন্দার ঝড় উঠেছে নেটদুনিয়ায়। মোদির নীরবতাকে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি বিরোধী দলের নেতা-মন্ত্রীরা। রাহুল গান্ধী তো বটেই, সমাজবাদী পার্টি প্রধান অখিলেশ যাদবও শুক্রবার মোদির সমালোচনায় সরব হন। তিনি বলেন, “ওঁদের সাংবাদিক সম্মেলন দেখে মনে হল যেন রেডিওর পরিবর্তে টিভির পর্দায় একটা ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠান দেখলাম। সাংবাদিকদের সেখানে প্রশ্ন করার কোনও সুযোগই দেওয়া হল না। তাঁদের অনুগত সৈনিকদের মতো মুখে কুলুপ এঁটে বসে থাকতে দেখা গেল।’’

[আরও পড়ুন: ‘মোদি শোলে ছবির আসরানি’, ফের প্রধানমন্ত্রীকে কটাক্ষ প্রিয়াঙ্কার]

টুইটারে মোদির নিন্দা করেছেন লোকতান্ত্রিক জনতা দলের প্রধান শরদ যাদবও। লিখেছেন, ‘‘দুর্ভাগ্যজনকভাবে গত পাঁচ বছরে বিজেপির শাসনকালে মোদি একবারও সাংবাদিকদের মুখোমুখি হতে পারেননি। সবার মনেই এ প্রশ্ন উঠেছে। আর মোদির বডি ল্যাঙ্গুয়েজেই সাফ যে তিনি হার স্বীকার করে নিয়েছেন। তাই এটাই তাঁর সরকার এবং পার্টির শেষ সাংবাদিক সম্মেলন।” কংগ্রেস নেতা আহমেদ পটেল টুইট করেন, ‘‘আমি এমন কোনও সাংবাদিক সম্মেলন দেখিনি যেখানে কেউ নিজেই নিজের প্রশ্নের উত্তর দেন।’’ রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের গলাতেও একই সুর। ‘‘মোদির বডি ল্যাঙ্গুয়েজেই বলে দিচ্ছে তিনি পরাজয় মেনে নিয়েছেন।’’ খোঁচা দিতে ছাড়েননি জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী এবং ন্যাশনাল কনফারেন্স দলের নেতা ওমর আবদুল্লাও। তাঁর কথায়, ‘‘সাংবাদিকদের ছদ্মবেশে থাকা বিজেপি কর্মীদের ধন্যবাদ জানাতে ভোলেননি অমিত শাহ।’’

[আরও পড়ুন: টাইম ম্যাগাজিনের ‘প্রধান বিভাজক’ কটাক্ষ নিয়ে মুখ খুললেন প্রধানমন্ত্রী]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং