BREAKING NEWS

১ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন খেয়ে পেট ব্যথা-বমিভাব, চিন্তায় ICMR কর্তারা

Published by: Paramita Paul |    Posted: April 18, 2020 8:17 pm|    Updated: April 18, 2020 8:17 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা সারাতে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন কতটা কার্যকর? এ বিষয়ে এখনও সবুজ সংকেত দিতে পারল না ICMR (ইন্ডিয়ান কাউন্সিল ফর মেডিক্যাল রিসার্চ)। বরং তাঁদের বিবৃতিতে খানিকটা আতঙ্ক বাড়ল। সংস্থার এপিডেমোলজি ও কমিউনিকেবল ডিজিজের প্রধান রমন আর গঙ্গাখেদকার বললেন, ওই ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া এখনও চিন্তার বিষয়। যাদের উপর এই ওষুধ প্রয়োগ করা হয়েছিল, তাঁদের অনেকেই পেটের ব্যথায় কাবু। আবার অনেকের বমি-বমি ভাব দেখা গিয়েছে। ফলে করোনা মোকাবিলায় যতই বিশ্বের অন্যান্য দেশ এই ওষুধ চেয়ে পাঠাক, দেশে কতটা কাজে আসবে, তা এখনই বলা মুশকিল।

শনিবার আইসিএমআর জানিয়েছে, এ পর্যন্ত ৪৮০ জন করোনা আক্রান্ত এই ওষুধ খেয়েছিলেন। তাঁদের আপাতত পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। অন্তত দু’মাস আগে সঠিকভাবে কিছু বলা যাবে না। পাশাপাশি ১০ শতাংশ আক্রান্ত যারা এই ওষুধ খেয়েছিলেন কিছুদিন পর থেকেই পেট ব্যথা শুরু হয়ে যায়। ৬ শতাংশের নানারকম শারীরিক অস্বস্তি, বমিভাব দেখা দেয়। গঙ্গাখেদকার বলেছেন, “তবে এটাও ঠিক হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া যাঁদের ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে তাঁরা কেউই ওষুধ খাওয়ার আগে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাননি।” একই সঙ্গে তাঁরা জানান, তাঁরা এখনও ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখতে ট্রায়াল রান শুরু করেননি। স্রেফ পর্যবেক্ষন করছেন।

[আরও পড়ুন : চিনের ছক বানচালে মরিয়া, প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগের নিয়ম বদল করল কেন্দ্র]

ম্যালেরিয়ার ওযুধ হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন। তা সার্বিকভাবে প্রয়োগ করা যাবে না, এমন সতর্কতা আগেই জারি করেছিল ICMR। কোন কোন রোগীর উপরে এই ওষুধ প্রয়োগ করা যেতে পারে তা নিয়ে আইসিএমআরের নির্দেশিকাও রয়েছে। গঙ্গাখেদকার বলেছেন, যারা হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন খাওয়ার পরে পেটের ব্যথায় ভুগছেন তাঁদের ২২ শতাংশেরই ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, শ্বাসজনিত সমস্যা ছিল। ওষুধ খাওয়ার আগে তাঁদের বেশিরভাগই ইসিজি করাননি। তবে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া যে তাঁদের ভাবাচ্ছে, তা কার্যত এদিন স্বীকার করে নিয়েছেন আইসিএমআর কর্তা। 

[আরও পড়ুন : নীতি নির্ধারক কমিটি থেকে ব্রাত্য প্রবীণেরা! রাহুলের প্রত্যাবর্তনের মঞ্চ সাজাচ্ছেন সোনিয়া]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement