BREAKING NEWS

৪ আষাঢ়  ১৪২৮  শনিবার ১৯ জুন ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

মেহুল চোকসিকে ফেরত নিতে নারাজ অ্যান্টিগা, ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ফেরানো হতে পারে ভারতে

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: May 27, 2021 10:56 am|    Updated: May 27, 2021 12:03 pm

Antigua PM Browne asks Dominica to directly deport Mehul Choksi | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আরও দুর্দিন ঘনিয়ে আসছে ভারত থেকে পলাতক হীরে ব্যবসায়ী মেহুল চোকসির। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই পিএনবি কেলেঙ্কারির (PNB Scam) অন্যতম অভিযুক্তকে ফেরানো হতে পারে ভারতে। এমনটাই জানিয়েছেন, অ্যান্টিগা ও বারবুডার প্রধানমন্ত্রী গ্যাস্টন ব্রাউন। তাঁর সাফ কথা, চোকসিকে আর ফেরত নেবে না অ্যান্টিগা। তাঁকে সরাসরি প্রাইভেট জেটে করে পাঠিয়ে দেওয়া হোক ভারতে। তবে, পলাতক হীরে ব্যবসায়ীকে দেশে ফেরানোর জন্য বিমানের খরচ দিতে হবে ভারত সরকারকেই।

উল্লেখ্য, পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংকে ১৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকার কেলেঙ্কারির মধ্যে মেহুল প্রায় ৭ হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ করেন বলে অভিযোগ। তারপর আর্থিক তছরূপের পর আইনের হাত থেকে বাঁচতে ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের ছোট্ট দেশ অ্যান্টিগা ও বারবুডায় গা ঢাকা দেন ওই ব্যবসায়ী। সেটা ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাসের ঘটনা। এই দ্বীপরাষ্ট্রগুলির সঙ্গে ভারতের কোনও প্রত্যর্পণ চুক্তি নেই। তাছাড়া অ্যান্টিগার পাসপোর্ট ব্যবহার করে পৃথিবীর অন্তত ১২৬টি দেশে ঘোরা যায়। এই সুযোগ নিয়েই বেশিরভাগ ঋণখেলাপিরা আশ্রয় নেয় সেই দেশে। তবে মেহুল চোকসিকে (Mehul Choksi) ফেরাতে অ্যান্টিগার সঙ্গে নতুন করে প্রত্যর্পণ চুক্তির উদ্যোগ নেয় মোদি সরকার। দেশটির তরফে মেহুল চোকসি সম্পর্কিত তথ্য চাওয়া হলে তা ভারতের তরফে তুলে দেওয়া হয়।

[আরও পড়ুন: নৌকায় চেপেও হল না শেষরক্ষা, অ্যান্টিগা থেকে কিউবা যাওয়ার পথে গ্রেপ্তার মেহুল চোকসি]

বিপদ আসন্ন বুঝে, চোকসি গত ২৩ মে অ্যান্টিগা (Antiga) থেকে পালানোর ছক করে। বিমানবন্দর বা স্থলপথের বদলে নৌকায় চেপে অ্যান্টিগা থেকে কিউবার উদ্দেশে রওনা দেন তিনি। কিন্তু তাতেও শেষরক্ষা হয়নি। ডমিনিকার ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন বিভাগের হাতে ধরা পড়ে যান কুখ্যাত এই হীরে ব্যবসায়ী। চোকসি ধরা পড়তেই অ্যান্টিগার প্রধানমন্ত্রী সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, তাঁকে আর দেশে ফিরিয়ে আইনি জটিলতা বাড়াতে চান না তিনি। বরং, ডমিনিকা থেকেই সরাসরি ভারতে পাঠিয়ে দেওয়া হোক তাঁকে। গ্যাস্টন ব্রাউন বলছেন,”আমি ডমিনিকার প্রধানমন্ত্রী রুসভেল্ট স্কেরিটের সঙ্গে কথা বলেছি। আমি চাই তাঁকে আর এখানে পাঠানো না হোক। কারণ অ্যান্টিগায় এলেই ও সাংবিধানিক সুরক্ষা পেয়ে যাবে।” ব্রাউন জানিয়েছেন,”আমি ডমিনিকার প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়ে দিয়েছি ওকে যেন আর এদেশে না ফেরানো হয়। ডমিনিকায় ও কোনও সাংবিধানিক সুরক্ষা পায় না। তাই, ডমিনিকার পক্ষে ওকে সোজা ভারতে পাঠানো সহজ হবে। আশা করা যাচ্ছে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই প্রাইভেট জেটে করে মেহুল চোকসির ভারতে প্রত্যর্পণের ব্যবস্থা করা যাবে। আইনি সমস্যা হবে না।”

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement