২৯ ভাদ্র  ১৪২৬  সোমবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিতর্কিত ৩৭০ ধারা বাতিল হতেই সংসদের ভিতরে ও বাইরে প্রতিবাদের ঝড় তুলল বিরোধীরা। সোমবার রাজ্যসভার অধিবেশনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ৩৭০ ধারা বাতিলের প্রস্তাব দেন। এই সংক্রান্ত বিলে সইও করেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। এরপর সংসদের ভিতরে তীব্র প্রতিবাদ দেখাতে থাকে বিরোধীরা। এই বিলের প্রতিবাদে সংবিধানের প্রতিলিপি ছিঁড়ে ফেলে পিডিপির দুই সাংসদ মীর ফৈয়াজ ও নাজির আহমেদ। সঙ্গে সঙ্গে তাদের আটক করা হয়। মেহবুবা মুফতির দলের ওই সাংসদদের রাজ্যসভা ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ারও নির্দেশ দেন উপরাষ্ট্রপতি এবং রাজ্যসভার চেয়ারম্যান বেঙ্কাইয়া নায়ডু। তারা সঙ্গে সঙ্গে রাজ্যসভার বাইরে বেরিয়ে এসেও বিক্ষোভ দেখাতে থাকে। নিজের জামাও ছিঁড়ে ফেলে মীর ফৈয়াজ।

[আরও পড়ুন: অঙ্গরাজ্যের মর্যাদা খোয়াচ্ছে ভূস্বর্গ, ২টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করা হচ্ছে উপত্যকাকে]

এদিকে রাজ্যসভায় বক্তব্য রাখতে উঠে এই প্রস্তাবের তীব্র বিরোধিতা করেন বর্ষীয়ান কংগ্রেস সাংসদ গুলাম নবি আজাদ। তিনি বলেন, “আজ গণতন্ত্রের কালো দিন। স্বাধীনতার পর থেকে যে আত্মত্যাগ ও বলিদান সেনা এবং দেশের রাজনৈতিক নেতারা দিয়েছেন তার চরম অবমাননা করা হল। তবে পিডিপি সাংসদ মীর ফৈয়াজ ও নাজির আহমেদ সংবিধান ছেঁড়ার যে চেষ্টা করেছেন তার তীব্র নিন্দা করছি। আমরা সবসময় সংবিধানের সঙ্গেই আছি। সংবিধান রক্ষা করতে গিয়ে নিজেদের প্রাণও বিসর্জন দিতে পারি আমরা। তবে আজ সংবিধানকে খুন করেছে বিজেপি।”

কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের খবর পেতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতিও। তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, “আজ ভারতীয় গণতন্ত্রের সবচেয়ে কালো দিন। কাশ্মীরের মানুষ কোনওদিনই এই সিদ্ধান্ত মেনে নেবে না।”

[আরও পড়ুন: অমিত শাহর প্রস্তাবে সই রাষ্ট্রপতির, বাতিল সংবিধানের ৩৭০ ধারা]

তাঁর মতো এই সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা করেছেন আরেক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাও। একটি বিবৃতি প্রকাশ করে এই ঘটনাকে বিশ্বাসঘাতকতার চরম নিদর্শন বলেও উল্লেখ করেছেন।

তাঁদের মতো বিরোধিতা না করলেও বিষয়টিকে সমর্থন জানায়নি এনডিএ-এর জোট শরিক জেডি(ইউ)। এপ্রসঙ্গে দলের মুখপাত্র কেসি ত্যাগী বলেন, “আমাদের প্রধান নীতীশ কুমার জয়প্রকাশ নারায়ণ, রামমনোহর লোহিয়া, জর্জ ফার্নান্ডেজের ঐতিহ্য বহন করছেন।তাই রাজ্যসভায় যে বিল পেশ হয়েছে তা আমরা সমর্থন করি না। এবিষয়ে আমাদের মতামত আলাদা। আমরা চাই ৩৭০ ধারা থাকুক।”

তবে বিজেপি বিরোধী হিসেবে পরিচিত হলেও আজ রাজ্যসভায় এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেন বিএসপি সাংসদ সতীশ চন্দ্র মিশ্র। এপ্রসঙ্গে দলের অবস্থান স্পষ্ট করে তিনি বলেন, “আমাদের দল পুরো সমর্থন দেবে। আমরা চাই এই বিল পাশ হোক। আমাদের দলের পক্ষ থেকে ৩৭০ ধারা ও অন্য বিলের ক্ষেত্রে কোনও বিরোধিতা করা হবে না।”

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং