১৬ মাঘ  ১৪২৯  মঙ্গলবার ৩১ জানুয়ারি ২০২৩ 

READ IN APP

Advertisement

প্রবল বৃষ্টিতে ভেঙে পড়ল ৬০ ফুটের দেওয়াল, মৃত কমপক্ষে ১৭

Published by: Bishakha Pal |    Posted: June 29, 2019 9:03 am|    Updated: June 29, 2019 12:41 pm

At least 14 people died after a wall collapsed in Pune's Kondhwa area

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বৃষ্টির ফলে বিপর্যয়। ৬০ ফুটের দেওয়াল ভেঙে পড়ে মৃত্যু হল কমপক্ষে ১৭ জনের। শনিবার সকালে পুণের তালাব মসজিদের কোন্দওয়া এলাকার একটি আবাসনে ঘটনাটি ঘটে। পুলিশ সূত্রে খবর, প্রবল বৃষ্টির কারণেই ভেঙে পড়েছে দেওয়ালটি। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে পুলিশ।  

সরকারি তরফে খবর, বেশ কিছুদিন থেকেই অবিরাম বর্ষণ চলছে পুণে ও তার আশপাশের এলাকায়। শুক্রবারও তার ব্যতিক্রম ছিল না। এদিন গভীর রাতে হঠাৎই ভয়ংকর শব্দে ঘুম ভেঙে যায় এলাকাবাসীদের। রাত তখন প্রায় পৌনে দু’টো। স্থানীয়রা বাড়ির বাইরে এসে দেখেন আবাসনের একদিকের দেওয়াল হুড়মুড় করে ভেঙে পড়ছে। দুর্ঘটনাটি যেখানে ঘটেছে, তার পাশেই রয়েছে একটি নির্মীণমান আবাসন। সেখানে যারা কাজ করতেন, সেই শ্রমিক শ্রেণির মানুষরাই ওই ভেঙে পড়া দেওয়ালের আশপাশে থাকতেন। দেওয়ালটি ভেঙে পড়ার ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাঁরাই।

[ আরও পড়ুন: রাহুল গান্ধীর সম্মানরক্ষায় পদত্যাগের হিড়িক কংগ্রেসে ]

দুর্ঘটনাটি দেখামাত্রই স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেন। খবর যায় দমকল ও জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের কাছেও। এনডিআরএফের তরফে একটি টিম ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছায়। উদ্ধারকাজ শুরু করে তারা। শনিবার সকাল পর্যন্ত ১৭ জনের দেহ উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। তার মধ্যে ৯ জন পুরুষ, একজন মহিলা ও ৪ শিশু রয়েছে। পুলিশের অনুমান, এখনও দেওয়ালের নিচে চাপা পড়ে রয়েছেন জনা তিনেক মানুষ। তাঁদের উদ্ধারের চেষ্টা চালানো হচ্ছে। পুলিশ ও জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের কর্মীদের সঙ্গে উদ্ধার কাজে হাত লাগিয়েছেন স্থানীয়রাও।

পুণের জেলাশাসক নাভাল কিশোর রাম জানিয়েছেন, প্রবল বৃষ্টির কারণেই ভেঙে পড়েছে দেওয়াল। যে কোম্পানিকে দেওয়ালটি বানানোর বরাত দেওয়া হয়েছিল, তাদের খবর দেওয়া হযেছে। তাদের গাফিলতির জন্যই আজ এতবড় দুর্ঘটনা ঘটেছে। ১৭ জনের মৃত্যু খুব একটা ছোট ব্যাপার নয় বলে জানান তিনি। দুর্ঘটনায় যাঁরা মারা গিয়েছেন তাঁরা পশ্চিমবঙ্গ ও বিহারের বাসিন্দা। আহতদের সাহায্য করবে সরকার। তাঁদের চিকিৎসার জন্য যা দরকার তা প্রশাসনের তরফে দেওয়া হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

[ আরও পড়ুন: প্রাচীন পদ্ধতিতে জল সংরক্ষণই বাঁচিয়ে রেখেছে এই গ্রামের বাসিন্দাদের ]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে