BREAKING NEWS

২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৭ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

দাঙ্গা নিয়ে ফেসবুক ইন্ডিয়াকে ‘চূড়ান্ত’ সমন পাঠাল দিল্লি বিধানসভা

Published by: Biswadip Dey |    Posted: September 21, 2020 2:32 pm|    Updated: September 21, 2020 2:32 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফেসবুক ইন্ডিয়ার (Facebook India) সহ-সভাপতি ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর অজিত মোহনকে ‘চূড়ান্ত’ সমন পাঠাল দিল্লি বিধানসভার (Delhi legislative assembly) ‘শান্তি ও সম্প্রীতি’ কমিটি। তাঁকে আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর কমিটির সামনে হাজিরা দিতে বলা হয়েছে। আম আদমি পার্টির মুখপাত্র ও বিধায়ক রাঘব চাডা একথা জানিয়েছেন। প্রসঙ্গত, তিনিই ওই কমিটির প্রধান।

ফেসবুক ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ, দিল্লি দাঙ্গার (Delhi riot) সময় তারা তাদের প্ল্যাটফর্মে হিংসাত্মক ও উস্কানিমূলক পোস্টকে মুছে দেওয়ার ক্ষেত্রে ইচ্ছাকৃত নিষ্ক্রিয়তা দেখিয়েছে। এই অভিযোগের কারণে এর আগে গত মঙ্গলবার ফেসবুক ইন্ডিয়াকে কমিটির সামনে হাজিরা দিতে বলা হয়েছিল। কিন্তু অজিত মোহন সেদিন কমিটির সামনে উপস্থিত হননি।

[আরও পড়ুন : দেশে করোনা সংক্রমণ কি শিখরে পৌঁছেছে? জানুন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর জবাব]

এখনও পর্যন্ত মোট তিনবার তাঁকে সমন পাঠানো হয়েছে। কোনও বারই তিনি হাজিরা দেননি। এভাবে বারবার সমন উপেক্ষা করে কমিটির সামনে হাজিরা দিতে না আসায় ফেসবুক ইন্ডিয়ার উপরে অত্যন্ত অসন্তুষ্ট কমিটি।

এর আগেই কমিটি জানিয়েছিল, ফেসবুক দিল্লি বিধানসভাকে অবজ্ঞা করছে। তাদের সমন মেনে হাজিরা দেওয়ার ব্যাপারে চূড়ান্ত হুঁশিয়ারিও দেওয়া হয়েছিল।

একটি চিঠিতে ফেসবুকের তরফে জানানো হয়েছিল, ‘শান্তি ও সম্প্রীতি’ কমিটির সামনে অজিত মোহন উপস্থিত হতে পারবেন না। কেননা সংসদীয় কমিটির সামনে একই বিষয়ে তিনি হাজিরা দিয়েছিলেন। তাই দিল্লি বিধানসভার কমিটির সামনে তিনি উপস্থিত হবেন না। ফেসবুকের বক্তব্য ছিল, ওই সমন প্রত্যাহার করুক কমিটি।

সাম্প্রতিক সমনে কমিটির তরফে জানানো হয়েছে, আইন ও সাংবিধানিক বিষয় হিসাবে, যাদের কমিটি কর্তৃক সমন পাঠানো হয় তাদের কমিটির সামনে উপস্থিত থাকতে হবে। তাদের বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগের উত্তর দিতে হবে। এবিষয়ে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা হলেও এখনও তারা কোনও রকম প্রতিক্রিয়া জানায়নি।

গত ফেব্রুয়ারিতে উত্তর-পূর্ব দিল্লির দাঙ্গায় ৫৩ জনের মৃত্যু হয়। আহত হন কমপক্ষে ৪০০। এই দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়ার ক্ষেত্রে ফেসবুকে ঘুরতে থাকা নানা উস্কানিমূলক পোস্টকে দায়ী করা হয়। অভিযোগ, ফেসবুক ওই ধরনের পোস্টকে মুছে দেওয়ার ক্ষেত্রে ইচ্ছাকৃত নিষ্ক্রিয়তা দেখিয়েছিল।

[আরও পড়ুন : দেশে একদিনে করোনা সংক্রমিত প্রায় ৮৭ হাজার, আশা জাগিয়ে বিশ্বে সুস্থতার হারে শীর্ষে ভারত]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement