২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৬ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

লকডাউনেও পরিচ্ছন্ন হয়নি গঙ্গার জল, অতীত জল্পনা উড়িয়ে জানাল কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড

Published by: Biswadip Dey |    Posted: September 23, 2020 10:56 pm|    Updated: September 23, 2020 10:56 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: লকডাউনের ফলে গঙ্গার (Ganga) দূষণ কমবে। এমনটাই আশা ছিল সকলের। কিন্তু শেষ পর্যন্ত হতাশার কথা শোনাল কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড (Central Pollution Control Board)। বুধবার পেশ করা একটি রিপোর্টে জানানো হয়েছে, ২৫ মার্চ থেকে চলা ৬৮ দিনের লকডাউনের সময় গঙ্গার জলের কোনও উন্নতি তো হয়ইনি, বরং আরও খারাপ হয়েছে পরিস্থিতি।

তবে দেশের সব নদীর ক্ষেত্রেই ছবিটা তেমন নয়। রিপোর্ট জানাচ্ছে, প্রধান ১৯টি নদীর মধ্যে সাতটিতে জলের দূষণ অনেকটাই কমে গিয়েছে। লকডাউনের আগের পরিস্থিতির সঙ্গে তুলনা করে দেখলে গত এপ্রিল থেকে এই নদীগুলির দূষণের (Water Pollution) পরিমাণ অনেকটাই হ্রাস পেয়েছে। যার মধ্যে অন্যতম ওড়িশার ব্রাহ্মণী নদী।

[আরও পড়ুন :বিশ্বের ১০০ জন প্রভাবশালী ব্যক্তির তালিকায় শাহিনবাগের ‘দাদি’, রয়েছেন প্রধানমন্ত্রীও]

রিপোর্ট জানাচ্ছে, গঙ্গার জলের সাধারণ গুণমান ৬৪.৬ শতাংশ থেকে কমে ৪৬.৬ শতাংশে নেমে গিয়েছে। এর পিছনে অন্যতম প্রধান কারণ গঙ্গার জলপ্রবাহে তেমন গতি না থাকা। ফলে দূষিত পদার্থ জমার পরিমাণ বেড়েছে। একই অবস্থা বিয়াস, চম্বল কিংবা সুবর্ণরেখা নদীরও।

প্রসঙ্গত, কেন্দ্রীয় সরকারের স্বপ্নের প্রকল্প ‘নমামি গঙ্গে’র মাধ্যমে গঙ্গাকে দূষণমুক্ত করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। কিছুদিন আগেই জলশক্তি মন্ত্রকের বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, ২০১৪ সাল থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে গঙ্গার জলের গুণমানের উন্নতি হয়েছে। কিন্তু যা পরিস্থিতি তাতে মানুষের ব্যবহারের জন্য সম্পূর্ণ নিরাপদ হতে তার এখনও কয়েক দশক সময় লেগে যেতে পারে।

[আরও পড়ুন : মহাকাশেও যুদ্ধের দামামা! ভারতের স্যাটেলাইট নেটওয়ার্কে হামলা চিনের, রিপোর্টে ষড়যন্ত্র ফাঁস]

এই পরিস্থিতিতে লকডাউনের সময়কালে মানুষ গৃহবন্দি হয়ে পড়ায় আশা জেগেছিল, হয়তো এই অতিমারীর সময়টা আশীর্বাদ হয়ে দেখা দিতে পারে গঙ্গার জন্য। শেষপর্যন্ত কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের রিপোর্টে দেখা গেল, পরিস্থিতি আরও খারাপ হচ্ছে। তবে উত্তরাখণ্ড কিংবা উত্তরপ্রদেশের কোনও কোনও অঞ্চলে গঙ্গার জলের উন্নতি হয়েছে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ ও বিহারে অবস্থা ভয়াবহ।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement