BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মুম্বইয়ের ক্রফোর্ড মার্কেটে ভাঙল বহুতল, দমকলের তৎপরতায় এড়ানো গেল মৃত্যু

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: September 20, 2019 12:20 pm|    Updated: September 20, 2019 12:20 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ১০দিনের মধ্যেই ফের বিপর্যয়। দক্ষিণ মু্ম্বইয়ের ক্রফোর্ড মার্কেটে ফের ভেঙে পড়ল বহুতলের একাংশ। ক্ষয়ক্ষতি কতটা হয়েছে, তা এখনও জানা যায়নি। সূত্রের খবর, দমকল বাহিনীর তৎপরতায় প্রাণহানি এড়ানো গিয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, শুক্রবার সকালে লোকমান্য তিলক রোডের এই জমজমাট বহুতলটির একাংশ হুড়মুড়িয়ে আচমকাই ভেঙে পড়ে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় দমকলের ৭টি ইঞ্জিন। পৌঁছায় অ্যাম্বুল্যান্স এবং উদ্ধারকারী দল।

[আরও পড়ুন: আইনের ছাত্রীকে লাগাতার ধর্ষণ, গ্রেপ্তার প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী চিন্ময়ানন্দ]

 

দ্রুত শুরু হয় উদ্ধারকাজ। ভেঙে পড়া অংশ সরিয়ে এলাকাটি পরিষ্কার করে দেওয়া হয়। সেইসঙ্গে নিরাপত্তার স্বার্থে খালি করে দেওয়া হয় গোটা বহুতলটিই। বৃহন্মুম্বই কর্পোরেশনের তরফে জানানো হয়েছে, এই মুহূর্তে সকলেই নিরাপদে আছেন। সকালে দুর্ঘটনা হওয়ায় প্রাণহানি এড়ানো গিয়েছে বলে মনে করছেন দমকল কর্মীরা। তবে তাতে ক্রফোর্ড মার্কেটের কতটা ক্ষতি হয়েছে, তা জানা যায়নি। উৎসবের মরশুমে এভাবে দোকানঘর ভেঙে পড়ায় মথায় হাত সেখানকার ব্যবসায়ীদের। তাঁদের বড়সড় ক্ষতি হয়ে গেল বলে আশঙ্কা করছেন। তবে মৃত্যু যে এড়ানো গিয়েছে, সেটা বড় ব্যাপার বলেও দমকল ও উদ্ধারকারী দলকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তাঁরা।

[আরও পড়ুন: গত সাত মাসে সর্বনিম্ন নিফটি সূচক, নামল সেনসেক্সও]

চলতি মাসের ১০ তারিখ এই ক্রফোর্ড মার্কেটেরই একাংশ ভেঙে পড়েছিল। যদিও ওই বহুতলটি আগে থেকেই বিপজ্জনক বলে চিহ্নিত হওয়ায় বাসিন্দাদের আগেই সরিয়ে ফেলা হয়েছিল নিরাপদ স্থানে। তাই সেদিনের ঘটনাতেও প্রাণহানি এড়ানো গিয়েছিল।মুম্বইয়ের ক্রফোর্ড মার্কেট বহু পুরনো। গৃহস্থালির সামগ্রী এবং ফলের বাজার হিসেবে এর সুখ্যাতি আছে। আর সেখানেই বারবার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় সুরক্ষা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। দায় চাপছে বৃহন্মুম্বই কর্পোরেশনের উপরও। তবে তাদের দাবি, ওই বাজার এলাকার নিরাপত্তা খতিয়ে দেখে তাঁরা যথাযথ ব্যবস্থা নিয়েছেন। নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ চলে। তবে তারপরও কেউ বেআইনিভাবে ক্রফোর্ড মার্কেটে দাহ্য বস্তু মজুত করছে কি না, যে কারণে বারবার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে, সেই বিষয়টিতে আরও কড়া নজর দিতে চায় পুর কর্তৃপক্ষ।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement