১৪ মাঘ  ১৪২৮  শুক্রবার ২৮ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

চলছে বিধি তৈরির কাজ, বিক্ষোভ উপেক্ষা করেই দেশজুড়ে CAA কার্যকর করল কেন্দ্র

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: January 11, 2020 8:43 am|    Updated: January 11, 2020 9:09 am

Central government on Friday announced that CAA has come into force

স্টাফ রিপোর্টার, নয়াদিল্লি: দেশজুড়ে চলা বিক্ষোভ আন্দোলনের মধ্যেই সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) চালু করে দিল কেন্দ্র। শুক্রবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক এই আইন চালু করে বিজ্ঞপ্তি জারি করে। শুক্রবার ‘গেজেট অফ ইন্ডিয়া’তে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (Citizenship Amendment Act, 2019) বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, শুক্রবার তথা ১০ জানুয়ারি, ২০২০ থেকে সারা দেশে কার্যকর হবে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন।

CAA-Notice

গত ৯ ডিসেম্বর লোকসভায় ও ১১ ডিসেম্বর রাজ্যসভায় পাস হওয়ার পরেই সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে স্বাক্ষর করেছিলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ (Ram Nath Kovind)। সংশোধিত আইনে ২০১৪-র ৩১ ডিসেম্বরের আগে পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে আসা সমস্ত হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পার্সি ও খ্রিস্টান শরণার্থীরা ভারতের নাগরিকত্ব পাবেন। এই তিনটি দেশ থেকে আসা মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষকে শরণার্থী হিসাবে বিবেচনা করে নাগরিকত্ব প্রদানের সুযোগ দেওয়া হয়নি এই আইনে। এখানেই আপত্তি অধিকাংশ বিরোধী দলের। তাঁদের দাবি, এই প্রথমবার ভারতবর্ষে ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেওয়ার আইন তৈরি করা হল। যা সংবিধানের ১৪ নম্বর অনুচ্ছেদের পরিপন্থী। সংসদে আইনটি পাস হওয়ার পর থেকেই দেশজুড়ে আন্দোলনে নেমেছে বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি। পশ্চিমবঙ্গ, কেরল-সহ বেশ কয়েকটি অ-বিজেপি রাজ্য ইতিমধ্যেই ঘোষণা করেছে নয়া আইনটি তারা কার্যকর করবে না। বিরোধী দলগুলির পাশাপাশি নাগরিক সমাজের একাংশও এই আইনটির বিরোধিতায় রাস্তায় নেমেছে। এই আইন বিরোধী বিক্ষোভে গোটা দেশে অন্তত ২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু, সেসব উপেক্ষা করেই আইন কার্যকর করে দিল কেন্দ্র।

[আরও পড়ুন: জেএনইউতে হিংসার দায় বামপন্থী পড়ুয়াদেরই! ছবি প্রকাশ করে দাবি দিল্লি পুলিশের]

শুক্রবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সূত্রে জানা গিয়েছে, আইনটির বিধি তৈরির কাজ এখনও চলছে। যেহেতু বেশ কিছু রাজ্য আইনটি কার্যকর করার বিষয়ে অসহযোগিতা করবে বলে ঘোষণা করেছে, তাই অনলাইনে নাগরিকত্বের আবেদন গ্রহণের বিষয়টি বিধিতে রাখার কথা ভাবা হচ্ছে বলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সূত্রে জানা গিয়েছে। বিরোধী দলের আন্দোলনের চাপে যে বিজেপি আইনটি প্রত্যাহার করতে নারাজ তা স্পষ্ট হয়ে গেল শুক্রবারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের বিজ্ঞপ্তি জারির মধ্যে দিয়ে।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে