BREAKING NEWS

৩২ আষাঢ়  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১৬ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

অযোধ্যায় মন্দির হবেই, ভুল করে এমনটাই দেখাল ‘Google Map’

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: December 2, 2018 6:13 pm|    Updated: December 2, 2018 6:13 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মন্দির ওহি বানায়েঙ্গে… এতদিন শোনা যেত রামভক্তদের মুখে। এবার সেই বুলি গুগল ম্যাপেও। ভুলবশত হলেও এমনটাই হয়েছে। শনিবার সকালের দিকে গুগল ম্যাপে অযোধ্যা লিখে সার্চ করলেই অদ্ভুত দৃশ্য দেখা যাচ্ছিল। অযোধ্যার বিতর্কিত স্থানের কাছেই গুগল ইন্ডিকেটরে লেখা ছিল ‘মন্দির ইয়েহি বনেগা’। হিন্দু সংগঠনগুলি ঠিক যেখানে রামচন্দ্রের জন্মভূমি হিসেবে দাবি করে থাকে সেই রাম লালা সদনের অদূরেই ইন্ডিকেটরটিকে দেখা যাচ্ছিল। যাতে লেখা ছিল ‘মন্দির ইয়েহি বনেগা’। শুধু অযোধ্যা নয়, রাম জন্মভূমি লিখে সার্চ করলেও একই ছবি দেখা যাচ্ছিল।

[‘মসজিদ নয়, মন্দিরের কাঠামোই গুঁড়িয়ে দেয় করসেবকরা’, শংকরাচার্যের দাবিতে বিতর্ক]

গুগলের এই ভুলটি মারাত্মক, কারণ এর ফলে উগ্র সাম্প্রদায়িক পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। সেকথা জানিয়ে গ্রাহকদের মধ্যে কেউ কেউ রিপোর্ট করেন গুগলে। সেই রিপোর্টের ভিত্তিতেই পরে ইন্ডিকেটরটি সরিয়ে নেয় গুগল কর্তৃপক্ষ। অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য ক্ষমাও চান তারা। তাদের দাবি, কিছু গ্রাহক তাদের ভুলপথে চালনা করেছেন, যার জেরেই এই ভুল। আপাতত ইন্ডিকেটরটি সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। তার আগেই অবশ্য সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায় এই ছবি।

[রাম মন্দির নির্মাণে অযোধ্যায় ইট নিয়ে হাজির মুসলিম করসেবকরা]

১৯৯২ এর ৬ ডিসেম্বর, অযোধ্যায় বিতর্কিত নির্মাণটি ভেঙে ফেলেন কয়েক লক্ষ করসেবক। তারপর থেকে সেই নিয়ে দফায় দফায় সাম্প্রদায়িক হিংসা ছড়িয়েছে ভারতে। একাধিকবার বিতর্কিত স্থানে মন্দির নির্মাণের দাবিও উঠেছে। যদিও, এখনও পর্যন্ত মন্দির তৈরির উদ্দেশ্যে পদক্ষেপ করার সাহস দেখায়নি কোনও সরকার। সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টে পিছিয়ে গিয়েছে বিতর্কিত অযোধ্যা মামলা। তারপর থেকে নতুন করে মন্দিরের দাবি জোরাল করেছে হিন্দু সংগঠনগুলি। সম্প্রতি অযোধ্যায় বিতর্কিত স্থানে ধর্মসভার আয়োজন করেছিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ এবং আরএসএস। সংগঠন দুটির দাবি ছিল, ১৯৯২-এর মতো লক্ষ লক্ষ করসেবক জড়ো হবেন মন্দিরের দাবিতে। কিন্তু বাস্তবে দেখা যায় রামভক্তদের সংখ্যা মাত্র কয়েক হাজার। তাই তাৎক্ষণিকভাবে ধামাচাপা পড়ে যায় মন্দির নির্মাণের দাবি। এর মধ্যে গুগলের এই বিশ্রী ভুল অবশ্য নতুন করে উত্তেজনা ছড়ায়নি। বরং নেটিজেনরা এটা নিয়ে রসিকতাই করছেন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement